জাহাজের পোড়া মবিলকে বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি!
jugantor
জাহাজের পোড়া মবিলকে বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি!

  ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

২৩ জানুয়ারি ২০২০, ১৩:২১:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

জাহাজের পোড়া মবিলকে বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি!

জাহাজের পোড়া মবিল মিশিয়ে বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি করছিলেন আব্বাস নামে এক ব্যবসায়ী।

গতকাল বুধবার রাতে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে আব্বাসের মদিনা অয়েল নামে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের গোডাউন থেকে উদ্ধার করা হয় ৪৮ ড্রাম জাহাজের পোড়া মবিল।

এ ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয়ভাবে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। জানা গেছে, বেশি মুনাফা লাভের আশায় দীর্ঘদিন ধরে সরিষার তেলে পোড়া মবিল মিশিয়ে আসছিলেন আব্বাস।

সূত্র জানায়, বুধবার রাতে ভূঞাপুর পৌরসভার বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।

এ সময় পৌরসভার সামনে অবস্থিত আব্বাসের সরিষা তেল বিক্রির দোকানের গোডাউন থেকে ৪৮ ড্রাম পোড়া মবিল জব্দ করা হয়।

আব্বাসকে এক লাখ ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী উপজেলা সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আসলাম হোসাইন। অর্থদণ্ড ছাড়াও সরিষার তেল হিসেবে বিক্রি করা ৪৮ ড্রাম পোড়া মবিল ধ্বংস করা হয়।

এর আগে মানহীন, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, ওজনে কম, খাবারে কাপড় ও বার্নিসের রঙ ব্যবহার করায় উপজেলার ৮ বেকারিকে এক লাখ ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাসরীন পারভীন।

উপজেলা সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আসলাম হোসাইন বলেন, ভেজাল সরিষার তেল বিক্রি করার দায়ে ব্যবসায়ীকে অর্থদণ্ডসহ জব্দকৃত বিপুল পরিমাণ তেল ধ্বংস করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই ওই ব্যবসায়ী সরিষার তেলে মবিল মিশিয়ে বিক্রি করছিলেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরীন বলেন, ভেজাল খাবার খেয়ে মানুষ প্রতিনিয়ত অসুস্থ হয়ে পড়ছে। ভূঞাপুরকে ভেজাল মুক্ত করার জন্যই আমাদের এ অভিযান। আর এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

জাহাজের পোড়া মবিলকে বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি!

 ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
২৩ জানুয়ারি ২০২০, ০১:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জাহাজের পোড়া মবিলকে বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি!
জব্দ পোড়া মবিল ঢেলে ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে

জাহাজের পোড়া মবিল মিশিয়ে বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি করছিলেন আব্বাস নামে এক ব্যবসায়ী।

গতকাল বুধবার রাতে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে আব্বাসের মদিনা অয়েল নামে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের গোডাউন থেকে উদ্ধার করা হয় ৪৮ ড্রাম জাহাজের পোড়া মবিল।

এ ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয়ভাবে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। জানা গেছে, বেশি মুনাফা লাভের আশায় দীর্ঘদিন ধরে সরিষার তেলে পোড়া মবিল মিশিয়ে আসছিলেন আব্বাস।

সূত্র জানায়, বুধবার রাতে ভূঞাপুর পৌরসভার বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।

এ সময় পৌরসভার সামনে অবস্থিত আব্বাসের সরিষা তেল বিক্রির দোকানের গোডাউন থেকে ৪৮ ড্রাম পোড়া মবিল জব্দ করা হয়। 

আব্বাসকে এক লাখ ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী উপজেলা সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আসলাম হোসাইন। অর্থদণ্ড ছাড়াও সরিষার তেল হিসেবে বিক্রি করা ৪৮ ড্রাম পোড়া মবিল ধ্বংস করা হয়।

এর আগে মানহীন, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, ওজনে কম, খাবারে কাপড় ও বার্নিসের রঙ ব্যবহার করায় উপজেলার ৮ বেকারিকে এক লাখ ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাসরীন পারভীন।

উপজেলা সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আসলাম হোসাইন বলেন, ভেজাল সরিষার তেল বিক্রি করার দায়ে ব্যবসায়ীকে অর্থদণ্ডসহ জব্দকৃত বিপুল পরিমাণ তেল ধ্বংস করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই ওই ব্যবসায়ী সরিষার তেলে মবিল মিশিয়ে বিক্রি করছিলেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরীন বলেন, ভেজাল খাবার খেয়ে মানুষ প্রতিনিয়ত অসুস্থ হয়ে পড়ছে। ভূঞাপুরকে ভেজাল মুক্ত করার জন্যই আমাদের এ অভিযান। আর এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন