এনজিওর ম্যানেজারকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল ৭ জন
jugantor
এনজিওর ম্যানেজারকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল ৭ জন

  কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:৫৪:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলায় একটি বেসরকারি সংস্থার ব্রাঞ্চ ম্যানেজার সাব্বির খানের মোটরসাইকেলের সিটের নিচে বিশেষ কায়দায় রাখা ১৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকালে কাউনিয়া বাসস্ট্যান্ডে রাখা ওই মোটরসাইকেল থেকে ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে আলোচনার ঝড় বইতে থাকে এলাকার চায়ের দোকান, হাট-বাজারে।

এরপর পুলিশ বিচক্ষণতার সঙ্গে নেমে পড়ে বিষয়টির তথ্য উদ্ধারে। পুলিশকে ফোন করে ইয়াবা ট্যাবলেটের সন্ধানদাতা শহিদুল্লাহ কাওসার মজনুকে প্রথমে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসলে আসল ঘটনা বেড়িয়ে আসতে থাকে।

মজনুর বরাত দিয়ে পুলিশ সূত্র জানায়, এনজিওর ওই ম্যানেজারের সঙ্গে তার স্ট্যাফদের অফিসিয়াল বিষয়ে কিছুদিন থেকে বনিবনা হচ্ছিল না। তাই ম্যানেজারকে ফাঁসাতে অফিসের কয়েকজন মিলে ম্যানেজারের মোটরসাইকেলের সিটের নিচে ১৫টি ইয়াবা রেখে পুলিশকে ফোন সংবাদ দেয়।

কিন্তু বিধি বাম। পুলিশের বিচক্ষণতায় ম্যানেজারকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল স্টাফরা। এ ঘটনায় ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হল- কুড়িগ্রাম ফুলবাড়ী উপজেলার রেফাজুল ইসলাম, বগুড়া জেলার কালাইহাটা এলাকার শামীম হোসেন, ধুনটের বগুড়া এলাকার রাশেদুল ইসলাম, বগুড়া জেলার নাজমুল হাসান, জাকির হোসেন, গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাহপুর উপজেলার শামসুজ্জামান ভুঁইয়া।

এ বিষয়ে কাউনিয়া থানার ওসি আজিজুল ইসলাম জানান, সাব্বির খানকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এবং মামলা রুজু করে আটকৃতদের গত বুধবার জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এনজিওর ম্যানেজারকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল ৭ জন

 কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলায় একটি বেসরকারি সংস্থার ব্রাঞ্চ ম্যানেজার সাব্বির খানের মোটরসাইকেলের সিটের নিচে বিশেষ কায়দায় রাখা ১৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকালে কাউনিয়া বাসস্ট্যান্ডে রাখা ওই মোটরসাইকেল থেকে ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে আলোচনার ঝড় বইতে থাকে এলাকার চায়ের দোকান, হাট-বাজারে।

এরপর পুলিশ বিচক্ষণতার সঙ্গে নেমে পড়ে বিষয়টির তথ্য উদ্ধারে। পুলিশকে ফোন করে ইয়াবা ট্যাবলেটের সন্ধানদাতা শহিদুল্লাহ কাওসার মজনুকে প্রথমে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসলে আসল  ঘটনা বেড়িয়ে আসতে থাকে।

মজনুর বরাত দিয়ে পুলিশ সূত্র জানায়, এনজিওর ওই ম্যানেজারের সঙ্গে তার স্ট্যাফদের অফিসিয়াল বিষয়ে কিছুদিন থেকে বনিবনা হচ্ছিল না। তাই ম্যানেজারকে ফাঁসাতে অফিসের কয়েকজন মিলে ম্যানেজারের মোটরসাইকেলের সিটের নিচে ১৫টি ইয়াবা রেখে পুলিশকে ফোন সংবাদ দেয়।

কিন্তু বিধি বাম। পুলিশের বিচক্ষণতায় ম্যানেজারকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল স্টাফরা। এ ঘটনায় ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হল- কুড়িগ্রাম ফুলবাড়ী উপজেলার রেফাজুল ইসলাম, বগুড়া জেলার কালাইহাটা এলাকার শামীম হোসেন, ধুনটের বগুড়া এলাকার রাশেদুল ইসলাম, বগুড়া জেলার নাজমুল হাসান, জাকির হোসেন, গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাহপুর উপজেলার শামসুজ্জামান ভুঁইয়া।

এ বিষয়ে কাউনিয়া থানার ওসি আজিজুল ইসলাম জানান, সাব্বির খানকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এবং মামলা রুজু করে আটকৃতদের গত বুধবার জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন