কক্সবাজারে কিশোরীকে হত্যার পর কিশোরের আত্মহত্যার চেষ্টা
jugantor
কক্সবাজারে কিশোরীকে হত্যার পর কিশোরের আত্মহত্যার চেষ্টা

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:০২:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের রামু উপজেলায় ছুরিকাঘাতে কিশোরীকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে মুফিজুর রহমান (১৭) নামে এক কিশোর। নিহতের নাম খুরশিদা বেগম (১৪)।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার থোয়াইংগ্যাকাটা এলাকা থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত খুরশিদা ওই এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের মেয়ে ও গোয়ালিয়া পালং মহিলা কিন্ডারগার্টেন স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। আহত মুফিজুর একই এলাকার মোহাম্মদ হোসাইনের ছেলে। তারা সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন।

খুনিয়া পালং ইউনিয়নের সদস্য সুলতান জানান, মঙ্গলবার দুপুরে মুফিজুর খুরশিদার বাড়িতে গিয়ে তাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে। এর পর ঘরের বাইরে এসে সে নিজের শরীরে ছুরিকাঘাত করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। এ সময় গুরুতর অবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

খুরশিদা আর আহত মুফিজুর সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ধারণা করা হচ্ছে, প্রেমঘটিত বিষয় নিয়ে দুজনের মনোমালিন্যের জের ধরে এ ঘটনা ঘটে।

রামু থানার ওসি মো. আবুল খায়ের জানান, সন্ধ্যায় স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মুফিজুরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

কক্সবাজারে কিশোরীকে হত্যার পর কিশোরের আত্মহত্যার চেষ্টা

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:০২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের রামু উপজেলায় ছুরিকাঘাতে কিশোরীকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে মুফিজুর রহমান (১৭) নামে এক কিশোর। নিহতের নাম খুরশিদা বেগম (১৪)।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার থোয়াইংগ্যাকাটা এলাকা থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত খুরশিদা ওই এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের মেয়ে ও গোয়ালিয়া পালং মহিলা কিন্ডারগার্টেন স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। আহত মুফিজুর একই এলাকার মোহাম্মদ হোসাইনের ছেলে। তারা সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন।

খুনিয়া পালং ইউনিয়নের সদস্য সুলতান জানান, মঙ্গলবার দুপুরে মুফিজুর খুরশিদার বাড়িতে গিয়ে তাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে। এর পর ঘরের বাইরে এসে সে নিজের শরীরে ছুরিকাঘাত করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। এ সময় গুরুতর অবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

খুরশিদা আর আহত মুফিজুর সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ধারণা করা হচ্ছে, প্রেমঘটিত বিষয় নিয়ে দুজনের মনোমালিন্যের জের ধরে এ ঘটনা ঘটে।

রামু থানার ওসি মো. আবুল খায়ের জানান, সন্ধ্যায় স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মুফিজুরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন