জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আ’লীগ নেতার মামলা
jugantor
জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আ’লীগ নেতার মামলা

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি  

২৪ জানুয়ারি ২০২০, ১৮:৫৬:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানুল হক সেন্টু ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার। ফাইল ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আমানুল হক সেন্টু ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আলমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে সদর মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার।

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা ও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানস্থলে হামলার জন্য দায়ী করায় এ মামলাটি করা হয়।

মামলা নথিভুক্ত হওয়ার পর রাতেই পুলিশের একটি দল জেলা শহরের ফুলবাড়িয়া এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা আমানুল হক সেন্টুর বাসভবনে অভিযান চালায়। তবে মুক্তিযোদ্ধা আমানুল হক সেন্টু বাসায় না থাকায় ফিরে যায় পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশের ওসি মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন জানান, মানহানিকর তথ্য দিয়ে প্রোপাগান্ডা সৃষ্টি করার অভিযোগ মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জেলা পরিষদ আয়োজিত মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান ও আলোচনা সভাস্থলে হামলার ঘটনায় আল মামুন সরকারকে দায়ী করে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেন আমানুল হক সেন্টু ও শফিকুল আলম। এর পরদিনই ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে আল মামুন সরকার ওই ঘটনায় তাকে জড়িয়ে বক্তব্য দেয়ার প্রতিবাদ জানান।

এরপর ২৬ ডিসেম্বর আমানুল হক সেন্টু ও শফিকুলকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকারের পক্ষে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। কোনো প্রকার সাক্ষ্য ছাড়া জনসম্মুখে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে তাদেরকে জড়িয়ে এ ধরনের বক্তব্য দেয়া হয়েছে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আ’লীগ নেতার মামলা

 ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি 
২৪ জানুয়ারি ২০২০, ০৬:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানুল হক সেন্টু ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার। ফাইল ছবি
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানুল হক সেন্টু ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার। ফাইল ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আমানুল হক সেন্টু ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আলমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার রাতে সদর মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার।

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা ও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানস্থলে হামলার জন্য দায়ী করায় এ মামলাটি করা হয়। 

মামলা নথিভুক্ত হওয়ার পর রাতেই পুলিশের একটি দল জেলা শহরের ফুলবাড়িয়া এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা আমানুল হক সেন্টুর বাসভবনে অভিযান চালায়। তবে মুক্তিযোদ্ধা আমানুল হক সেন্টু বাসায় না থাকায় ফিরে যায় পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশের ওসি মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন জানান, মানহানিকর তথ্য দিয়ে প্রোপাগান্ডা সৃষ্টি করার অভিযোগ মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে জেলা পরিষদ আয়োজিত মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান ও আলোচনা সভাস্থলে হামলার ঘটনায় আল মামুন সরকারকে দায়ী করে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেন আমানুল হক সেন্টু ও শফিকুল আলম। এর পরদিনই ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে আল মামুন সরকার ওই ঘটনায় তাকে জড়িয়ে বক্তব্য দেয়ার প্রতিবাদ জানান। 

এরপর ২৬ ডিসেম্বর আমানুল হক সেন্টু ও শফিকুলকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকারের পক্ষে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। কোনো প্রকার সাক্ষ্য ছাড়া জনসম্মুখে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে তাদেরকে জড়িয়ে এ ধরনের বক্তব্য দেয়া হয়েছে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন