সিলেটে গ্রেফতারের ৫ ঘণ্টা পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত
jugantor
সিলেটে গ্রেফতারের ৫ ঘণ্টা পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত

  সিলেট ব্যুরো  

০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৪:৪৪:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

সিলেটে গ্রেফতারের ৫ ঘণ্টা পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত

সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলায় গ্রেফতারের ৫ ঘণ্টা পর পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মিসবাহ উদ্দিন (২৮) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

শনিবার দিবাগত রাত সোয়া ৩টার দিকে উপজেলার শেওলা ব্রিজ এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

পুলিশের দাবি, নিহত মিসবাহ উদ্দিন জকিগঞ্জ উপজেলার শরিফাবাদ গ্রামের আলিম উদ্দিনের ছেলে। তিনি আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য এবং তার বিরুদ্ধে সিলেটের বিভিন্ন থানায় পাঁচটি ডাকাতি, একটি ডাকাতির প্রস্তুতি ও দুটি অস্ত্র মামলা রয়েছে।

বিয়ানীবাজার থানার ওসি অবনী শঙ্কর জানান, বিয়ানীবাজার থানার একটি ডাকাতি মামলায় (১৪নং মামলা, তারিখ-১৯-০৬-১৯) ছয় আসামিকে গ্রেফতার করা হয়।
এর মধ্যে তিনজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানায়- মিছবাহ তাদের সর্দার। সিলেট শহরে থাকা মিছবাহর এক বান্ধবীর মাধ্যমে তিনি ডাকাতির মালামাল বিক্রি করেন। ওই তিনজনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী শনিবার রাত ৮টায় সিলেটের জাফলং থেকে গ্রেফতার করা হয় মিছবাহকে।

এর পর তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ডাকাতিতে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার ও মিছবাহর সহযোগীদের গ্রেফতার অভিযানে রাত ১টায় বের হয় পুলিশ।

শেওলা ব্রিজের পাশে আসলে মিসবাহকে তার সহযোগীরা ছিনিয়ে নেয়ার জন্য পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি করে।

একপর্যায়ে মিসবাহ গুলিবিদ্ধ হলে তাকে উদ্ধার করে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ছাড়া এ ঘটনায় এসআই মিজান, রুমেন, মহসিনসহ ২ কনস্টেবল আহত হb। আহতদের মধ্যে মিজানের অবস্থা গুরুতর।

ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ পাঁচ রাউন্ড গুলিসহ একটি পাইপগান, গ্রিল ও তালা ভাঙার যন্ত্র ও রাম দা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পরে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মিছবাহর মরদেহ সিলেট ওসমানী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি অবনী শঙ্কর।

সিলেটে গ্রেফতারের ৫ ঘণ্টা পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত

 সিলেট ব্যুরো 
০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সিলেটে গ্রেফতারের ৫ ঘণ্টা পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত
ছবি: যুগান্তর

সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলায় গ্রেফতারের ৫ ঘণ্টা পর পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মিসবাহ উদ্দিন (২৮) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

শনিবার দিবাগত রাত সোয়া ৩টার দিকে উপজেলার শেওলা ব্রিজ এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

পুলিশের দাবি, নিহত মিসবাহ উদ্দিন জকিগঞ্জ উপজেলার শরিফাবাদ গ্রামের আলিম উদ্দিনের ছেলে। তিনি আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য এবং তার বিরুদ্ধে সিলেটের বিভিন্ন থানায় পাঁচটি ডাকাতি, একটি ডাকাতির প্রস্তুতি ও দুটি অস্ত্র মামলা রয়েছে।

বিয়ানীবাজার থানার ওসি অবনী শঙ্কর জানান, বিয়ানীবাজার থানার একটি ডাকাতি মামলায় (১৪নং মামলা, তারিখ-১৯-০৬-১৯) ছয় আসামিকে গ্রেফতার করা হয়। 
এর মধ্যে তিনজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানায়- মিছবাহ তাদের সর্দার। সিলেট শহরে থাকা মিছবাহর এক বান্ধবীর মাধ্যমে তিনি ডাকাতির মালামাল বিক্রি করেন। ওই তিনজনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী শনিবার রাত ৮টায় সিলেটের জাফলং থেকে গ্রেফতার করা হয় মিছবাহকে। 

এর পর তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ডাকাতিতে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার ও মিছবাহর সহযোগীদের গ্রেফতার অভিযানে রাত ১টায় বের হয় পুলিশ। 

শেওলা ব্রিজের পাশে আসলে মিসবাহকে তার সহযোগীরা ছিনিয়ে নেয়ার জন্য পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি করে। 

একপর্যায়ে মিসবাহ গুলিবিদ্ধ হলে তাকে উদ্ধার করে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

এ ছাড়া এ ঘটনায় এসআই মিজান, রুমেন, মহসিনসহ ২ কনস্টেবল আহত হb। আহতদের মধ্যে মিজানের অবস্থা গুরুতর। 

ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ পাঁচ রাউন্ড গুলিসহ একটি পাইপগান, গ্রিল ও তালা ভাঙার যন্ত্র ও রাম দা উদ্ধার করেছে পুলিশ। 

পরে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মিছবাহর মরদেহ সিলেট ওসমানী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি অবনী শঙ্কর।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন