চবিতে ভর্তি পরীক্ষায় মেয়েকে নিতে এসে প্রাণ গেল বাবার

  চবি (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি ৩০ অক্টোবর ২০১৯, ২১:৫১ | অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

বাবাকে নিজের ব্যাংকে জমানো টাকা দিয়ে শার্ট কিনে দেবে আর টিউশনি করে বাবার মাথার ওপর চাপ কমাবে মেয়ে। আর তাই উচ্চশিক্ষার জন্য মেয়েকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ভর্তি করাবেন বাবা।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেবে মেয়ে। এজন্য মেয়েকে নিয়ে শাটলে করে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন মৃণাল দাশ। কিন্তু তার সে স্বপ্ন পূরণ হল না। তাকে বাড়ি ফিরে যেতে হল লাশ হয়ে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে মেয়েকে পরীক্ষা দিতে নিয়ে এসে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান মৃণাল দাশ।

বুধবার দুপুর ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা শাটলে স্ট্রোক করেন মৃণাল দাশ। এর আগে সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মেয়ে তিন্নি দাশ ও তার বান্ধবী ঐশী দাশকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন তিনি।

এ সময় আশেপাশে থাকা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা তাকে তুলে নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল সেন্টারে পাঠালে চিকিৎসক তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিলাপরতা ঐশী দাশ ও তিন্নি দাশ দুজনই বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘সি’ ইউনিটে পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন। তিন্নি নগরীর বাংলাদেশ মহিলা সমিতি (বাওয়া) স্কুল ও কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন।

নিহত মৃণালের বাড়ি সাতকানিয়ার আমিলাইশ গ্রামে। পেশায় একজন সিএনজিচালক। তিনি থাকতেন নগরের এনায়েতবাজারের গোয়ালপাড়া রেলওয়ে কলোনীতে।

চবি মেডিকেলে গেলে ঐশী দাশ জানান, ‘পরীক্ষা শেষে আঙ্কেল আমাদের বললেন তোমরা পরীক্ষা দিয়ে এলে, ক্লান্ত হয়ে গেছ। একটু নাশতা কর। নাশতা শেষে ফেরার পথে বললেন যে ট্রেনে না গিয়ে বাসে যাই। কিন্তু আমি বললাম বাসে দেরি হবে আঙ্কেল, ট্রেনে যাই। এরপরই এরকম হয়ে গেল।’

তিনি বলেন, আমি এর আগেও কয়েক জায়গায় পরীক্ষা দিয়েছি৷ কিন্তু তিন্নি এটাই প্রথম পরীক্ষা দিল। এখানে এসেই বাবাকে হারাল।

জানা গেছে, নিহত মৃণালকে চবি মেডিকেলে নিয়ে যায় স্টেশনের কালাম স্টোরের আবুল কালাম, হাটহাজারী কলেজের শিক্ষার্থী শেখ নুরুন্নবী মেহেদী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আমানুল্লাহ।

তারা জানান, দুপুর একটার দিকে দেড়টার ট্রেনে তিন্নি ও ঐশীকে সিটে বসিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন মৃণাল। কিছুক্ষণ পর হঠাৎ পড়ে যান তিনি। এটি দেখতে পেয়ে আমানুল্লাহ দৌড়ে গিয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর প্রণব মিত্রকে অসুস্থতার কথা জানান। সঙ্গে সঙ্গে অ্যাম্বুলেন্সের জন্য মেডিকেলে খবর পাঠানো হয়। কিন্তু দেরি হবে ভেবে আবার অন্য এক পরীক্ষার্থীর প্রাইভেটকারে মৃণাল দাশকে চবি মেডিকেলে নেয়া হয়।

এ ব্যাপারে চবি চিকিৎসা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত প্রধান কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আবু তৈয়ব বলেন, হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মৃণাল দাশের মৃত্যু ঘটেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর প্রণব মিত্র চৌধুরী বলেন, উপাচার্য ম্যাম দেখে গিয়েছেন। তিনি আশ্বস্ত করেছেন। প্রশাসন সর্বোচ্চ চেষ্টা করে অভিভাবকের কাছে লাশ তুলে দেবে। আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা থাকবে নিহতের পরিবারের প্রতি।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×