কিশোরীর সঙ্গে একী নিষ্ঠুরতা

  ঝালকাঠি প্রতিনিধি ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:৩১ | অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণ

ঝালকাঠির সদর উপজেলার মহদীপুর গ্রামের ১৩ বছরের এক কিশোরী ছেলে সন্তানের জন্ম দিয়েছে। বুধবার ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে সে ওই সন্তানের জন্ম দেয়। বর্তমানে সে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের গাইনি বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

তার গর্ভধারিণী মা এবং সৎ বাবা ওই কিশোরীকে বিভিন্ন জনের সঙ্গে দেহ ব্যবসায় বাধ্য করে। এখন ওই সন্তানের বাবা কে সে কথা জানে না ওই কিশোরী।

এর আগে ১০ সেপ্টেম্বর ঝালকাঠি থানায় শিশু আইনের ৭৮(১) ধারায় একটি মামলা দায়ের করে ওই কিশোরী। পরে পুলিশ তার মা ও সৎ বাবাকে গ্রেফতার করেছে। এরা দু'জনই বর্তমানে কারাগারে আটক রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে,, ঝালকাঠি সদর উপজেলার মহদীপুর গ্রামে ওই কিশোরীর বাবার সঙ্গে তার মায়ের তালাক হয়। এরপর ২০১৪ সালে ওই কিশোরীর মা শহরের কালীবাড়ি সড়কের এক টেলিভিশন মেকানিককে বিয়ে করে। এরপর ওই কিশোরী তাদের সঙ্গেই থাকত।

মেয়েটি যখন ৫ম শ্রেণিতে পড়ে, তখন থেকেই তাকে জোর করে মা ও সৎ বাবা অন্য পুরুষের সঙ্গে অনৈতিক কাজে বাধ্য করত। বর্তমানে ওই কিশোরী ঝালকাঠি উদ্বোধন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। এরপর ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।

পরে খবর পেয়ে ১০ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে পুলিশ ওই বাড়ি থেকে কিশোরীকে উদ্ধার করে ঝালকাঠি থানায় নিয়ে আসে। ওইরাতেই শহরের কালীবাড়ি সড়কে অভিযান চালিয়ে কিশোরীর মা ও সৎ বাবাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ওই কিশোরীর বলে, আমাকে জোর করে এ কাজে বাধ্য করা হয়েছে। আমার মা ও সৎ বাবা অন্য পুরুষ ঘরের ভেতরে ঢুকিয়ে দিয়ে বাইরে পাহারা দিত। আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে এ ধরনের কাজ করা হয়েছে। এ ঘটনা কাউকে না বলার জন্য আমাকে ভয়-ভীতি দেখানো হতো।

সে বলে, শুধু অন্য পুরুষ নয়, আমার সৎ বাবাও প্রায়ই আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতেন।

ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স নাজনিন বেগম বলেন, ওই কিশোরীর প্রসব বেদনা শুরু হলে বুধবার সকালে ঝালকাঠি হাসপাতালে আসে ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার আগেই জরুরি বিভাগে সে স্বাভাবিকভাবে একটি ছেলে সন্তান প্রসব করে। এরপর তাকে গাইনি ওয়ার্ডে আনা হয়। অপরিণত বয়সে মা হওয়ায় সে কিছুটা অসুস্থ।

ঝালকাঠি থানার ওসি মো. আবু তাহের বলেন, কিশোরির অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা মামলা নিয়ে তার মা ও সৎ বাবাকে গ্রেফতার করেছি। কিশোরির জন্ম দেয়া সন্তানের পিতৃপরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য নবজাতক এবং কিশোরীর সৎ বাবার শরীর থেকে নমুনা নিয়ে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ঢাকা সিআইডিতে পাঠানো হয়েছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×