১৪ দলের মিটিং ডেকে মেননের বক্তব্যের জবাব নেয়া হবে: নাসিম

  সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ২০ অক্টোবর ২০১৯, ২২:০২ | অনলাইন সংস্করণ

মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কার্যক্রমের সূচনা বক্তব্য দেন মোহাম্মদ নাসিম
মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কার্যক্রমের সূচনা বক্তব্য দেন মোহাম্মদ নাসিম

১৪ দলের মিটিং ডেকে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের বক্তব্যের জবাব নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম এমপি।

তিনি বলেন, তিনি বরিশালে তার পার্টি ফোরামে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা তার ব্যক্তিগত অভিমত হতে পারে। ১৪ দলের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। জনগণ ভোট দিয়ে সরকার প্রতিষ্ঠার এক বছর পর তিনি কেন এ কথা বললেন এর জবাব ১৪ দলের মিটিং ডেকে নেয়া হবে।

রোববার দুপুরে তার নির্বাচনী এলাকা সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কার্যক্রমের সূচনা বক্তব্যে মোহাম্মদ নাসিম এ কথা বলেন।

একটি বেসরকারি টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মোহাম্মদ নাসিম ১৪ দলের শরীক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের একটি বক্তব্যকে অত্যন্ত দুঃখজনক আখ্যা দিয়ে বলেছেন, রাশেদ খান মেনন একজন প্রবীণ রাজনীতিবিদ। তার কাছ থেকে আমরা সব সময় দায়িত্বশীল বক্তব্য আশা করি।

তিনি মনে করেন, জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার দেশ পরিচালনা করছে। জনগণ ভোট দিয়েছে বলেই রাশেদ খান মেনন এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। তার এই বক্তব্য অত্যন্ত দুঃখজনক।

মুক্তিযোদ্ধারা এ দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান উল্লেখ করে ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, পঁচাত্তর পরবর্তী যে কোনো সরকারের চেয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের সবচেয়ে বেশি মর্যাদা দিয়েছেন, সম্মানিত করেছেন। তাদের জন্য মর্যাদাসম্পন্ন রাষ্ট্রীয় কোষাগারের ভাতা প্রদান করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, পাকিস্তানি শাসন-শোষণের কবল থেকে এ দেশকে মুক্ত করতে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজী রেখে যুদ্ধ করেছেন, দেশ স্বাধীন হয়েছে। স্বাধীন সার্বভৌম একটি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। জাতি লাল-সবুজের একটি পতাকা পেয়েছে। কিন্তু একটি কুচক্রীমহলের ষড়যন্ত্রে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে হত্যার পর এ দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ভূলুণ্ঠিত হয়।

নাসিম বলেন, '৭৫ পরবর্তীতে বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টির লক্ষ্যে ভূয়া তালিকা তৈরি করে। এ কারণে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। কে আসল কে নকল তা স্পষ্ট করার জন্য যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হাসান সিদ্দিকী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহজাহান আলী উপস্থিত ছিলেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×