ফরিদপুরে ক্রিকেট জুয়ায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা
jugantor
ফরিদপুরে ক্রিকেট জুয়ায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

  চরভদ্রাসন (ফরিদপুর) প্রতিনিধি  

১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১৯:১২:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের বাদুল্ল্যা মাতুব্বর ডাঙ্গী গ্রামের শেখ বাবু (৩৫)। বাড়ির পাশে তিন রাস্তার মোড়ে মুদি ও মনোহারী দোকান ছিল তার।

মোটামুটি স্বাচ্ছন্দ্যেই কেটে যাচ্ছিল দুই সন্তানের জনক বাবুর দিন। কিন্তু বন্ধু-বান্ধবদের পাল্লায় পড়ে নিঃস্ব হয়ে জীবন দিয়ে ভুলের খেসারত দিতে হল তার।

ক্রিকেট জুয়া খেলায় দেনার দায় সইতে না পেরে রোববার সন্ধ্যায় বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন শেখ বাবু।

তিনি চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের বাদুল্লা মাতুব্বর ডাঙ্গী গ্রামের শেখ আয়নাল ওরফে আয়নাল তহশিলদারের পুত্র। তার রশ্নি আক্তার (৭) ও ৯ মাসের শিশু পুত্র শাহাদাৎ হোসেন নামে দুই সন্তান রয়েছে।

পরিবার সূত্র জানায়, বাবু বসতবাড়ির পাশে তিন রাস্তার মোড়ে মুদি ও মনোহারী দোকানের ব্যবসা করতেন। টিভিতে আইপিএল, বিপিএল ও সিপিএল ক্রিকেট খেলা চলাকালে বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে তিনি নীরবে (চিকন-মোটা) জুয়া খেলায় অভ্যস্ত হয়ে পড়েন। এতে তিনি নিঃস্ব হয়ে পড়েছিলেন বলে স্বজনরা জানান।

সোমবার নিহতের বড় ভাই শেখ শফি (৪৯) জানান, রোববার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা সদরের আরেক ক্রিকেট জুয়াড়ি সুজন শেখ (৪০) পাওনা টাকা আদায় করতে গিয়ে বাবু শেখের দোকানে রক্ষিত টিভি ও ফ্রিজ বের করে নিয়ে যান। এ ছাড়া অন্য জুয়াড়িদের পাওনা টাকার চাপ কুলাতে না পেরে ওই দিন বিকালে বাবু শেখ দোকান ঘর ভিতর থেকে আটকিয়ে বিষপান করেন।

পরে মুমূর্ষু অবস্থায় তিনি নিজেই বাড়িতে ফোন দিলে তার স্বজনরা দোকান ঘরের দরজা ভেঙে তাকে চরভদ্রাসন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনেন। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জাহিদ হোসেন রোগীর অবস্থা বেগতিক দেখে তাৎক্ষণিক ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে তার লাশ ফরিদপুর মর্গে পাঠানো হয়।

নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, বাবু শেখ পরিবারের পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে ৪র্থ। তিনি চরভদ্রাসন সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সংসদের সাবেক জিএস ছিলেন। কয়েক বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় তার এক পায়ের কিছু অংশ কেটে ফেলার পর তিনি পঙ্গু হয়ে পড়েন। তাই বাড়িতে দোকান দিয়ে তিনি জীবিকা নির্বাহ করছিলেন।

চরভদ্রাসন থানার ওসি হারুন অর রশিদ বলেন, আমাদের আগে জানানো হয়নি। খবর পেয়ে নিহতের বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়।

ফরিদপুরে ক্রিকেট জুয়ায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

 চরভদ্রাসন (ফরিদপুর) প্রতিনিধি 
১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের বাদুল্ল্যা মাতুব্বর ডাঙ্গী গ্রামের শেখ বাবু (৩৫)। বাড়ির পাশে তিন রাস্তার মোড়ে মুদি ও মনোহারী দোকান ছিল তার।

মোটামুটি স্বাচ্ছন্দ্যেই কেটে যাচ্ছিল দুই সন্তানের জনক বাবুর দিন। কিন্তু বন্ধু-বান্ধবদের পাল্লায় পড়ে নিঃস্ব হয়ে জীবন দিয়ে ভুলের খেসারত দিতে হল তার।

ক্রিকেট জুয়া খেলায় দেনার দায় সইতে না পেরে রোববার সন্ধ্যায় বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন শেখ বাবু।

তিনি চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের বাদুল্লা মাতুব্বর ডাঙ্গী গ্রামের শেখ আয়নাল ওরফে আয়নাল তহশিলদারের পুত্র। তার রশ্নি আক্তার (৭) ও ৯ মাসের শিশু পুত্র শাহাদাৎ হোসেন নামে দুই সন্তান রয়েছে।

পরিবার সূত্র জানায়, বাবু বসতবাড়ির পাশে তিন রাস্তার মোড়ে মুদি ও মনোহারী দোকানের ব্যবসা করতেন। টিভিতে আইপিএল, বিপিএল ও সিপিএল ক্রিকেট খেলা চলাকালে বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে তিনি নীরবে (চিকন-মোটা) জুয়া খেলায় অভ্যস্ত হয়ে পড়েন। এতে তিনি নিঃস্ব হয়ে পড়েছিলেন বলে স্বজনরা জানান।

সোমবার নিহতের বড় ভাই শেখ শফি (৪৯) জানান, রোববার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা সদরের আরেক ক্রিকেট জুয়াড়ি সুজন শেখ (৪০) পাওনা টাকা আদায় করতে গিয়ে বাবু শেখের দোকানে রক্ষিত টিভি ও ফ্রিজ বের করে নিয়ে যান। এ ছাড়া অন্য জুয়াড়িদের পাওনা টাকার চাপ কুলাতে না পেরে ওই দিন বিকালে বাবু শেখ দোকান ঘর ভিতর থেকে আটকিয়ে বিষপান করেন।

পরে মুমূর্ষু অবস্থায় তিনি নিজেই বাড়িতে ফোন দিলে তার স্বজনরা দোকান ঘরের দরজা ভেঙে তাকে চরভদ্রাসন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনেন। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জাহিদ হোসেন রোগীর অবস্থা বেগতিক দেখে তাৎক্ষণিক ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।  ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে তার লাশ ফরিদপুর মর্গে পাঠানো হয়।

নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, বাবু শেখ পরিবারের পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে ৪র্থ। তিনি চরভদ্রাসন সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সংসদের সাবেক জিএস ছিলেন। কয়েক বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় তার এক পায়ের কিছু অংশ কেটে ফেলার পর তিনি পঙ্গু হয়ে পড়েন। তাই বাড়িতে দোকান দিয়ে তিনি জীবিকা নির্বাহ করছিলেন।

চরভদ্রাসন থানার ওসি হারুন অর রশিদ বলেন, আমাদের আগে জানানো হয়নি। খবর পেয়ে নিহতের বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন