নড়াইলে স্কুলছাত্রের চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ
jugantor
নড়াইলে স্কুলছাত্রের চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ

  নড়াইল প্রতিনিধি  

১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৪:৫৭:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নড়াইলে শিক্ষার্থীর চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ

নড়াইলে অমানবিক নির্যাতন করে এক স্কুলছাত্রের চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী প্রভাত সরকারের বিরুদ্ধে। আহত শিক্ষার্থীর নাম সিমান বিশ্বাস(১০)।

রোববার রাতে নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া ইউনিয়নের কোড়গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নির্যাতিত ৪র্থ শ্রেণি ছাত্র সিমান কোড়গ্রামের টুটুল বিশ্বাসের ছেলে।

অভিযুক্ত প্রভাত সরকার সাতঘরিয়া গ্রামের পরিমলের ছেলে। তিনি নড়াইলের দোভোগ বাজারে স্বর্ণের ব্যবসা করেন। এ ঘটনার পর প্রভাত পলাতক রয়েছেন।

সিমানের পরিবারের অভিযোগ, সিয়ামের বাড়ির সামনের রাস্তায় জ্বালানি পাটকড়ি শুকাতে দেয়া ছিল।রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে পাটকড়ি তুলছিল সে। এ সময় প্রতিবেশী একই গ্রামের প্রভাত সরকার এসে রাস্তা ময়লা করছিস বলে বাঁশ দিয়ে বেধড়ক মারপিট শুরু করে।

একপর্যায়ে চোখের ভেতর বাঁশের মাথা দিয়ে চাপ মারলে চোখ উপড়ে যায় শিশুটির। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল নিয়ে যায়। হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওযায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

এদিকে এ ঘটনায় এলাকাবাসী ও তার পরিবার দোষীর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন।

বর্তমানে শিশুটি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

নড়াইল সদর থানার ওসি মো. ইলিয়াছ হোসেন জানান, ঘটনা আমি শুনেছি, মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নড়াইলে স্কুলছাত্রের চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ

 নড়াইল প্রতিনিধি 
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নড়াইলে শিক্ষার্থীর চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ
নড়াইলে আহত শিশু শিক্ষার্থী সিমান বিশ্বাস। ছবি: যুগান্তর

নড়াইলে অমানবিক নির্যাতন করে এক স্কুলছাত্রের চোখ উপড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী প্রভাত সরকারের বিরুদ্ধে। আহত শিক্ষার্থীর নাম সিমান বিশ্বাস(১০)। 

রোববার রাতে নড়াইল সদর উপজেলার মুলিয়া ইউনিয়নের কোড়গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

নির্যাতিত ৪র্থ শ্রেণি ছাত্র সিমান কোড়গ্রামের টুটুল বিশ্বাসের ছেলে।  

অভিযুক্ত প্রভাত সরকার সাতঘরিয়া গ্রামের পরিমলের ছেলে। তিনি নড়াইলের দোভোগ বাজারে স্বর্ণের ব্যবসা করেন। এ ঘটনার পর প্রভাত পলাতক রয়েছেন।

সিমানের পরিবারের অভিযোগ, সিয়ামের বাড়ির সামনের রাস্তায় জ্বালানি পাটকড়ি শুকাতে দেয়া ছিল। রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে পাটকড়ি তুলছিল সে। এ সময় প্রতিবেশী একই গ্রামের প্রভাত সরকার এসে রাস্তা ময়লা করছিস বলে বাঁশ দিয়ে বেধড়ক মারপিট শুরু করে। 

একপর্যায়ে চোখের ভেতর বাঁশের মাথা দিয়ে চাপ মারলে চোখ উপড়ে যায় শিশুটির। তার  চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল নিয়ে যায়। হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওযায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। 

এদিকে এ ঘটনায় এলাকাবাসী ও তার পরিবার দোষীর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন।  

বর্তমানে শিশুটি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। 

নড়াইল সদর থানার ওসি মো. ইলিয়াছ হোসেন জানান, ঘটনা আমি শুনেছি, মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন