কমিউনিটি ক্লিনিকে ঢুকে কর্মীর হাত-পা ভেঙে দিল দুর্বৃত্তরা

  আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:৪০ | অনলাইন সংস্করণ

কমিউনিটি ক্লিনিকে ঢুকে কর্মীর হাত-পা ভেঙে দিল দুর্বৃত্তরা
কমিউনিটি ক্লিনিকে ঢুকে কর্মীর হাত-পা ভেঙে দিল দুর্বৃত্তরা

বরগুনার আমতলী উপজেলার ইসলামপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে ঢুকে হাতুড়িপেটা করে হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার মো. আবুল কালাম আজাদের (৩০) হাত-পা ভেঙ্গে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনার পর মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে নিয়ে যায় স্থানীয়রা।

সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন।

আবুল কালাম আজাদ ছোট নীলগঞ্জ গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য কাঞ্চন আলী মৃধার ছেলে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আমতলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের ইসলামপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার মো. আবুল কালাম আজাদ ক্লিনিকে বসে অফিসিয়াল কাজ করছিলেন। এ সময় কালাম নামে এক লোক এসে আকস্মিক তার জামার কলার ধরে তাকে ক্লিনিকের বাহিরে আনার চেষ্টা করেন।

পরে কালামকে ধাক্কা মেরে ক্লিনিকের বাহিরে ফেলে দিয়ে দরজা আটকিয়ে দেন মো. আবুল কালাম আজাদ। এরপর কালাম ১৫-২০ জনকে সঙ্গে নিয়ে ক্লিনিকের জানালার গ্রিল ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার আবুল কালাম আজাদকে বেধরক হাতুড়িপেটা করে ডান পা এবং ডান হাত ভেঙ্গে দেয়।

এ সময় আবুল কালাম আজাদের চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

আমতলী হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. ইমদাদুল হক চৌধুরী বলেন, আবুল কালাম আজাদের হাত ও পায়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

আহত সিএইচসিপি আবুল কালাম আজাদ জানান, আমার ছোট চাচা জাহিদুল ইসলাম মিঠু মৃধা সদ্য সমাপ্ত ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। সে সময় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মোতাহার উদ্দিন মৃধার ছোট ভাই জহিরুল ইসলাম খোকন মৃধা সংঘর্ষে আহত হন। এ ঘটনার জের ধরে বৃহস্পতিবার জহিরুল ইসলাম খোকন মৃধার নেতৃত্বে একদল লোক নিয়ে আমার ওপর হামলা করে এবং হাতুড়িপেটা করে হাত-পা ভেঙ্গে দেয়।

অভিযুক্ত জহিরুল ইসলাম খোকন মৃধা জানান, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না। কে বা কারা ঘটনা ঘটিয়েছে তদন্ত করলে তা বেড়িয়ে আসবে।

আমতলী থানার ওসি মো. আবুল বাশার জানান, ঘটনা শুনেছি। এখনও কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×