নারী আইনজীবীকে পেটানো নিয়ে সেই উপজেলা চেয়ারম্যানের বক্তব্য

  গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:৪৭ | অনলাইন সংস্করণ

উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন শাহ
উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন শাহ। ফাইল ছবি

নারী আইনজীবীকে পেটানোর সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন শাহ।

শুক্রবার উপজেলা পরিষদে নিজ কার্যালয়ে তার বিরুদ্ধে যুগান্তর অনলাইনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন তিনি।

লিখিত বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, বৃহস্পতিবার দৈনিক যুগান্তর অনলাইন সংস্করণে ‘ভিপি নুরের পর এবার নারী আইনজীবীকে পেটালেন সেই উপজেলা চেয়ারম্যান’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

যেসব তথ্য দিয়ে সংবাদটি প্রকাশ করা হয়েছে তা সঠিক নয়। তিনি ওই সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন শাহ বলেন, বৃহস্পতিবার উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মৎস্য চাষি আবদুল লতিফ হাওলাদারের একটি মাছের ঘেরে পূর্ব শত্রুতার জেরে বিষ প্রয়োগ করে লাখ লাখ টাকার মাছ মেরে ফেলেছে। ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্য চাষি কয়েক বস্তা মরা মাছ নিয়ে দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে নিয়ে এসে উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে বিচার চান।

তিনি জানান, বিষয়টি শুনে উপজেলা প্রশাসন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়ার পরামর্শ দিয়ে কর্মকর্তারা নিজ নিজ কার্যালয়ে চলে যান।

উপজেলা চেয়ারম্যান দাবি করেন, এ ঘটনার কিছুক্ষণ পর চেয়ারম্যান দুলাল চৌধুরীর পুত্রবধূ নারী আইনজীবী উম্মে আসমা আঁখি উপজেলা পরিষদ চত্বরে পৌঁছে মৎস্য চাষি আবদুল লতিফ হাওলাদার ও তার ছেলে মাকসুদুল্লাহকে গালমন্দ করে ও নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখায়। এক পর্যায়ে ডাক-চিৎকার শুনে তিনি তার কার্যালয়ের দোতলা থেকে নিচে নেমে আঁখিকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেন এবং ঘটনাস্থল থেকে চলে যেতে বলেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন শাহ আরও বলেন, আঁখি ক্ষিপ্ত হয়ে আমার সঙ্গে তর্কাতর্কি করেন। এ সময় এক নারী সাংবাদিক লিয়া আক্তার আইনজীবী আঁখিকে ঘটনাস্থল থেকে টেনে নিয়ে যান।

এ সময় ক্ষতিগ্রস্ত মাছ চাষি আবদুল লতিফ হাওলাদার ও তার ছেলে মাকসুদুল্লাহ কান্নায় ভেঙে পড়েন এবং সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে বলেন, চেয়ারম্যান দুলাল চৌধুরী ও তার ছেলে রাসেল চৌধুরীর প্রশ্রয়ে সন্ত্রাসী সেলিম, সাহিন, আশরাফ, সামসু, মিলন, মান্নান ও ফেরদাউস মাছ এবং সবজীসহ প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি করে। আমরা থানায় মামলা করি। এরপর রাসেল চৌধুরী মোবাইল ফোনে অমাদের হাত পা ভেঙ্গে খুন করার হুমকি দেয়।

এ ঘটনায় মাকসুদুল্লা রাসেল চৌধুরী ও উম্মে আসমা আঁখির সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায় নি।

এদিকে একই দিনে উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন নারী আইনজীবী আঁখি।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×