সোনারগাঁয়ে যাত্রীবাহী বাস ও লরির সংঘর্ষে নিহত ১০

  স্টাফ রিপোর্টার, সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৪:৫৩ | অনলাইন সংস্করণ

সড়ক দুর্ঘটনা

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনারগাঁ উপজেলার টিপরদী-রতনদী এলাকায় সোমবার দুপুরে যাত্রীবাহী বাস ও লরির মুখোমুখি সংঘর্ষে শিশু ও নারী-পুরুষসহ কমপক্ষে ১০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ২৫ জন বাস যাত্রী।

আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। নিহত ১০ জনের মধ্যে জিয়াসমিন (৩০) নামের এক গার্মেন্টস কর্মীর পরিচয় পাওয়া গেলেও বাকিদের নাম-পরিচয় এখন পর্যন্ত জানা যায়নি।

সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বাস যাত্রীদের উদ্ধারের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে কাঁচপুর হাইওয়ে থানা পুলিশ ও সোনারগাঁ থানা পুলিশের পৃথক দুটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে।

এদিকে সড়ক দুর্ঘটনার পর ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কে টিপরদী এলাকা থেকে দু‘প্রান্তের প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। যানজটের কবলে পড়ে এ সময় শত শত পরিবহন যাত্রী চরম দুর্ভোগ পোহান। প্রায় ২ ঘণ্টা পর মহাসড়ক থেকে দুর্ঘটনাকবলিত বাসটি সরিয়ে নিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে উঠে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী যাত্রীবাসী বাস এমডি ইয়াসিন (ঢাকা মেট্রো ভ-১১-০৮২৬) ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের টিপরদী-রতনদী ক্যান্টাকি গার্মেন্টের সামনে দিয়ে অতিক্রম করছিল। এ সময় ওই যাত্রীবাহী বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের পাশে থামানো একটি লরিকে (ঢাকা-মেট্রো-ঢ-৮১-০২৭৯) পেছন দিক দিয়ে এসে সজোরে ধাক্কা দেয়। এ সময় বাসের এক তৃতীয়াংশ ভেঙে লরির ভেতরে প্রবেশ করে সেটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়।

এ সময় যাত্রীবাহী ওই বাসের ভেতরে থাকা ২ শিশু, ২ নারী ও ৬ জন পুরুষসহ কমপক্ষে ১০ জন নিহত হয়। আহত হয় আরও কমপক্ষে ২৫ জন যাত্রী।

আহতরা হলেন- আলমগীর, নজরুল, মনির, ভাগ্যবতি, অমল কান্তি কর্মকারসহ ২৫ জন। আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। নিহতদের মধ্যে জিয়াসমিন (৩০) নামের এক গার্মেন্টসকর্মী ছাড়া আর কারও পরিচয় পাওয়া যায়নি।

সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আহত বাসযাত্রী আলমগীর হোসেন জানান, কাঁচপুর থেকে কুমিল্লা যাওয়া উদ্দেশে তিনি এমডি ইয়াসিন নামের ওই যাত্রীবাহী বাসটিতে উঠেছিলেন। পথিমধ্যে মহাসড়কের সোনাখালী এলাকায় একটি রিকশাকে ধাক্কা দেয় বাসটি। পরে বাসের চালক নিজেকে বাঁচাতে দ্রুতগতিতে বাস চালানোর সময় উপজেলার রতনদী এলাকায় ধীরে চলমান একটি লরিকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ধাক্কা মারে। এ সময় যাত্রীবাহী বাসটি লরির অনেকটা ভেতরে ঢুকে পড়ে। এ সময় বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। দুর্ঘটনায় আহত প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুল ওয়াহাব জানান, দুর্ঘটনাকবলিত বাসটিতে প্রায় ৫০ জন যাত্রী ছিল। দুর্ঘটনার সময় ঘটনাস্থলে বিকট শব্দ হয়। এ সময় বাসের ভেতরে থাকা যাত্রীরা চিৎকার দিয়ে উঠে।

কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ওসি কাইয়ুম আলী সিকদার জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে তিনি তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান। দুর্ঘটনার পর ঘটনাস্থলেই ৪ জন ও হাসপাতালে নেয়ার পথে আরও ৪ জন নিহত হন। পরে ঢামেকে আরও দুইজনের মৃত্যু হয় বলে জানা যায়। নিহতদের মধ্যে ২ জন শিশু, ২ জন নারী ও ৬ জন পুরুষ। এ সময় আহত হন আরও কমপক্ষে ২৫ জন। আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানান তিনি। এদিকে সড়ক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (অপরাধ) আবুল কালাম সিদ্দিক, হাইওয়ে রেঞ্জের (ডিআইজি) আতিকুল ইসলাম বিপিএম, গাজীপুর রিজিয়নের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম পিপিএম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter