মহম্মদপুরে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৪ জন হাসপাতালে
jugantor
মহম্মদপুরে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৪ জন হাসপাতালে

  মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি  

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২৩:০৭:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

মহম্মদপুরে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৪ জন হাসপাতালে

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার ভবানিপুর গ্রামে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ ৪ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। গুরুতর অবস্থায় তাদের মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

তারা হলেন- উপজেলার ভবানিপুর গ্রামের আক্তার মোল্যার ছেলে সামাদ মোল্যা (২৯), মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা পূর্ণিমা (১৯), সামাদ মোল্যার স্ত্রী তাহেরা বেগম (২৭) ও সামাদের ছেলে মহব্বত উল্লাহ (৫)।

চিকিৎসারত সামাদ মোল্যা বলেন, শনিবার বিকালে উপজেলার ঝামা বাজার থেকে পাঙ্গাশ মাছ ক্রয় করে বাড়িতে নিয়ে যাই। রাতে রান্নার পর মাছ খেয়ে আমার স্ত্রী, শিশু ছেলে, বোন এবং আমি অসুস্থ হয়ে পড়ি। পেটব্যথা ও বমি শুরু হয়। গুরুতর অবস্থায় রোববার দুপুরে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সবাই ভর্তি হই।

কর্তব্যরত চিকিৎসক কাজী আবু আহসান বলেন, ধারণা করা হচ্ছে পাঙ্গাশ মাছের মধ্যে কোনো টক্সিন থাকার কারণে এ রকম হয়েছে।

মহম্মদপুরে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৪ জন হাসপাতালে

 মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি 
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মহম্মদপুরে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৪ জন হাসপাতালে
মহম্মদপুরে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৪ জন হাসপাতালে

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার ভবানিপুর গ্রামে পাঙ্গাশ মাছ খেয়ে অন্তঃসত্ত্বা নারীসহ ৪ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। গুরুতর অবস্থায় তাদের মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

তারা হলেন- উপজেলার ভবানিপুর গ্রামের আক্তার মোল্যার ছেলে সামাদ মোল্যা (২৯), মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা পূর্ণিমা (১৯), সামাদ মোল্যার স্ত্রী তাহেরা বেগম (২৭) ও সামাদের ছেলে মহব্বত উল্লাহ (৫)। 

চিকিৎসারত সামাদ মোল্যা বলেন, শনিবার বিকালে উপজেলার ঝামা বাজার থেকে পাঙ্গাশ মাছ ক্রয় করে বাড়িতে নিয়ে যাই। রাতে রান্নার পর মাছ খেয়ে আমার স্ত্রী, শিশু ছেলে, বোন এবং আমি অসুস্থ হয়ে পড়ি। পেটব্যথা ও বমি শুরু হয়। গুরুতর অবস্থায় রোববার দুপুরে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সবাই ভর্তি হই। 

কর্তব্যরত চিকিৎসক কাজী আবু আহসান বলেন, ধারণা করা হচ্ছে পাঙ্গাশ মাছের মধ্যে কোনো টক্সিন থাকার কারণে এ রকম হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন