কুলাউড়ার ট্রেন দুর্ঘটনার প্রতিবেদন জমা, ২ বিভাগের মতবিরোধ

  কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি ০২ জুলাই ২০১৯, ২২:২২ | অনলাইন সংস্করণ

খালে পড়া ট্রেন উপরে তোলা হচ্ছে
খালে পড়া ট্রেন উপরে তোলা হচ্ছে

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার বরমচালে সংঘটিত ট্রেন দুর্ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন রেলওয়ের মহাপরিচালক (ডিজি) কাজী মো. রফিকুল আলমের দফতরে জমা দেয় হয়েছে।

সোমবার এ প্রতিবেদন জমা দেয়া হলেও তিনি তা খুলে দেখেননি বলে জানা গেছে।

গত ২৩ জুন কুলাউড়া উপজেলার বরমচালে বড়ছড়া সেতুর উপর ঢাকাগামী উপবন এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনায় পড়ে। এতে ৪ জন নিহত হন। আহত হন শতাধিক যাত্রী।

ঘটনার পরদিন পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান যান্ত্রিক প্রকৌশলী মিজানুর রহমানকে আহ্বায়ক করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে রেলওয়ে। ওই কমিটিকে ৩ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

এ হিসাবে প্রতিবেদন জমা দেয়ার কথা ছিল গত ২৬ জুন। তবে নির্ধারিত সময়ের পাঁচদিন পর রেলভবনে জমা দেয়া হয় প্রতিবেদন।

তদন্ত কমিটি গত ২৯ জুন সরেজমিন ট্রেন দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে তদন্ত সংক্রান্ত কোনো বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের সামনে মুখ খোলেননি। এক কর্মকর্তা আরেক কর্মকর্তার কথা বলে এড়িয়ে গেছেন পুরো বিষয়টি। তাদের আচরণ ছিলো রহস্যময়।

রেলওয়ের একটি সূত্র জানায়, তদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে রেলওয়ের পুরকৌশল ও যান্ত্রিক বিভাগের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। দুর্ঘটনার জন্য পুরকৌশল বিভাগকে দায়ী করে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ায় তদন্ত কমিটি ও পুরকৌশল বিভাগের সদস্য চিফ ইঞ্জিনিয়ার (পূর্ব) আবদুল জলিল প্রতিবেদনে স্বাক্ষর করেননি।

৪ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটির বাকি ৩ সদস্য একমত হয়ে তদন্ত রিপোর্টে স্বাক্ষর করেন।

এ ব্যাপারে চিফ ইঞ্জিনিয়ার (পূর্ব) আবদুল জলিলের মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগ করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

প্রতিবেদন সম্পর্কে জানতে রেলওয়ের ডিজি কাজী মো. রফিকুল আলম জানান, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন আমাদের হাতে এসেছে। তবে আমি সেটি খুলে দেখিনি। তাই বিস্তারিত কিছু বলতে পারছি না। বুধবার রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন প্রতিবেদনসহ আনুষঙ্গিক বিষয়গুলো নিয়ে সাংবাদিকদের বিস্তারিত জানাবেন।

এ ব্যাপারে রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন তদন্ত প্রতিবেদন জমা হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তদন্ত প্রতিবেদন রেলওয়ের ডিজির কাছে জমা হয়েছে। জমা হওয়ার দুদিন পর আমাদের কাছে আসে। তাই তদন্ত প্রতিবেদনে কি রয়েছে? তা বলতে পারবো না।

উল্লেখ্য, দুর্ঘটনার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন ও বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক কাজী মো. রফিকুল আলম। রেলওয়ের পক্ষ থেকে নিহতদের এক লাখ ও আহতদের ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে।

দুর্ঘটনার পরদিন প্রকৌশল বিভাগের দায়িত্বরত ঊর্ধ্বতন উপসহকারী (পথ) জুলহাস উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×