করোনাভাইরাস শনাক্তে বাল্লা স্থলবন্দরে নেই সতর্কতা
jugantor
করোনাভাইরাস শনাক্তে বাল্লা স্থলবন্দরে নেই সতর্কতা

  চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৭ জানুয়ারি ২০২০, ১১:২৩:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাস
ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস শনাক্তে দেশের বিভিন্ন সীমান্তের স্থলবন্দরে সতর্কতা জারি করা হলে হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার বাল্লা স্থলবন্দরে নেই কোনো সতর্কতা।

এ বন্দর দিয়ে মাসে গড়ে ৩০০ লোক ভারতে আসা-যাওয়া করলেও সোমবার পর্যন্ত বন্দরে পৌঁছেনি কোনো সতর্কবার্তা। নেই কোনো পরীক্ষার ব্যবস্থা। বসানো হয়নি কোনো মেডিকেল টিমও।

ফলে সীমান্ত এলাকা চুনারুঘাট উপজেলার চার লাখ মানুষ করোনাভাইরাস আক্রান্তের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

বাল্লাস্থল শুল্কবন্দরের রেকর্ড অনুযায়ী, ওই সীমান্ত দিয়ে প্রতি মাসে গড়ে ৩০০ মানুষ ভারতে আসা-যাওয়া করেন। এ হিসাবে বছরে সাড়ে তিন হাজার মানুষ বাংলাদেশ ভারতে আসা-যাওয়া করেন। কিন্তু ভারত থেকে মানুষের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কোনো যন্ত্রপাতি কিংবা মেডিকেল টিম নেই।

সম্প্রতি চীনে করোনাভাইরাস আক্রান্তের কারণে দেশের বিভিন্ন বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরে সতর্কতা এবং মেডিকেল টিম বসানো হলেও বাল্লা স্থলবন্দরে রোববার পর্যন্ত দেয়া হয়নি কোনো সতর্কবার্তা কিংবা বসানো হয়নি কোনো মেডিকেল টিম।

ফলে এ বন্দর দিয়ে যারা দেশে প্রবেশ করছেন, তাদের কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে তা দেশে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।
বিশেষ করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে আসা ভারতীয় লোকজন আক্রান্ত হলে তা উপজেলায় এ রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এ ছাড়া এ বন্দর দিয়ে প্রতি মাসে শতাধিক রোগী ভারতে চিকিৎসার জন্য গমন করেন এবং ফেরত আসেন। ভারতে গিয়ে আক্রান্ত হলে তার মাধ্যমে এ রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন উপজেলাবাসী।

এ বিষয়ে বন্দরের দায়িত্বপ্রাপ্ত এসআই আল আমিন জানান, আমরা এ বিষয়ে কোনো সতর্কবার্তা কিংবা মেসেজ পাইনি। আমাদের কোনো মেডিকেল টিম কিংবা দেশে আসা কোনো ব্যক্তির স্বাস্থ্য বিষয়ে তথ্য লিপিবদ্ধ করার সিদ্ধান্ত জানানো হয়নি।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোজাম্মেল হোসেন জানান, করোনাভাইরাসের বিষয়ে সতর্কতা থাকা কিংবা বন্দরের কোনো মেডিকেল টিম পাঠানোর বিষয়ে এখনও আমরা কোনো নির্দেশনা পাইনি। তবে আমরা সতর্কাবস্থায় রয়েছি।

করোনাভাইরাস শনাক্তে বাল্লা স্থলবন্দরে নেই সতর্কতা

 চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৭ জানুয়ারি ২০২০, ১১:২৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
করোনাভাইরাস
ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস শনাক্তে দেশের বিভিন্ন সীমান্তের স্থলবন্দরে সতর্কতা জারি করা হলে হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার বাল্লা স্থলবন্দরে নেই কোনো সতর্কতা।

এ বন্দর দিয়ে মাসে গড়ে ৩০০ লোক ভারতে আসা-যাওয়া করলেও সোমবার পর্যন্ত বন্দরে পৌঁছেনি কোনো সতর্কবার্তা। নেই কোনো পরীক্ষার ব্যবস্থা। বসানো হয়নি কোনো মেডিকেল টিমও।

ফলে সীমান্ত এলাকা চুনারুঘাট উপজেলার চার লাখ মানুষ করোনাভাইরাস আক্রান্তের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

বাল্লাস্থল শুল্কবন্দরের রেকর্ড অনুযায়ী, ওই সীমান্ত দিয়ে প্রতি মাসে গড়ে ৩০০ মানুষ ভারতে আসা-যাওয়া করেন। এ হিসাবে বছরে সাড়ে তিন হাজার মানুষ বাংলাদেশ ভারতে আসা-যাওয়া করেন। কিন্তু ভারত থেকে মানুষের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কোনো যন্ত্রপাতি কিংবা মেডিকেল টিম নেই।

সম্প্রতি চীনে করোনাভাইরাস আক্রান্তের কারণে দেশের বিভিন্ন বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরে সতর্কতা এবং মেডিকেল টিম বসানো হলেও বাল্লা স্থলবন্দরে রোববার পর্যন্ত দেয়া হয়নি কোনো সতর্কবার্তা কিংবা বসানো হয়নি কোনো মেডিকেল টিম।

ফলে এ বন্দর দিয়ে যারা দেশে প্রবেশ করছেন, তাদের কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে তা দেশে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।
বিশেষ করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে আসা ভারতীয় লোকজন আক্রান্ত হলে তা উপজেলায় এ রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এ ছাড়া এ বন্দর দিয়ে প্রতি মাসে শতাধিক রোগী ভারতে চিকিৎসার জন্য গমন করেন এবং ফেরত আসেন। ভারতে গিয়ে আক্রান্ত হলে তার মাধ্যমে এ রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন উপজেলাবাসী।

এ বিষয়ে বন্দরের দায়িত্বপ্রাপ্ত এসআই আল আমিন জানান, আমরা এ বিষয়ে কোনো সতর্কবার্তা কিংবা মেসেজ পাইনি। আমাদের কোনো মেডিকেল টিম কিংবা দেশে আসা কোনো ব্যক্তির স্বাস্থ্য বিষয়ে তথ্য লিপিবদ্ধ করার সিদ্ধান্ত জানানো হয়নি।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোজাম্মেল হোসেন জানান, করোনাভাইরাসের বিষয়ে সতর্কতা থাকা কিংবা বন্দরের কোনো মেডিকেল টিম পাঠানোর বিষয়ে এখনও আমরা কোনো নির্দেশনা পাইনি। তবে আমরা সতর্কাবস্থায় রয়েছি।