গৌরনদীতে ডেঙ্গুজ্বরে গৃহবধূর মৃত্যু

  গৌরনদী প্রতিনিধি ২১ অগাস্ট ২০১৯, ২১:২৪:৩৪ | অনলাইন সংস্করণ

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার পিংলাকাঠি গ্রামে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৪ সন্তানের জননী নাছিমা বেগম (৩৫) নামের এক গৃহবধূ মারা গেছেন।

চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়ার পথিমধ্যে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে তিনি মারা যান।

নাছিমা বেগম পিংলাকাঠি গ্রামের মোল্লার খালপাড় নামক স্থানের আবুল মোল্লার স্ত্রী।

ওই গ্রামে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন সাতজন। তারা পেঁপে পাতার রস খেয়েছেন বলে দাবি করেছেন তারা।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত অবসরপ্রাপ্ত বিজিপি সদস্য ও সাউথ এশিয়ান ক্রাইম ওয়াচ সোসাইটির গৌরনদী উপজেলার সভাপতি সিরাজ ফকির (৫২) বলেন, কোরবানির ঈদের দিনে আমি ও আমার কন্যা অন্তরা ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হই। একই সঙ্গে আমার প্রতিবেশী নাছিমা বেগমসহ (৩৫) আরও ৬ জন ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়।

তিনি বলেন, গৌরনদীতে ডেঙ্গুজ্বরের চিকিৎসা না থাকার কারণে আমি চিন্তিত হয়ে পড়ি। এরপর আমার পুত্র ইঞ্জিনিয়ার মেহেদী হাসান ইন্টারনেটের মাধ্যমে জানতে পারে, পেঁপে পাতার রস খেলে ডেঙ্গুজ্বর ভাল হয়। পুত্রের পরামর্শে আমি ও আমার কন্যা দৈনিক সকাল-বিকাল ও দুপুরে আধা কেজি করে পেঁপে পাতার রস ও ১টি করে প্যারাসিট্যামল ট্যাবলেট খাওয়া শুরু করি। ৭ দিনের মধ্যে তারা ২ জন সম্পূর্ণ সুস্থ হই।

তিনি আরও বলেন, প্রতিবেশী জলিল সরদার (২২), সুমন হাওলাদার (২০), জুরাল ফকির (৩২), ইব্রাহিম সরদার (২২), রেনু বেগম (৪০) ও নাছিমা বেগম (৩৫) কোরবানীর পরদিন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়। তারা ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে যান। কিন্তু সেখানে ডেঙ্গুর চিকিৎসার ব্যবস্থা না থাকায় ওই সব রোগীরা নিরাশ হয়ে বাড়ি ফেরেন।

সিরাজ ফকির বলেন, পরে আমার পরামর্শে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীরা পেঁপে পাতার রস খেয়ে তারা সবাই সম্পূর্ণরূপে সুস্থ হন। তবে ডেঙ্গুতে মারা যাওয়া নাছিমা বেগম (৩৫) পেঁপে পাতার রস খায়নি বলে তিনি জানান।

পেঁপে পাতার রস খেলে ডেঙ্গু ভাল হয় এ বিষয়টি নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বে থাকা ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিপুল বিশ্বাস সাংবাদিকদের জানান, এ ব্যাপারে আমাদের কিছু বলার নেই। চিকিৎসা বিজ্ঞানে নেই, তাই আমরা কাউকে এ ধরনের পরামর্শ দিতে পারি না।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত