ভৈরবে মাদক মামলায় স্বামী জেলে, স্ত্রী ঝুলছে ফাঁসিতে

  ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি ২২ নভেম্বর ২০১৯, ২১:০৭ | অনলাইন সংস্করণ

আত্মহত্যা

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মাদক মামলায় জেলে বন্দি স্বামী মো. মোস্তাকিন (২৫)। আর স্ত্রী চাঁদনী বেগম (২০) অপর যুবক জনি মিয়ার (৩০) সঙ্গে অবৈধ প্রেমে জড়িয়ে কলহের জেরে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার শেষরাতে শহরের ঘোড়াকান্দা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, স্বামী মোস্তাকিনের সঙ্গে ৫ বছর আগে বিয়ে হয় চাঁদনী বেগমের। তাদের একটি শিশু সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর জানতে পারে স্বামী মাদক সেবনসহ মাদক ব্যবসা এবং নানা অপরাধ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। একমাস আগে মাদক মামলায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠায়।

এদিকে স্বামীর এসব কর্মকাণ্ডে বিরক্ত হয়ে জনি মিয়ার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে চাঁদনী বেগম। স্বামীর সংসার করেও অনেকদিন যাবত ওই যুবকের সঙ্গে তার অবৈধ প্রেম ও মেলামেশা চলছিল। স্বামী জেলে গেলে এই সুযোগে প্রেমিক তার বাসায় প্রায়ই রাত কাটায়।

বৃহস্পতিবার রাতে প্রেমিক তার বাসায় ছিল। গভীর রাতে দুজন কোনো ঘটনা নিয়ে ঝগড়া করে বলে প্রতিবেশীরা জানায়। রাত ৩টায় তাদের ঝগড়ার আওয়াজ পেয়েছে বলে এক প্রতিবেশী পুলিশকে জানায়। ভোরে এক প্রতিবেশী তার রুমের দরজা খোলা দেখতে পায়।

এ সময় তাকিয়ে দেখে চাঁদনী গলায় ফাঁসি দিয়ে ঘরের চালার কাঠে ঝুলে আছে। এ ঘটনা দেখে আশেপাশের লোকজনকে খবর দিয়ে তার মাকে ঘটনাটি অবহিত করে। পরে পুলিশকে ঘটনা জানানো হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে।

নিহতের মা মর্জিনা বেগম জানান, তাদের অবৈধ সম্পর্কের কথা আমি জানতাম না। একই এলাকায় আমাদের বাসা। তবে জনি প্রায়ই তার বাসায় আসে একথা প্রতিবেশীরা আমাকে জানিয়েছিল। রাতে মেয়ের বাসায় থাকে আমিতো জানিনা। তার সন্দেহ গতরাতে জনি তাকে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়ে সে পালিয়ে গেছে। তাই আমি তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছি।

ভৈরব থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খাঁন বাহার জানান, পুলিশ গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে। ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর উদঘাটন হবে। তার মা হত্যার অভিযোগ করে মামলা দিয়েছে। ঘটনা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×