জামালপুরে শ্বশুরবাড়ি থেকে আসার পথে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা
jugantor
জামালপুরে শ্বশুরবাড়ি থেকে আসার পথে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা

  দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি  

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:৩৩:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বামী শহিদুর রহমান

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে শ্বশুরবাড়ি থেকে আসার পথে বোরোক্ষেতের কাঁদা মাটিতে মাথা ঠেসে ধরে শ্বাসরোধে হথ্যার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার রাতে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার পাররামরামপুর ইউনিয়নে তারাটিয়া ভাতখাওয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মোর্শেদা (৩৫) উপজেলার তারাটিয়া পাইকপাড়া গ্রামের ধেন্দা মিয়ার ছেলে শহিদুর রহমানের (৪০) স্ত্রী। তিনি একই ইউনিয়নের দক্ষিণ ভাতখাওয়া গ্রামের মুনতাজ আলীর মেয়ে। শহিদুর স্থানীয় সড়কে টোল আদায় করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রায় ২০ বছর আগে শহিদুর রহমানের সঙ্গে মোর্শেদার বিয়ে হয়। তাদের স্কুল পড়ুয়া এক মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে। ঘটনার দিন বুধবার সন্ধ্যায় শহিদুর রহমান তার স্ত্রী মুর্শেদাকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি যান। রাতে শ্বশুরবাড়ি থেকে খাওয়া-দাওয়া শেষে রাত ১০টার দিকে নিজ বাড়ির উদ্দেশে মোটরসাইকেলে রওনা হন।

মাঝপথে উত্তর ভাতখাওয়া ফাকা স্থানে ধান ক্ষেতে নিয়ে বোরোক্ষেতের কাঁদা মাটিতে মাথা ঠেসে ধরে শ্বাসরোধ করেন তিনি। কিছু সময় পর মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মুর্শেদা নিহত হয় বলে শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে সংবাদ দেন শহিদুর রহমান।

ঘটনাস্থলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন এলে তাদের সন্দেহ হওয়ায় পুলিশকে সংবাদ দিলে রাতেই শহিদুরকে আটক করে পুলিশ।

নিহতের পিতা মুনতাজ ও চাচা রবিউল জানান, শহিদুর নারী লোভী। তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে পারিবারিকভাবে বেশ কয়েকবার শালিশ বৈঠক হয়।

নিহতের ৮ম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়ে বৃষ্টি আক্তার জানান. আব্বা চাচিসহ অন্য নারীদের হাটবাজার করে দিত। আব্বু-আম্মুর মধ্যে এ নিয়ে প্রায় ঝগড়া হত।

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার ওসি এমএম ময়নুল ইসলাম জানান. লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। নিহতের স্বামী শহিদুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। নিহতের পিতা মুনতাজ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

জামালপুরে শ্বশুরবাড়ি থেকে আসার পথে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা

 দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি 
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৮:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
স্বামী শহিদুর রহমান
স্বামী শহিদুর রহমান। ছবি: সংগৃহীত

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে শ্বশুরবাড়ি থেকে আসার পথে বোরোক্ষেতের কাঁদা মাটিতে মাথা ঠেসে ধরে শ্বাসরোধে হথ্যার অভিযোগ উঠেছে। 

বুধবার রাতে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার পাররামরামপুর ইউনিয়নে তারাটিয়া ভাতখাওয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহত মোর্শেদা (৩৫) উপজেলার তারাটিয়া পাইকপাড়া গ্রামের ধেন্দা মিয়ার ছেলে শহিদুর রহমানের (৪০) স্ত্রী। তিনি একই ইউনিয়নের দক্ষিণ ভাতখাওয়া গ্রামের মুনতাজ আলীর মেয়ে। শহিদুর স্থানীয় সড়কে টোল আদায় করেন। 

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রায় ২০ বছর আগে শহিদুর রহমানের সঙ্গে মোর্শেদার বিয়ে হয়। তাদের স্কুল পড়ুয়া এক মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে। ঘটনার দিন বুধবার সন্ধ্যায় শহিদুর রহমান তার স্ত্রী মুর্শেদাকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি যান। রাতে শ্বশুরবাড়ি থেকে খাওয়া-দাওয়া শেষে রাত ১০টার দিকে নিজ বাড়ির উদ্দেশে মোটরসাইকেলে রওনা হন। 

মাঝপথে উত্তর ভাতখাওয়া ফাকা স্থানে ধান ক্ষেতে নিয়ে বোরোক্ষেতের কাঁদা মাটিতে মাথা ঠেসে ধরে শ্বাসরোধ করেন তিনি। কিছু সময় পর মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মুর্শেদা নিহত হয় বলে শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে সংবাদ দেন শহিদুর রহমান। 

ঘটনাস্থলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন এলে তাদের সন্দেহ হওয়ায় পুলিশকে সংবাদ দিলে রাতেই শহিদুরকে আটক করে পুলিশ। 

নিহতের পিতা মুনতাজ ও চাচা রবিউল জানান, শহিদুর নারী লোভী। তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে পারিবারিকভাবে বেশ কয়েকবার শালিশ বৈঠক হয়। 

নিহতের ৮ম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়ে বৃষ্টি আক্তার জানান. আব্বা চাচিসহ অন্য নারীদের হাটবাজার করে দিত। আব্বু-আম্মুর মধ্যে এ নিয়ে প্রায় ঝগড়া হত। 

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার ওসি এমএম ময়নুল ইসলাম জানান. লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। নিহতের স্বামী শহিদুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। নিহতের পিতা মুনতাজ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন