সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন গাড়ি, তীব্র যানজট
jugantor
সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন গাড়ি, তীব্র যানজট

  শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি  

১১ জানুয়ারি ২০২০, ১১:১৩:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন গাড়ি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের সড়কে প্রতিদিন দেদারসে প্রবেশ করছে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন লক্কর-ঝক্কর গাড়ি। এসব পাথর ও মালবোঝাই গাড়ি প্রায়ই বিকল হয়ে সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজট। আর গাড়িগুলো সরাতেও ২/৩ দিন সময় লেগে যাচ্ছে; সীমান্তে বাড়ছে ভোগান্তি।

এসব লক্কর-ঝক্কর গাড়ির ব্যাপারে ইতিপূর্বে বহুবার মহদীপুর স্থলবন্দর ট্রাক সমিতি, সিএন্ডএফ এজেন্ট ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ও মহদীপুর স্থলবন্দর রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের নেতাদেরকে অভিযোগ করা হয়। তারপরও এসব গাড়ি চলাচল বন্ধ করা হচ্ছে না।

শনিবার মহদীপুর স্থলবন্দর সিএন্ডএফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শ্রী ভুপতি মণ্ডল জানান, ওই সব ট্রাক অতিরিক্ত পণ্য নিয়ে রাস্তায় মাঝেমধ্যেই বিকল হয়ে পড়ছে। ট্রাকগুলোর ধারণ ক্ষমতা ২০ টন হলেও পরিবহন করা হয় ৫০/৬০ টন।

রাস্তায় যানজটের ব্যাপারে সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুর রহমান বাবু, সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ, সোনামসজিদ শ্রমিক সমন্বয়ের সাধারণ সম্পাদক মোখলেসুর রহমান ও পানামা সোনামসজিদ পোর্টলিং লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার বেলাল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, ভারতীয় মহদীপুর স্থলবন্দর রফতানিকারক ও মহদীপুর ট্রাক ট্রার্মিনাল নেতাদের সঙ্গে বহুবার আলোচনা হয়েছে।

তারপরও বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না মহদীপুর স্থলবন্দর থেকে ছেড়ে আসা ফিটনেসবিহীন পাথরভর্তি ট্রাকগুলো। এসব ফিটনেসবিহীন গাড়ি সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রবেশের সময় প্রায় দিনই দু'একটি ট্রাক বিকল হতেই থাকে। যার ফলে সোনামসজিদ বন্দরে বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে মাঝে মধ্যেই সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।

সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন গাড়ি, তীব্র যানজট

 শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি 
১১ জানুয়ারি ২০২০, ১১:১৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন গাড়ি
সোনামসজিদ বন্দরে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন গাড়ি। ছবি: যুগান্তর

চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের সড়কে প্রতিদিন দেদারসে প্রবেশ করছে ভারতীয় ফিটনেসবিহীন লক্কর-ঝক্কর গাড়ি। এসব পাথর ও মালবোঝাই গাড়ি প্রায়ই বিকল হয়ে সৃষ্টি হচ্ছে তীব্র যানজট। আর গাড়িগুলো সরাতেও ২/৩ দিন সময় লেগে যাচ্ছে; সীমান্তে বাড়ছে ভোগান্তি। 

এসব লক্কর-ঝক্কর গাড়ির ব্যাপারে ইতিপূর্বে বহুবার মহদীপুর স্থলবন্দর ট্রাক সমিতি, সিএন্ডএফ এজেন্ট ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ও মহদীপুর স্থলবন্দর রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের নেতাদেরকে অভিযোগ করা হয়। তারপরও এসব গাড়ি চলাচল বন্ধ করা হচ্ছে না। 

শনিবার মহদীপুর স্থলবন্দর সিএন্ডএফ ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শ্রী ভুপতি মণ্ডল জানান, ওই সব ট্রাক অতিরিক্ত পণ্য নিয়ে রাস্তায় মাঝেমধ্যেই বিকল হয়ে পড়ছে। ট্রাকগুলোর ধারণ ক্ষমতা ২০ টন হলেও পরিবহন করা হয় ৫০/৬০ টন। 

রাস্তায় যানজটের ব্যাপারে সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুর রহমান বাবু, সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ, সোনামসজিদ শ্রমিক সমন্বয়ের সাধারণ সম্পাদক মোখলেসুর রহমান ও পানামা সোনামসজিদ পোর্টলিং লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার বেলাল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, ভারতীয় মহদীপুর স্থলবন্দর রফতানিকারক ও মহদীপুর ট্রাক ট্রার্মিনাল নেতাদের সঙ্গে বহুবার আলোচনা হয়েছে।

তারপরও বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না মহদীপুর স্থলবন্দর থেকে ছেড়ে আসা ফিটনেসবিহীন পাথরভর্তি ট্রাকগুলো। এসব ফিটনেসবিহীন গাড়ি সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রবেশের সময় প্রায় দিনই দু'একটি ট্রাক বিকল হতেই থাকে। যার ফলে সোনামসজিদ বন্দরে বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে মাঝে মধ্যেই সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন