চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ফেসবুকে পোস্ট, ফেঁসে গেছেন ২ তরুণী

প্রকাশ : ২৪ আগস্ট ২০১৯, ০২:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

  ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি

ফেসবুকে পোস্ট। প্রতীকী ছবি

সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার গোয়ালাবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিকের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অশ্লীল পোস্ট দেয়ার অভিযোগে ফেঁসে গেছেন দুই তরুণী।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে শুক্রবার দুপুরে উপজেলার গোয়ালাবাজার থেকে অভিযুক্ত দুই তরুণীকে আটক করে পুলিশ।

পুলিশের হাতে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।

শুক্রবার বিকালে ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক বাদী হয়ে দুই তরুণীকে আসামি করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ওসমানীনগর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ১৪ আগস্ট রাতে এক তরুণীর ফেসবুক আইডি থেকে নিজের ও চেয়ারম্যান মানিকের কয়েকটি ছবি দিয়ে মানহানিকর ও অশ্লীল মন্তব্য করে একটি পোস্ট দেয়া হয়। পরে এই পোস্টটি আরও দুটি আইডি থেকে শেয়ার করা হয়।

ফেসবুকের অশ্লীল পোস্টগুলো চেয়ারম্যান মানিকের নজরে পরলে তিনি স্ক্রিন শর্ট নিয়ে ওসমানীনগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এর প্রেক্ষিতে পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত শুরু করলে এক পর্যায়ে দুই তরুণীকে সনাক্ত করে। পরে তাদের আটক করে পুলিশ।

গোয়ালাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক বলেন, আমার সম্মান নষ্ট ও আমাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য একটি কুচক্রিমহল ফেসবুকে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এ ঘটনার সঙ্গে দুই তরুণী ছাড়েও আর যারা জড়িত রয়েছে তাদের খুঁজে বের করার জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি অনুরোধ করছি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসমানীনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এমএম মাইনুদ্দিন বলেন, চেয়ারম্যান মানিকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২ তরুণীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের পর তারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। তদন্তের মাধ্যমে ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।

ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় আটককৃত দুই তরুণীর বিরুদ্ধে ওসমানীনরগর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। এ থানায় এটিই প্রথম ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা।

শনিবার তরুণীদের আদালতে পাঠানো হবে বলে তিনি জানান।