মাকে বাঁচাতে গিয়ে মামীর কেচিতে প্রাণ গেল নিপার

প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:৪৫ | অনলাইন সংস্করণ

  সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি

নিপার মৃত্যুতে স্বজনদের আহাজারি

মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান উপজেলায় মাকে বাঁচাতে গিয়ে মামীর কেচির আঘাতে আহত নিপা আক্তার (১৭) মারা গেছেন।

ঢাকা ধানমনণ্ডি জেনারেল অ্যান্ড কিডনি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার ভোররাত পৌনে ৪টায় তার মৃত্যু হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নিহতের বাবা দিন ইসলাম বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেছেন।

নিহত নিপা আক্তার মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার মধ্যপাড়া গ্রামের ফার্নিচার মিস্তিরি দীন ইসলামের মেয়ে। নিপা মধ্যপাড়া আরএম দাখিল মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষার্থী ছিলেন।

ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহতের স্বজন সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে পূর্ব শক্রতার জের ধরে মুরগির খাঁচার জালের বেড়া ছেঁড়াকে কেন্দ্র করে রুমেলা বেগম রুমাকে চুল ধরে মারতে থাকেন তার ভাইয়ের স্ত্রী রহিমা আক্তার। নিপা তার মা রুমেলা বেগম রুমাকে বাঁচাতে যায়।

এ সময় মামী রহিমা আক্তার সম্পা ভাগ্নি নিপাকে পেটের মধ্যে কেচি দিয়ে আঘাত করেন। গুরুতর জখম নিপা আক্তারকে স্থানীয় লোকজন শক্রবার সকাল ৯টার সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

কোনো কিছু না বুঝে নিপার বাবা দিন ইসলাম মেয়েকে ঢাকায় না নিয়ে বাসায় ফিরিয়ে নিয়ে যান। বাসায় যাওয়ার পর নিপার অবস্থার অবনতি হলে শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টার ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

নিপার অবস্থার আরও অবনতি হলে তাকে ঢাকা ধানমণ্ডি জেনারেল অ্যান্ড কিডনি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার ভোররাত পৌনে ৪টার দিকে তার  মৃত্যু হয়।

এ ব্যাপারে সিরাজদিখান থানার ওসি মো. ফরিদউদ্দিন জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে নিপাকে কেচি দিয়ে আঘাত করা হয়। এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার দুপুরে নিহতের বাবা দিন ইসলাম বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেছেন। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।