লালমনিরহাটে বাজার করতে গিয়ে নিখোঁজ স্বামীকে পেলেন ১০ বছর পর!
jugantor
লালমনিরহাটে বাজার করতে গিয়ে নিখোঁজ স্বামীকে পেলেন ১০ বছর পর!

  কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি  

০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০১:১৯:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বামীকে স্ত্রীর হাতে তুলে দেয় হারাগাছ মেট্রোপুলিস
স্বামীকে স্ত্রীর হাতে তুলে দেয় হারাগাছ মেট্রোপুলিস

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার খারুভাজ গ্রামের বাড়ি থেকে বাজার করতে গিয়ে প্রায় ১০ বছর আগে নিখোঁজ হন সিদ্দিক হোসেন।

তাকে নিকট আত্মীয় স্বজনসহ বিভিন্ন এলাকায় খোঁজাখুঁজি করে তাকে না পেয়ে পরিবারের লোকজন এক রকম আশাই ছেড়ে দেন।

গত ৬ দিন পূর্বে সিদ্দিক মিয়া হারাগাছ মেট্রো থানার বাহার কাছনা এলাকায় অসুস্থ অবস্থায় রাস্তার ধারে বসে থাকতে দেখেন ওই এলাকার বাসিন্দা জাহেদুল ইসলাম। তাকে তার নাম বাড়ির ঠিকানা জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে কিছুই বলতে পারেনি।

পরে তিনি তাকে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করান। এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তির পরামর্শে হারাগাছ থানায় জিডি করে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বৃদ্ধ সিদ্দিক হোসেনের ছবি পোস্ট করেন।

এরই মধ্য ফেসবুকে ছবি দেখে এবং পুলিশ বিভিন্ন থানায় বার্তা প্রেরণের কারণে তাকে চিনতে পারেন স্ত্রী রশিদা বেগম ও কন্যা শিরিনা বেগম।

পরে তারা থানায় যোগাযোগ করলে হারাগাছ মেট্রোপুলিস প্রেস ব্রিফিং করে সবার উপস্থিতে বৃদ্ধ সিদ্দিক হোসেনকে গত বৃহস্পতিবার বিকালে রশিদা বেগমের কাছে তুলে দেন।

এদিকে হারিয়ে যাওয়া স্বামীকে খুঁজে পাওয়ায় থানা এলাকায় এক অন্যরকম দৃশ্যের অবতারণা হয়। কিছু সময় দুজন দুজনার দিকে হতবাক হয়ে চেয়ে থাকে।

রশিদা বেগম জানান, ১০ বছর আগে তার স্বামী খারুভাজ গ্রামের বাড়ি থেকে বাজার করতে যান। পরে তিনি আর বাড়ি ফিরে যাননি। তখন থেকেই তিনি নিখোঁজ হন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি ক্রাইম) কাজী মোস্তাকি ইবনু মিনান, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার মাহিগঞ্জ জোন ফারুক আহমেদ, হারাগাছ থানার ওসি রেজাউল করীমসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

লালমনিরহাটে বাজার করতে গিয়ে নিখোঁজ স্বামীকে পেলেন ১০ বছর পর!

 কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি 
০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০১:১৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
স্বামীকে স্ত্রীর হাতে তুলে দেয় হারাগাছ মেট্রোপুলিস
স্বামীকে স্ত্রীর হাতে তুলে দেয় হারাগাছ মেট্রোপুলিস

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার খারুভাজ গ্রামের বাড়ি থেকে বাজার করতে গিয়ে প্রায় ১০ বছর আগে নিখোঁজ হন সিদ্দিক হোসেন।

তাকে নিকট আত্মীয় স্বজনসহ বিভিন্ন এলাকায় খোঁজাখুঁজি করে তাকে না পেয়ে পরিবারের লোকজন এক রকম আশাই ছেড়ে দেন।

গত ৬ দিন পূর্বে সিদ্দিক মিয়া হারাগাছ মেট্রো থানার বাহার কাছনা এলাকায় অসুস্থ অবস্থায় রাস্তার ধারে বসে থাকতে দেখেন ওই এলাকার বাসিন্দা জাহেদুল ইসলাম। তাকে তার নাম বাড়ির ঠিকানা জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে কিছুই বলতে পারেনি।

পরে তিনি তাকে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করান। এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তির পরামর্শে হারাগাছ থানায় জিডি করে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বৃদ্ধ সিদ্দিক হোসেনের ছবি পোস্ট করেন।

এরই মধ্য ফেসবুকে ছবি দেখে এবং পুলিশ বিভিন্ন থানায় বার্তা প্রেরণের কারণে তাকে চিনতে পারেন স্ত্রী রশিদা বেগম ও কন্যা শিরিনা বেগম।

পরে তারা থানায় যোগাযোগ করলে হারাগাছ মেট্রোপুলিস প্রেস ব্রিফিং করে সবার উপস্থিতে বৃদ্ধ সিদ্দিক হোসেনকে গত বৃহস্পতিবার বিকালে রশিদা বেগমের কাছে তুলে দেন।

এদিকে হারিয়ে যাওয়া স্বামীকে খুঁজে পাওয়ায় থানা এলাকায় এক অন্যরকম দৃশ্যের অবতারণা হয়। কিছু সময় দুজন দুজনার দিকে হতবাক হয়ে চেয়ে থাকে।

রশিদা বেগম জানান, ১০ বছর আগে তার স্বামী খারুভাজ গ্রামের বাড়ি থেকে বাজার করতে যান। পরে তিনি আর বাড়ি ফিরে যাননি। তখন থেকেই তিনি নিখোঁজ হন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি ক্রাইম) কাজী মোস্তাকি ইবনু মিনান, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার মাহিগঞ্জ জোন ফারুক আহমেদ, হারাগাছ থানার ওসি রেজাউল করীমসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।