শেরপুরে বিদ্যুৎস্পর্শে ২ নারীর মৃত্যু
jugantor
শেরপুরে বিদ্যুৎস্পর্শে ২ নারীর মৃত্যু

  শেরপুর প্রতিনিধি  

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২০:৩৩:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বিদ্যুৎস্পর্শে নিহত
বিদ্যুৎস্পর্শে নিহত। প্রতীকী ছবি

শেরপুরে পৃথক ঘটনায় বিদ্যুৎস্পর্শে পারভীন বেগম (৩৫) ও হাজেরা বেগম (৭০) নামে ২ নারীর মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও এক নারী। বুধবার ঝিনাইগাতী ও শ্রীবরদী উপজেলার পৃথক পৃথক স্থানে এই ঘটনা ঘটে। 

জানা যায়, ঝিনাইগাতী উপজেলার নলকুড়া ইউনিয়নের গজারীপাড়া গ্রামের জাহেদ আলীর স্ত্রী পারভীন বেগম বুধবার বেলা ১১টার দিকে তার নিজ ঘরের ফ্যানের সুইচ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হন। 

পরে আহত পারভীনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরএমও ডা. অহিদ ইকবাল তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে শ্রীবরদী উপজেলার বকচর গ্রামের মৃত আশকর আলীর স্ত্রী হাজেরা বেগম বুধবার দুপুরে তার বসতঘরের বিদ্যুতের তারে আগুন দেখে সুইচ বন্ধ করতে গেলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। ওই সময় তার পুত্রবধূ লাভলী বেগম তাকে বিদ্যুতের সুইচ থেকে সরাতে গেলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পড়েন। 

এতে দুজনই গুরুতর আহত হলে বাড়ির লোকজন তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হাজেরা বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন এবং গুরুতর অবস্থায় লাভলী বেগমকে জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করেন। 

আহত লাভলী বেগমের স্বামী শাহ আলী জানান, তার স্ত্রীর অবস্থাও আশংকাজনক। তাকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঝিনাইগাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক  ও শ্রীবরদী থানার ওসি মোহাম্মদ রুহুল আমিন তালুকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

শেরপুরে বিদ্যুৎস্পর্শে ২ নারীর মৃত্যু

 শেরপুর প্রতিনিধি 
১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বিদ্যুৎস্পর্শে নিহত
বিদ্যুৎস্পর্শে নিহত। প্রতীকী ছবি

শেরপুরে পৃথক ঘটনায় বিদ্যুৎস্পর্শে পারভীন বেগম (৩৫) ও হাজেরা বেগম (৭০) নামে ২ নারীর মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও এক নারী। বুধবার ঝিনাইগাতী ও শ্রীবরদী উপজেলার পৃথক পৃথক স্থানে এই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ঝিনাইগাতী উপজেলার নলকুড়া ইউনিয়নের গজারীপাড়া গ্রামের জাহেদ আলীর স্ত্রী পারভীন বেগম বুধবার বেলা ১১টার দিকে তার নিজ ঘরের ফ্যানের সুইচ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হন।

পরে আহত পারভীনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আরএমও ডা. অহিদ ইকবাল তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে শ্রীবরদী উপজেলার বকচর গ্রামের মৃত আশকর আলীর স্ত্রী হাজেরা বেগম বুধবার দুপুরে তার বসতঘরের বিদ্যুতের তারে আগুন দেখে সুইচ বন্ধ করতে গেলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। ওই সময় তার পুত্রবধূ লাভলী বেগম তাকে বিদ্যুতের সুইচ থেকে সরাতে গেলে তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পড়েন।

এতে দুজনই গুরুতর আহত হলে বাড়ির লোকজন তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হাজেরা বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন এবং গুরুতর অবস্থায় লাভলী বেগমকে জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করেন।

আহত লাভলী বেগমের স্বামী শাহ আলী জানান, তার স্ত্রীর অবস্থাও আশংকাজনক। তাকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঝিনাইগাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক ও শ্রীবরদী থানার ওসি মোহাম্মদ রুহুল আমিন তালুকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।