পুলিশ দেখে পালানোর সময় ফের বালুর গর্তে প্রাণ গেল যুবকের

  দিনাজপুর প্রতিনিধি ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩:৩৩ | অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুর

দিনাজপুরে জুয়া খেলার সময় পুলিশ দেখে পালাতে গিয়ে পুনর্ভবা নদীর গর্তে ডুবে আবারও সিদ্দিকুর রহমান (৩৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

নদীর গর্তের গভীর পানিতে নিখোঁজের ৫ ঘণ্টা পর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল শনিবার দিবাগত রাতে তার লাশ উদ্ধার করেছে।

সিদ্দিকুর রহমান দিনাজপুর সদর উপজেলার গোবড়াপাড়া এলাকার মকবুল হোসেনের ছেলে এবং পেশায় সে একজন ট্রাক্টরচালক। পুনর্ভবা নদীতে তেমন পানি না থাকলেও রাজাপাড়াঘাট নামক ওই স্থানে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার ফলে গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়।

এর আগেও পুনর্ভবা নদীর সেই গর্তে ডুবে ৪ জনের মৃত্যু হয়। তারাও জুয়া খেলার সময় পুলিশের তাড়া খেয়ে পালানোর চেষ্টা করেছিল।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকালে সিদ্দিকুর রহমানসহ ১০ থেকে ১২ জন পুনর্ভবা নদীর রাজাপাড়া ঘাটে নদীর ধারে বসে জুয়া খেলছিল। এ সময় সেদিক দিয়ে পুলিশের একটি টহল দল যাচ্ছিল। জুয়াড়িরা পুলিশ দেখতে পেয়ে ভয়ে যে যার মতো দৌড় দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

এদের মধ্যে ৩ জন নদী পার হয়ে পালানোর চেষ্টা করে। তাদের মধ্যে ২ জন নদীর গর্তের পানি সাঁতরে নদী পার হতে পারলেও সিদ্দিকুর রহমান গর্তের গভীর পানিতে তলিয়ে যায়। পরে রংপুর থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে এসে রাত ১০টার দিকে তার লাশ উদ্ধার করে।

ঘটনাস্থলে দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুজন মাহমুদ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ফিরুজুল ইসলাম ও কোতোয়ালি থানার ওসি মো. মোজাফফর হোসেন উপস্থিত থেকে উদ্ধার অভিযান তদারকি করেন। এ সময় নদীর দুই পাড়ে হাজার হাজার মানুষ ভিড় জমান।

এর আগে ২০১২ সালের ২৭ নভেম্বর একই স্থানে পুলিশের তাড়া খেয়ে পুনর্ভবা নদীর সেই গর্তের গভীর পানিতে ডুবে ৪ জন জুয়াড়ির মৃত্যু হয়। তারা হলেন দিনাজপুর শহরের বাহাদুরবাজার এলাকার সিদ্দিক হোসেনের ছেলে জামাল হোসেন মিনি (৪০), শহরের নতুনপাড়া এলাকার নিতাই সাহার ছেলে সবুজ সাহা (৩৩), রামনগর এলাকার আব্দুস সামাদের ছেলে আওলাদ হোসেন (৩৩) এবং গোলাপবাগ এলাকার রেসারউদ্দীনের ছেলে ইসমাইল হোসেন (২৮)।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

 
×