আজহারের মৃত্যুদণ্ডের রায় বহালে উচ্ছ্বসিত এলাকার মানুষ

  রংপুর ব্যুরো ৩১ অক্টোবর ২০১৯, ২২:৩২ | অনলাইন সংস্করণ

এটিএম আজহারুল ইসলাম
এটিএম আজহারুল ইসলাম। ফাইল ছবি

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াত নেতা এটিএম আজহারুল ইসলামের মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল থাকায় তার বাড়ি রংপুরের বদরগঞ্জের মানুষ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন।

অনেকেই দ্রুত সময়ের মধ্যে ফাঁসি কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে আপিল বিভাগের রায় ঘোষণায় আজহারের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়েছে।

গণমাধ্যমে তার মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকার খবর প্রচার হওয়ার পর থেকে রংপুর জেলাসহ বদরগঞ্জ উপজেলায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আনন্দ-উচ্ছ্বাস দেখা গেছে। এ ঘটনায় উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এটিএম আজহারের গ্রামের বাড়ি রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়নের বাতাসন গ্রামে। বদরগঞ্জ পৌরশহরের বালুয়াভাটা এলাকায় তার আরেকটি বাসা রয়েছে। তবে সেখানে বর্তমানে পরিবারের কেউ থাকেন না।

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধের সময় রংপুরের বদরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নের ঝাড়য়ারবিল ও ধাপপাড়ায় তৎকালীন ছাত্র সংঘের নেতা এটিএম আজহারুল ইসলাম আলবদর-রাজাকার এবং পাক হানাদার বাহিনীর সহযোগিতায় গণহত্যা চালায়। যেখানে প্রায় এক হাজার দুইশতাধিকর নারী-পুরুষকে নির্মম নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়।

এটিএম আজহারুল ইসলামের নির্দেশে রংপুর শহরের টাউন হলে অসংখ্য নিরীহ নিরস্ত্র মানুষকে ধরে নিয়ে হত্যা করা হয়। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে রংপুর নগরীর দমদমা এলাকায় ঘাঘট নদীর তীরে বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে ও ব্রাশ ফায়ার করে রংপুর কারমাইকেল কলেজের ছয় শিক্ষক ও এক শিক্ষক পত্নীকে নির্মমভাবে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া যায়।

উচ্চ আদালতে তার মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রাখায় বদরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক চৌধুরী টুটুল বলেন, এটিএম আজহারুল ইসলামের ফাঁসির রায় বহাল থাকায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী মানুষজন উচ্ছ্বসিত। একাত্তরে নিহতের পরিবারে স্বস্তি ফিরে এসেছে। আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে ফাঁসি কার্যকর দেখতে চাই।

বদরগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার মাহবুবার রহমান হাবলু বলেন, কুখ্যাত খুনি রাজাকার আলদর আজহারের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখায় আইন বিভাগের ওপর আমরা খুশি। আজহারের নির্মম নির্যাতনে যারা নিহত হয়েছে তাদের পরিবারের মানুষজন আজ আনন্দিত।

ধাপপাড়া বধ্যভূমি সংরক্ষণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. লুৎফুল হক সরকার বলেন, এ রায় বহাল থাকায় প্রমাণ হল রাজাকারদের স্থান এ বাংলার মাটিতে হবে না।

উল্লেখ্য, গণহত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগসহ বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধে ২০১৪ সালের ৩০ ডিসেম্বর আজহারকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। এরপর ২০১৫ সালের ২৮ জানুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আপিল দাখিল করেন এটিএম আজহারুল ইসলাম।

নিজেকে নির্দোষ দাবি করে অভিযোগ থেকে খালাস চেয়ে এ আপিল করা হয়। ৯০ পৃষ্ঠার মূল আপিল আবেদনের সঙ্গে ১১৩টি গ্রাউন্ডসহ মোট ২ হাজার ৩৪০ পৃষ্ঠার আপিল আবেদন দাখিল করা হয়।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×