নয় বছর ধরে বিনা বেতনে চাকরি করা এই ৭২ ব্যক্তির কি হবে?
jugantor
নয় বছর ধরে বিনা বেতনে চাকরি করা এই ৭২ ব্যক্তির কি হবে?

  মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি  

১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৫৩:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

মাগুরা
মঙ্গলবার সকালে মহম্মদপুর উপজেলা প্রেসক্লাবে ভূক্তভোগীদের সংবাদ সম্মেলন। ছবি- যুগান্তর

মাগুরার ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে ২০১০ সাল থেকে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের ৭২জন উদ্যোক্তা বিনা বেতনে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।  

পরিষদের বিভিন্ন দাফতরিক কাজ, জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন, সনদপত্র, বিভিন্ন ধরনের প্রত্যয়নপত্র, পাসপোর্ট ও ভিসার প্রয়োজনীয় কাজ, মেইলে তথ্য আদান-প্রদানসহ স্থানীয় জনগণের প্রয়োজনীয় প্রায় সব ধরনের সেবামূলক কাজ করে আসছেন তারা। 

কিন্তু তাদের বিষয়টি সূরাহা না করে সম্প্রতি ‘হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর’ পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেয় মাগুরা জেলা প্রশাসন। 

এতে নিজেদের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন গত ৯ বছর ধরে বিনা বেতনে কাজ করে যাওয়া এসব উদ্যোক্তারা।
 
তাই চাকরি স্থায়ীকরণ ও হিসাব সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ বন্ধের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এসব ভুক্তভোগী উদ্যোক্তা। 

মঙ্গলবার সকালে মহম্মদপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। 

সংবাদ সম্মেলনে ভূক্তভোগীরা বলেন, ‘মাগুরা জেলার ৪টি উপলজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তা হিসেবে ২০১০ সাল থেকে আমরা ৭২জন উদ্যোক্তা বিনা বেতনে দায়িত্ব পালন করে আসছি। ইউনিয়ন পরিষগুলোতে আমরা দাফতরিক কার্যক্রম, জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন, ওয়ারেশ কায়েম সনদপত্র, বিভিন্ন ধরণের প্রত্যয়ন, পাসপোর্ট ও ভিসার প্রয়োজনীয় কাজ, দেশে-বিদেশে মেইলের মাধ্যমে তথ্য আদান-প্রদানসহ স্থানীয় জনগণের প্রয়োজনীয় প্রায় সব ধরনের সেবামূলক কাজ পরিচালনা করছি। এর মাধ্যমে যৎসামান্য আয় হয়। তা দিয়ে  পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি। ’

তারা আরো বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদে হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ প্রদানের জন্য মাগুরা জেলা প্রশাসক একটি দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। ওই পদে নিয়োগ বন্ধ না হলে এবং ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা পদে স্থায়ীভাবে নিয়োগ না দেয়া হলে পরিবার-পরিজন নিয়ে দুর্বিসহ জীবন যাপন করতে হবে আমাদের।  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট নিয়োগ বন্ধ করে আমাদের চাকরি স্থায়ীকরণের
জোর দাবি জানাচ্ছি। ’

মাগুরা জেলা প্রশাসক বরাবর হিসাব সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ বন্ধ এবং ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার এর উদ্যোক্তা পদে চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি জানিয়ে আবেদন দেয়া হয়েছে বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। 

এমন সংবাদ সম্মেলন বিষয়ে মাগুরা জেলা প্রশাসক মো. আশরাফুর আলম যুগান্তরকে বলেন, ‘দীর্ঘদিন ইউনিয়ন পরিষদে যারা সেবামূলক যারা কাজ করে আসছেন তাদের সঙ্গে এই নিয়োগের কোনো সর্ম্পক নেই। সারা বাংলাদেশে ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে যে প্রক্রিয়ায় হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে মাগুরা জেলাতেও একই প্রক্রিয়ায় নিয়োগ প্রদান করা হবে।’

নয় বছর ধরে বিনা বেতনে চাকরি করা এই ৭২ ব্যক্তির কি হবে?

 মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি 
১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৫৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মাগুরা
মঙ্গলবার সকালে মহম্মদপুর উপজেলা প্রেসক্লাবে ভূক্তভোগীদের সংবাদ সম্মেলন। ছবি- যুগান্তর

মাগুরার ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে ২০১০ সাল থেকে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের ৭২জন উদ্যোক্তা বিনা বেতনে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

পরিষদের বিভিন্ন দাফতরিক কাজ, জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন, সনদপত্র, বিভিন্ন ধরনের প্রত্যয়নপত্র, পাসপোর্ট ও ভিসার প্রয়োজনীয় কাজ, মেইলে তথ্য আদান-প্রদানসহ স্থানীয় জনগণের প্রয়োজনীয় প্রায় সব ধরনের সেবামূলক কাজ করে আসছেন তারা।

কিন্তু তাদের বিষয়টি সূরাহা না করে সম্প্রতি ‘হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর’ পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেয় মাগুরা জেলা প্রশাসন।

এতে নিজেদের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন গত ৯ বছর ধরে বিনা বেতনে কাজ করে যাওয়া এসব উদ্যোক্তারা।

তাই চাকরি স্থায়ীকরণ ও হিসাব সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ বন্ধের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এসব ভুক্তভোগী উদ্যোক্তা।

মঙ্গলবার সকালে মহম্মদপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ভূক্তভোগীরা বলেন, ‘মাগুরা জেলার ৪টি উপলজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তা হিসেবে ২০১০ সাল থেকে আমরা ৭২জন উদ্যোক্তা বিনা বেতনে দায়িত্ব পালন করে আসছি। ইউনিয়ন পরিষগুলোতে আমরা দাফতরিক কার্যক্রম, জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন, ওয়ারেশ কায়েম সনদপত্র, বিভিন্ন ধরণের প্রত্যয়ন, পাসপোর্ট ও ভিসার প্রয়োজনীয় কাজ, দেশে-বিদেশে মেইলের মাধ্যমে তথ্য আদান-প্রদানসহ স্থানীয় জনগণের প্রয়োজনীয় প্রায় সব ধরনের সেবামূলক কাজ পরিচালনা করছি। এর মাধ্যমে যৎসামান্য আয় হয়। তা দিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি। ’

তারা আরো বলেন, ‘ইউনিয়ন পরিষদে হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ প্রদানের জন্য মাগুরা জেলা প্রশাসক একটি দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। ওই পদে নিয়োগ বন্ধ না হলে এবং ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা পদে স্থায়ীভাবে নিয়োগ না দেয়া হলে পরিবার-পরিজন নিয়ে দুর্বিসহ জীবন যাপন করতে হবে আমাদের। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট নিয়োগ বন্ধ করে আমাদের চাকরি স্থায়ীকরণের
জোর দাবি জানাচ্ছি। ’

মাগুরা জেলা প্রশাসক বরাবর হিসাব সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ বন্ধ এবং ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার এর উদ্যোক্তা পদে চাকরি স্থায়ীকরণের দাবি জানিয়ে আবেদন দেয়া হয়েছে বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

এমন সংবাদ সম্মেলন বিষয়ে মাগুরা জেলা প্রশাসক মো. আশরাফুর আলম যুগান্তরকে বলেন, ‘দীর্ঘদিন ইউনিয়ন পরিষদে যারা সেবামূলক যারা কাজ করে আসছেন তাদের সঙ্গে এই নিয়োগের কোনো সর্ম্পক নেই। সারা বাংলাদেশে ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে যে প্রক্রিয়ায় হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে মাগুরা জেলাতেও একই প্রক্রিয়ায় নিয়োগ প্রদান করা হবে।’