সেই শুভর ভগ্নিপতি-ভাইকে ফেরত দিল র‌্যাব
jugantor
সেই শুভর ভগ্নিপতি-ভাইকে ফেরত দিল র‌্যাব

  ভোলা প্রতিনিধি  

২৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৩:১৭:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

সেই শুভর ভগ্নিপতি-ভাইকে ফেরত দিল র‌্যাব
ফাইল ছবি

ভোলার ফেসবুক আইডির বিপ্লব চন্দ্র শুভর ভগ্নিপতি বিধান চন্দ্র মজুমদার ও চাচাতো ভাই সাগর বৈদ্যকে স্বজনদের কাছে ফেরত পাঠানো হয়েছে। 

বুধবার ভোরে ভোলা সদর র‌্যাবের কার্যালয় থেকে তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেন র‌্যাব কর্মকর্তারা।

বিধান চন্দ্র ও সাগরকে সোমবার সন্ধ্যার পর ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার আবুবকরপুর ইউনিয়নের রোদেরহাট বাজারের দোকান থেকে তুলে নেয়া হয়। কে বা কারা তুলে নিয়েছে, তা বলা না গেলেও বিধানকে অপহরণ করা হয়েছে মর্মে দুলারহাট থানায় অভিযোগ দেন তার বাবা বিনয় মজুমদার। 

৩৫ ঘণ্টা পর  বিধানের বাবা বিনয় মজুমদার, এলাকার ইউপি মেম্বার আশরাফুল আলম দুলালসহ চারজন ভোলার র‌্যাব অফিসে যান। এর পরই বিধান ও সাগরকে তাদের কাছে হস্তান্তর করেন র‌্যাব কর্মকর্তারা। 

র‌্যাব সূত্র জানায়, বিধান ও সাগরকে কিছু বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আনা হয়। পরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তবে এদের অপহরণ করা হয়নি।

তবে সকালে বিধানের বাবা বিনয় মজুমদার ও ইউপি মেম্বার আশরাফুল জানান, রাতে বিধানের মোবাইল ফোন দিয়ে তাদের ভোলার র‌্যাব কার্যালয়ে যেতে বলা হয়। এর পর আবার ওই মোবাইল ফোন কেউ ধরছিল না। 

পরে রাত সাড়ে ১১টায় ফের তাদের সেখানে যেতে বলা হয়। এ সময় মেম্বার আশরাফুল র‌্যাব কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেন। পরে রাত ১টার দিকে তারা ওই কার্যালয়ে যান। 

এর পর প্রক্রিয়া শেষে বিধান ও সাগরকে ফেরত দেয়া হয়। বাইরে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন বিধান সাগর ও বিধানের বাবা। 

বিধানের বাড়ি চরউমেদ ইউনিয়নে। তিনি স্বর্ণালঙ্কার তৈরির ব্যবসা করেন চরফ্যাশন উপজেলার আবুবকরপুর ইউনিয়নের রোদেরহাটে। ওই দোকান থেকেই বিধান ও সাগরকে সাদা পোশাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। সাগর ওই দোকানের কারিগর। 

অন্যদিকে পরিবেশ শান্ত রাখতে গত রাতে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এক সমন্বয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের পাশাপাশি রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন। 

উল্লেখ্য, গত রোববার ফেসবুক মেসেঞ্জারে ধর্ম নিয়ে ‘কটূক্তির’ প্রতিবাদে বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ঈদগাহ মাঠে সমাবেশ শেষে সংঘর্ষ, গুলি, টিয়ারশেল ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এ সময় সংঘর্ষে চারজন নিহত হন।

নিহতরা হলেন- বোরহানউদ্দিন উপজেলার মহিউদ্দিন পাটোয়ারীর মাদ্রাসাছাত্র মাহবুব (১৪), উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার হোসেনের কলেজপড়ুয়া ছেলে শাহিন (২৩), বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাহফুজ (৪৫) এবং মনপুরা হাজিরহাট এলাকার বাসিন্দা মিজান (৪০)।

সেই শুভর ভগ্নিপতি-ভাইকে ফেরত দিল র‌্যাব

 ভোলা প্রতিনিধি 
২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০১:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সেই শুভর ভগ্নিপতি-ভাইকে ফেরত দিল র‌্যাব
ফাইল ছবি

ভোলার ফেসবুক আইডির বিপ্লব চন্দ্র শুভর ভগ্নিপতি বিধান চন্দ্র মজুমদার ও চাচাতো ভাই সাগর বৈদ্যকে স্বজনদের কাছেফেরত পাঠানোহয়েছে।

বুধবার ভোরে ভোলা সদর র‌্যাবের কার্যালয় থেকে তাদের স্বজনদেরকাছে হস্তান্তর করেন র‌্যাব কর্মকর্তারা।

বিধান চন্দ্র ও সাগরকে সোমবার সন্ধ্যার পর ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার আবুবকরপুর ইউনিয়নের রোদেরহাট বাজারের দোকান থেকে তুলে নেয়া হয়। কে বা কারা তুলে নিয়েছে, তা বলা না গেলেও বিধানকে অপহরণ করা হয়েছে মর্মে দুলারহাট থানায় অভিযোগ দেন তার বাবা বিনয় মজুমদার।

৩৫ ঘণ্টা পরবিধানের বাবা বিনয় মজুমদার, এলাকার ইউপি মেম্বার আশরাফুল আলম দুলালসহ চারজন ভোলার র‌্যাব অফিসে যান। এর পরই বিধান ও সাগরকে তাদের কাছে হস্তান্তর করেন র‌্যাব কর্মকর্তারা।

র‌্যাব সূত্র জানায়, বিধান ও সাগরকে কিছু বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আনা হয়। পরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তবে এদের অপহরণ করা হয়নি।

তবে সকালে বিধানের বাবা বিনয় মজুমদার ও ইউপি মেম্বার আশরাফুল জানান, রাতে বিধানের মোবাইল ফোন দিয়ে তাদের ভোলার র‌্যাব কার্যালয়ে যেতে বলা হয়। এর পর আবার ওই মোবাইল ফোন কেউ ধরছিল না।

পরে রাত সাড়ে ১১টায় ফের তাদের সেখানে যেতে বলা হয়। এ সময় মেম্বার আশরাফুল র‌্যাব কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেন। পরে রাত ১টার দিকে তারা ওই কার্যালয়ে যান।

এর পর প্রক্রিয়া শেষে বিধান ও সাগরকে ফেরত দেয়া হয়। বাইরে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন বিধান সাগর ও বিধানের বাবা।

বিধানের বাড়ি চরউমেদ ইউনিয়নে। তিনি স্বর্ণালঙ্কার তৈরির ব্যবসা করেন চরফ্যাশন উপজেলার আবুবকরপুর ইউনিয়নের রোদেরহাটে। ওই দোকান থেকেই বিধান ও সাগরকে সাদা পোশাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। সাগর ওই দোকানের কারিগর।

অন্যদিকে পরিবেশ শান্ত রাখতে গত রাতে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এক সমন্বয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের পাশাপাশি রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত রোববার ফেসবুক মেসেঞ্জারে ধর্ম নিয়ে ‘কটূক্তির’ প্রতিবাদে বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ঈদগাহ মাঠে সমাবেশ শেষে সংঘর্ষ, গুলি, টিয়ারশেল ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এ সময় সংঘর্ষে চারজন নিহত হন।

নিহতরা হলেন- বোরহানউদ্দিন উপজেলার মহিউদ্দিন পাটোয়ারীর মাদ্রাসাছাত্র মাহবুব (১৪), উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার হোসেনের কলেজপড়ুয়া ছেলে শাহিন (২৩), বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাহফুজ (৪৫) এবং মনপুরা হাজিরহাট এলাকার বাসিন্দা মিজান (৪০)।