মুক্তিযোদ্ধা বাবার কবর দখল করে কাস্টমস কর্মকর্তা ছেলের কাণ্ড!

  বগুড়া ব্যুরো ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ১৬:২৩ | অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ায় মুক্তিযোদ্ধা বাবার কবরের ওপর টয়লেট নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে তারই কাস্টমস কর্মকর্তা ছেলের বিরুদ্ধে। ছবি-যুগান্তর
বগুড়ায় মুক্তিযোদ্ধা বাবার কবরের ওপর টয়লেট নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে তারই কাস্টমস কর্মকর্তা ছেলের বিরুদ্ধে। ছবি-যুগান্তর

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা বাবার কবরের ওপর টয়লেট নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে তারই কাস্টমস কর্মকর্তা ছেলের বিরুদ্ধে।

তবে খবর পেয়ে স্থানীয়রা টয়লেটটি ভেঙে দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, উপজেলার বারুনিঘাট এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সাত্তারের মৃত্যুর দুই বছরের তার মাথায় কবর দখল করে তার ছেলে কাস্টমস ইন্সপেক্টর আবদুর রউফ খান টয়লেট নির্মাণ করেন।

তবে কবর দখল করে প্রাচীর তুললেও রোববার বিকালে স্থানীয় জনগণ ও মুক্তিযোদ্ধারা তা ভেঙে দিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সাত্তার গত ২০১৭ সালের মারা যান। মৃত্যুর পর তার কবর বাদে ১২ শতক জমি দুই ছেলে ও দুই মেয়ে ভাগ বাটোয়ারা করে নেন।

মুক্তিযোদ্ধার কোটায় তার দুই ছেলে ও এক মেয়ে সরকারি চাকরিও লাভ করেন। তাদের মধ্যে কাস্টমস ইন্সপেক্টর আবদুর রউফ খান বর্তমানে বগুড়ায় কর্মরত।

বড় ছেলে স্থানীয় কাবাষট্টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আসাদ খান মুনির অভিযোগ করেন, তার বাবার মৃত্যুর দুই বছর পার না হতেই ছোট ভাই আবদুর রউফ খান কবর দখল করেন। সেখানে তিনি সেখানে টয়লেট নির্মাণ করছেন। তিনি বাধা দেয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন।

এরপর বাবার কবর রক্ষায় মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা চান আসাদ খান। বাবার সহযোদ্ধারা ঘটনাস্থলে এসে অমানবিক ঘটনাটি দেখে শাজাহানপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানান।

গতকাল বিকাল ৫টার দিকে মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয় মুরুব্বিরা এসে কবরের ওপর তোলা প্রাচীর ভেঙে দেন।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা হযরত আলী যুগান্তরকে জানান, একজন মুক্তিযোদ্ধার কবর সংরক্ষণের পরিবর্তে তারই জায়গায় তার কবর দখলের চেষ্টা খুবই ঘৃণিত কাজ।

এ ব্যাপারে কাস্টমস ইন্সপেক্টর আব্দুর রউফ খান যুগান্তরকে জানান, তিনি তার বাবার মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় চাকরি লাভ করেননি। এছাড়া জায়গাটা পৈতৃক সূত্রে পেয়েছেন।

তিনি দাবি করেন, বাবার কবর দখল করে কিছু করছেন না। মুরুব্বি ও মুক্তিযোদ্ধারা এসে সমস্যার সমাধান করে দিয়েছেন। বাবার কবর আগের মতই আছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×