গ্রেফতারকৃত উপজেলা চেয়ারম্যানকে সরকারি গাড়িতে আদালতে নেয়ায় বিক্ষোভ!

  গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি ২০ জানুয়ারি ২০২০, ২৩:০৭ | অনলাইন সংস্করণ

মেহেদী হাসান রুবেল
মেহেদী হাসান রুবেল। ফাইল ছবি

গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাটে পণ্যবাহী ট্রাক পারাপারে ফেরির টিকিট বুকিংকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের ২ গ্রুপের সংঘর্ষ হয়।

এ ঘটনায় রোববার রাতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মেহেদী হাসান রুবেলকে আটক করে পুলিশ।

সোমবার দুপুরে গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যানের সরকারি গাড়িতে গ্রেফতারকৃত রুবেলকে আদালতে পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বাঁধায় রাস্তায় নামিয়ে দিতে বাধ্য হন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী।

পরে উপজেলা চেয়ারম্যানের সরকারি গাড়ি অনৈতিক ব্যবহার ও উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ সময় তারা ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যানের পদত্যাগ দাবি করেন এবং এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

জানা গেছে, গত শুক্রবার দিবাগত রাতে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট দিয়ে পারাপারকারী বিভিন্ন পণ্যবাহী ট্রাকের ফেরির টিকিট বুকিংয়ের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আওয়ামী লীগের ২ গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গোয়ালন্দ ঘাট থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করে দু’পক্ষ।

এই মামলার এজাহারভুক্ত আসামি দৌলতদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম মণ্ডলের ভাগিনা ও উপজেলা ছাত্রলীগের একাংশের সাবেক সভাপতি মেহেদী হাসান রুবেলকে রোববার রাতে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সোমবার দুপুরে গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী তার সরকারি গাড়িতে করে রুবেলকে নিয়ে আদালতের উদ্দেশে রওনা দেন। এ দিকে এ খবর জানাজানি হলে স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা গোয়ালন্দ বাসস্ট্যান্ডে উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ির গতিরোধের চেষ্টা করে।

এ সময় গাড়িটি দ্রুত গতিতে চলে গেলে ছাত্রলীগে নেতাকর্মীরা বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ি ধাওয়া করে। একপর্যায়ে রাজবাড়ী সদর উপজেলার আলাদিপুর এলাকায় গিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানের গাড়ির নাগাল পায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান গ্রেফতারকৃত রুবেল ও পুলিশ স্কোয়াডকে নামিয়ে দিয়ে গাড়ি নিয়ে দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন।

এ দিকে এ ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দ্বারস্থ হন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী মোল্লা, সাংগঠনিক সম্পাদক আমজাদ হোসেন ফকির, গোয়ালন্দ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম সুজ্জল, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তুহিন দেওয়ান, সাধারণ সম্পাদক আবির হোসেন রিদয়, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রাতুল আহমেদ প্রমুখ।

পরে তারা নেতাকর্মীদের গণস্বাক্ষর গ্রহণ করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের লিখিত অভিযোগ করেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আশিকুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত আসামিকে আদালতে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলাকালে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জানালেন তিনি রাজবাড়ীতে যাবেন এবং তার গাড়িতে আসামিকে আদালতে নিয়ে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন। তাই পুলিশি স্কোয়াডসহ আসামিকে তার গাড়িতে তুলে দেয়া হয়। এতে আইনের কোনো ব্যত্যয় ঘটেনি বলে তিনি দাবি করেন।

উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী জানান, গ্রেফতারকৃত সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রুবেলকে পুলিশের স্কোয়াডসহ গোয়ালন্দ বাসস্ট্যান্ডে নামিয়ে দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেখানে ছাত্রলীগ নেতাদের মারমুখি জটলা দেখে কিছুটা দূরে গিয়ে তাদের নামিয়ে দেয়া হয়। সেখান থেকে অন্য যানবাহনে তারা রাজবাড়ীর আদালতে যায়।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, উপজেলা চেয়ারম্যানের সরকারি গাড়িতে কোনো আসামিকে আদালতে পৌঁছে দেয়া আইন সম্মত নয়। এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×