মাথা ন্যাড়া করে মধ্যযুগীয় কায়দায় গৃহবধূকে নির্যাতন

  ফরিদপুর ব্যুরো ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:১৭ | অনলাইন সংস্করণ

মাথা ন্যাড়া করে মধ্যযুগীয় কায়দায় গৃহবধূকে নির্যাতন
মাথা ন্যাড়া করে মধ্যযুগীয় কায়দায় ফরিদপুরে গৃহবধূকে নির্যাতন। ছবি: যুগান্তর

ফরিদপুরে বৃষ্টি নামে এক গৃহবধূকে মাথা ন্যাড়া করে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে।

ওই গৃহবধূর মাথা ন্যাড়া করে শরীরের বিভিন্ন অংশে লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করার পর শরীরে দেয়া হয়েছে আগুনের ছ্যাঁকা। পরে মাথা ন্যাড়া অবস্থায় অসুস্থ ওই গৃহবধূকে এলাকার বিভিন্ন স্থানে ঘোরানো হয়।

শনিবার সন্ধ্যায় শহরের রথখোলা এলাকা থেকে গৃহবধূ বৃষ্টিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বৃষ্টি (২৩) উপজেলার রথখোলা এলাকার মিলন সরদারের মেয়ে।

অভিযোগে জানা যায়, ঘটনার পর স্বামী কৌশলে বৃষ্টিকে নিয়ে পালিয়ে শহরের নির্জন একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখেন। বৃষ্টির মায়ের থানায় অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার সন্ধ্যায় শহরের রথখোলা এলাকা থেকে গৃহবধূ বৃষ্টিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় স্বামীকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ।

স্থানীয়রা জানান, গত কয়েক মাস আগে বৃষ্টি বেগমকে বিয়ে করেন আলীপুর এলাকার মাহবুব নামে এক ব্যক্তি। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য বৃষ্টির ওপর নানা নির্যাতন নেমে আসে। নির্যাতনের কারণে স্বামীর ঘর ছেড়ে একপর্যায়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন বৃষ্টি। আর নির্যাতন করবে না বলে কয়েকবার বৃষ্টিকে তার স্বামী নিয়ে যায়।

সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার বৃষ্টির ওপর নির্মম ও ভয়াবহ নির্যাতন চালায় স্বামী মাহবুব। শরীরের বিভিন্ন অংশে দেয়া হয় আগুন দিয়ে ছ্যাঁকা। এ ছাড়া লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করা হয়।

একপর্যায়ে নির্মম নির্যাতন শেষে বৃষ্টিকে এলাকার বিভিন্ন স্থানে ঘোরানো হয়। পরে তাকে ফরিদপুর শহরের নির্জন একটি ঘরে জোরপূর্বক তালাবদ্ধ করে আটকে রাখা হয়। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ বৃষ্টিকে উদ্ধার করে।

বৃষ্টির এমন অবস্থা দেখে তার স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ নির্মম নির্যাতনের জন্য স্বামী মাহবুবের কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন তারা।

গৃহবধূ বৃষ্টি জানান, মাথার চুল কেটে দেয়ার পর তাকে কয়েক দফা লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে পেটানো হয়। স্বামী প্রভাবশালী হওয়ার কারণে এ মারধরের কথা কাউকে বলতে সাহস পাইনি। যদি আমাকে মেরে ফেলে এই ভয়ে।

ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ওসি এএফএম নাসিম জানান, গৃহবধূর ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়েছে। এ ঘটনায় স্বামী মাহবুবকে আটক করা হয়েছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×