পুলিশকে ধাক্কা মেরে হাজত থেকে আসামি চম্পট!
jugantor
পুলিশকে ধাক্কা মেরে হাজত থেকে আসামি চম্পট!

  পিরোজপুর প্রতিনিধি  

১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৪:৪৬:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

পুলিশকে ধাক্কা মেরে হাজত থেকে আসামি চম্পট!
ছবি: যুগান্তর

পিরোজপুর সদর থানার হাজত থেকে পুলিশকে ধাক্কা মেরে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন এক আসামি পালিয়ে গেছে। তার নাম সালমান খান (২৪)।
          
বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে সদর থানা থেকে ওই আসামি পালিয়ে যায়। 

সালমান খান সদর উপজেলার কলাখালী গ্রামের দুলাল খানের ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাদক ও নারী নির্যাতনসহ অন্তত চারটি নিয়মিত মামলা রুজু রয়েছে। এ ছাড়া তিনি হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি।

সদর থানাসূত্র জানায়, সদর উপজেলার কলাখালী যুবলীগকর্মী জয় হত্যা মামলায় সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মুনিরুজ্জামান বুধবার সালমানকে গ্রেফতার করেন।

বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে আসামি পানিপান করতে চাইলে দায়িত্বরত সেন্ট্রি (কনস্টেবল) হাজতখানার দরজা খোলেন। 

এ সময় আসামি সালমান তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় এবং একপর্যায় হাজতখানার দরজা থেকে বের হয়ে দৌড়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এ সময় কনস্টেবল মাটিতে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হন। 

ধাওয়া করলে আসামি থানার উত্তর দিকে দামুদর খালে ঝাঁপ দিয়ে গা ঢাকা দেয়। 

সদর থানার ওসি নুরুল ইসলাম বাদল জানান, সকালে পুলিশ কর্মকর্তা ও কর্মচারীর উপস্থিতি কম থাকার সুযোগে আসামি পালিয়ে গেছে। এ ঘটনার পর থেকে পিরোজপুর সদর ও উপজেলাসমূহে পুলিশের তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে।

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও তদন্ত) মোল্লা আজাদ হোসেন সদর থানা পরিদর্শন করেছেন। 

এ সময় তিনি জানান, পলাতককে গ্রেফতারে পুলিশের ব্যাপক অভিযান শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় কারও অবহেলা পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পুলিশকে ধাক্কা মেরে হাজত থেকে আসামি চম্পট!

 পিরোজপুর প্রতিনিধি 
১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পুলিশকে ধাক্কা মেরে হাজত থেকে আসামি চম্পট!
ছবি: যুগান্তর

পিরোজপুর সদর থানার হাজত থেকে পুলিশকে ধাক্কা মেরে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন এক আসামি পালিয়ে গেছে। তার নাম সালমান খান (২৪)।

বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে সদর থানা থেকে ওই আসামি পালিয়ে যায়।

সালমান খান সদর উপজেলার কলাখালী গ্রামের দুলাল খানের ছেলে। তার বিরুদ্ধে মাদক ও নারী নির্যাতনসহ অন্তত চারটি নিয়মিত মামলা রুজু রয়েছে। এ ছাড়া তিনি হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি।

সদর থানাসূত্র জানায়, সদর উপজেলার কলাখালী যুবলীগকর্মী জয় হত্যা মামলায় সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মুনিরুজ্জামান বুধবার সালমানকে গ্রেফতার করেন।

বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে আসামি পানিপান করতে চাইলে দায়িত্বরত সেন্ট্রি (কনস্টেবল) হাজতখানার দরজা খোলেন।

এ সময় আসামি সালমান তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় এবং একপর্যায় হাজতখানার দরজা থেকে বের হয়ে দৌড়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এ সময় কনস্টেবল মাটিতে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হন।

ধাওয়া করলে আসামি থানার উত্তর দিকে দামুদর খালে ঝাঁপ দিয়ে গা ঢাকা দেয়।

সদর থানার ওসি নুরুল ইসলাম বাদল জানান, সকালে পুলিশ কর্মকর্তা ও কর্মচারীর উপস্থিতি কম থাকার সুযোগে আসামি পালিয়ে গেছে। এ ঘটনার পর থেকে পিরোজপুর সদর ও উপজেলাসমূহে পুলিশের তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে।

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও তদন্ত) মোল্লা আজাদ হোসেন সদর থানা পরিদর্শন করেছেন।

এ সময় তিনি জানান, পলাতককে গ্রেফতারে পুলিশের ব্যাপক অভিযান শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় কারও অবহেলা পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।