মনিরামপুরে চিরকুট লিখে যুবকের আত্মহত্যা
jugantor
মনিরামপুরে চিরকুট লিখে যুবকের আত্মহত্যা

  মনিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি  

২৬ আগস্ট ২০১৯, ১৪:৩৬:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

মনিরামপুরে চিরকুট লিখে যুবকের আত্মহত্যা
ছবি: যুগান্তর

যশোরের মনিরামপুর উপজেলায় মনিরুজ্জামান মনি (২৮) নামে এক যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় তার পরনের ট্রাউজারের পকেটে একটি চিরকুট পাওয়া যায়।

সোমবার সকালে উপজেলার আধা কিলোমিটার দূরে একটি বাগানের কাঁঠালগাছ থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মনিরুজ্জামান মনির উপজেলার ঘুঘুরাইল গ্রামের মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে। 

উদ্ধারকৃত চিরকুটে মনির লিখেছেন- ‘গাড়ি কেনা, গুরুর কথা অমান্য করা, মোটরসাইকেলের ড্রাইভিং লাইসেন্স না করা, জমি বিক্রি করা, প্রথম বছর বিয়ে না করে যৌবন হারানো, বাড়ির ফার্নিচার তৈরি করা, পাপি পরিচালকের কথা শোনা, পাগলামি করে টাকা খরচ করা, স্বার্থপর না হয়ে এবং ঘরে বসে সময় নষ্ট করা সবই ছিল ভুল।’

এ ব্যাপারে নিহত মনিরুজ্জামানের ভগ্নিপতি সেলিম হোসেন জানান, বছরখানেক আগে বাবার মৃত্যুর পর তিনি বেসরকারি সংস্থার চাকরি ছেড়ে বাড়ি চলে আসেন। এর পর থেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন এবং অসংলগ্ন আচরণ শুরু করেন। এ জন্য তাকে স্নায়ু বিশেষজ্ঞ ডা. ছালিমুন বিশ্বাসের কাছে চিকিৎসা করানো হচ্ছিল।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ইউনুস আলী বলেন, চাকরি ছেড়ে বাড়িতে ফিরে মানসিকভাবে ভেঙে পড়া মনির কারও সঙ্গে না মিশে সবসময় আনমনা হয়ে ঘরে বসে থাকতেন।

রোববার সন্ধ্যায় বাজারে আসার কথা বলে আর রাতে বাড়িতে না ফেরায় তার মা লুৎফুন্নেছা ছেলেকে খুঁজতে থাকেন। পর দিন সোমবার সকালে বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে একটি বাগানের কাঁঠালগাছে ঝুলন্ত তার মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা। 

থানার এসআই জহির রায়হান বলেন, মরদেহের ট্রাউজারের পকেটে একটি চিরকুটে মনির জীবনের নানা ভুলের কথা লিখে গেছেন। 

ধারণা করা হচ্ছে, হতাশা থেকে মনির আত্মহত্যা করেছেন। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মনিরামপুরে চিরকুট লিখে যুবকের আত্মহত্যা

 মনিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি 
২৬ আগস্ট ২০১৯, ০২:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মনিরামপুরে চিরকুট লিখে যুবকের আত্মহত্যা
ছবি: যুগান্তর

যশোরের মনিরামপুর উপজেলায় মনিরুজ্জামান মনি (২৮) নামে এক যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ সময় তার পরনের ট্রাউজারের পকেটে একটি চিরকুট পাওয়া যায়।

সোমবার সকালে উপজেলার আধা কিলোমিটার দূরে একটি বাগানের কাঁঠালগাছ থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মনিরুজ্জামান মনির উপজেলার ঘুঘুরাইল গ্রামের মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে।

উদ্ধারকৃত চিরকুটে মনির লিখেছেন- ‘গাড়ি কেনা, গুরুর কথা অমান্য করা, মোটরসাইকেলের ড্রাইভিং লাইসেন্স না করা, জমি বিক্রি করা, প্রথম বছর বিয়ে না করে যৌবন হারানো, বাড়ির ফার্নিচার তৈরি করা, পাপি পরিচালকের কথা শোনা, পাগলামি করে টাকা খরচ করা, স্বার্থপর না হয়ে এবং ঘরে বসে সময় নষ্ট করা সবই ছিল ভুল।’

এ ব্যাপারে নিহত মনিরুজ্জামানের ভগ্নিপতি সেলিম হোসেন জানান, বছরখানেক আগে বাবার মৃত্যুর পর তিনি বেসরকারি সংস্থার চাকরি ছেড়ে বাড়ি চলে আসেন। এর পর থেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন এবং অসংলগ্ন আচরণ শুরু করেন। এ জন্য তাকে স্নায়ু বিশেষজ্ঞ ডা. ছালিমুন বিশ্বাসের কাছে চিকিৎসা করানো হচ্ছিল।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ইউনুস আলী বলেন, চাকরি ছেড়ে বাড়িতে ফিরে মানসিকভাবে ভেঙে পড়া মনির কারও সঙ্গে না মিশে সবসময় আনমনা হয়ে ঘরে বসে থাকতেন।

রোববার সন্ধ্যায় বাজারে আসার কথা বলে আর রাতে বাড়িতে না ফেরায় তার মা লুৎফুন্নেছা ছেলেকে খুঁজতে থাকেন। পর দিন সোমবার সকালে বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে একটি বাগানের কাঁঠালগাছে ঝুলন্ত তার মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা।

থানার এসআই জহির রায়হান বলেন, মরদেহের ট্রাউজারের পকেটে একটি চিরকুটে মনির জীবনের নানা ভুলের কথা লিখে গেছেন।

ধারণা করা হচ্ছে, হতাশা থেকে মনির আত্মহত্যা করেছেন। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন