রংপুরের মানুষের ছায়া ছিলেন এরশাদ

  পল্লীনিবাস থেকে রাব্বী হাসান সবুজ, বেরোবি প্রতিনিধি ১৪ জুলাই ২০১৯, ১৭:৩০ | অনলাইন সংস্করণ

রংপুরে নেতাকর্মীদের সঙ্গে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ
রংপুরে নেতাকর্মীদের সঙ্গে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

রংপুরের দর্শনা মোড়ে অবস্থিত জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান, জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ‘পল্লীনিবাস’ অবস্থিত। সেখানে গিয়ে দেখা হলো পল্লীবন্ধুখ্যাত এরশাদের নিজের চাচাতো ভাই শামসুজ্জামান মুকুলের সঙ্গে।

পল্লীনিবাসের একটি কোণে বসে কাঁদছেন। তারপাশে বসে ‘পল্লীবন্ধু’ কথাটি উচ্চারণ করাতেই তিনি এই প্রতিবেদকের হাত ধরে হাউমাউ করে কেঁদে দিলেন।

কাঁদছেন আর ছোট্ট বেলা থেকে পল্লীবন্ধু এরশাদের সঙ্গে তার কাটানো স্মৃতিগুলো প্রতিবেদকের সামনে তুলে ধরলেন।

শামসুজ্জামান মুকুল সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বাবার ছোট ভাইয়ের সব ছোট ছেলে ছিল।

তিনি বলেন, পরিবারের সবার ছোট হওয়ায় হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তাকে খুব আদর ও স্নেহ করতেন। তার পড়াশোনার হাতেখড়ি সাবেক এই রাষ্ট্রপ্রধানের হাত ধরেই। এরশাদের সঙ্গে কাটানো মুহুর্তগুলো তার এখন শেষ সম্বল বলে প্রতিবেদককে জানালেন।

শামসুজ্জামান মুকুল বলেন, আমি উনার (এরশাদ) চাচাতো ভাই বলে যে শুধু আমাকে ভালোবাসতেন তা না পরিবারের সব সদস্যের তিনি নিয়মিত খোঁজ খবর নিতেন। রংপুরে এলে তিনি রংপুরের সবার খোঁজ নেয়ার চেষ্টা করতেন।

তিনি কান্নারত অবস্থায় বলেন, এরশাদ সাহেব ছিলেন রংপুরের প্রদীপ। উনি রংপুরের প্রতিটা মানুষের ছায়া হয়ে ছিলেন। আজ প্রদীপ নিভে গেল। আমরা কার আলোয় আলোকিত হবো এটা ভাবতে পারছি না।

এরশাদ রংপুরে আসলে দিনমজুর থেকে শুরু করে রিকশাচালক, হতদরিদ্র থেকে ধনী সবাই একবার তাকে দেখতে আসতো বলে তিনি জানান।

এরশাদের চাচাতো ভাই শামসুজ্জামান বলেন, ১৯৮৪ সাল থেকে আমি এরশাদ সাহেবের পৈত্রিক ভিটেমাটি দেখাশোনা করছি৷ তিনি সিএমএইচে ভর্তি হওয়ার আগেরদিন আমাকে বললেন শামসুজ্জামান আমার মৃত্যুর আগে থেকে যেমন তুমি পৈতৃক ভিটেমাটি দেখাশোনা করছো আমার মৃত্যুর পরেও এসব দেখাশোনা করতে হবে। তোমার মাধ্যমেই এসব সম্পত্তি রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে।

শামসুজ্জামান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের স্মৃতিচারণ করতে করতে কান্নায় ঢলে পড়েন এক পর্যায়ে। পরে তাকে তার আত্মীয়-স্বজনরা তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যান।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×