চুরির টাকা নিয়ে আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১০
jugantor
চুরির টাকা নিয়ে আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১০

  ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২২:২১:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

সংঘর্ষ

ঢাকার ধামরাইয়ে চুরির টাকা নিয়ে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় ১০ জন আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের ধানতারা বাজারে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ধানতারা বাজারের তেল ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হকের তেলের ডিপোর ক্যাশ বাক্স থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা চুরি হয়। এ সময় স্থানীয় জনতা ওই তেলের ডিপোর পেছনে একটি পরিত্যক্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে আশুলিয়া এলাকার আব্দুর রশিদ নামে এক যুবককে আটক করে।

এরপর তাকে উপর্যুপরি গণধোলাই দেয়ার পর সে টাকা চুরির ঘটনা স্বীকার করে জানায়, তার কাছে ৫৫ হাজার টাকা রয়েছে আর অবশিষ্ট টাকা নিয়ে তার অন্য সহযোগীরা আশুলিয়া এলাকায় চলে গেছে।

পরবর্তীকালে বিকাশের মাধ্যমে অবশিষ্ট টাকা আনা হয়। উদ্ধার হওয়া চুরির টাকা যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মজিদ নিজের হেফাজতে নিতে চান। কিন্তু স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো. আবুল বাসার বাদশা মিয়া এতে বাধা প্রদান করে তা নিজের হেফাজতে নিতে চান। এ নিয়ে ওই দুই নেতা ও তাদের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসীর হস্তক্ষেপে প্রথম পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা শেষ হলেও আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আব্দুল মজিদের ছেলে মো. রিয়াজ ও তার সহযোগিরা দ্বিতীয় দফায় আবুল বাসার বাদশা মিয়া ও তার লোকজনের ওপর হামলা চালায় বলে স্থানীয় লোকজন ও ব্যবসায়ীরা জানান। আত্মরক্ষার্থে আবুল বাসার বাদশা ও তার লোকজনও পাল্টা হামলা করে।

এতে দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ১০ জন আহত হন। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতাল ও প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আব্দুল মজিদ, আবুল বাসার বাদশা ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানা গেছে।

আব্দুল মজিদ বলেন, ধানতারা বাজারের তেল ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হকের তেলের ডিপোর ক্যাশ থেকে সকালে ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা চুরি হলে বিষয়টি আমাদের তিনি জানান। আমরা সঙ্গে সঙ্গে চোরদের একজনকে আটক করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা উদ্ধার করি।

বিষয়টি পরবর্তীকালে এক জায়গায় বসে সুরাহা করার কথা জানানো মাত্রই তেলে-বেগুনে জ্বলে উঠেন আবুল বাসার বাদশা মিয়া। সে উদ্ধারকৃত টাকা নিজের কাছে নিতে চাইলে এই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। আমি বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।

তেল ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হক বলেন, টাকা চুরি হলে সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয়দের জানাই। তারা দ্রুত তল্লাশি চালিয়ে এক চোরকে আটক ও চুরি যাওয়া টাকা উদ্ধার করে। পরে নেতাদের মধ্যে এ নিয়ে বিবাদ বাধে। নেতারা এ ব্যাপারে যা করবেন তার বিপক্ষে আমার কোনো অভিমত নেই।

ধামরাই থানার ওসি অপারেশন মো. মাসুদুর রহমান বলেন, যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আব্দুল মজিদের একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্তসাপেক্ষে এ ব্যাপারে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

চুরির টাকা নিয়ে আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১০

 ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সংঘর্ষ
সংঘর্ষ। প্রতীকী ছবি

ঢাকার ধামরাইয়ে চুরির টাকা নিয়ে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় ১০ জন আহত হয়েছেন। 

বৃহস্পতিবার উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের ধানতারা বাজারে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।  

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ধানতারা বাজারের তেল ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হকের তেলের ডিপোর ক্যাশ বাক্স থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা চুরি হয়। এ সময় স্থানীয় জনতা ওই তেলের ডিপোর পেছনে একটি পরিত্যক্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে আশুলিয়া এলাকার আব্দুর রশিদ নামে এক যুবককে আটক করে। 

এরপর তাকে উপর্যুপরি গণধোলাই দেয়ার পর সে টাকা চুরির ঘটনা স্বীকার করে জানায়, তার কাছে ৫৫ হাজার টাকা রয়েছে আর অবশিষ্ট টাকা নিয়ে তার অন্য সহযোগীরা আশুলিয়া এলাকায় চলে গেছে। 

পরবর্তীকালে বিকাশের মাধ্যমে অবশিষ্ট টাকা আনা হয়। উদ্ধার হওয়া চুরির টাকা যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মজিদ নিজের হেফাজতে নিতে চান। কিন্তু স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মো. আবুল বাসার বাদশা মিয়া এতে বাধা প্রদান করে তা নিজের হেফাজতে নিতে চান। এ নিয়ে ওই দুই নেতা ও তাদের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। 

এলাকাবাসীর হস্তক্ষেপে প্রথম পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা শেষ হলেও আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আব্দুল মজিদের ছেলে মো. রিয়াজ ও তার সহযোগিরা দ্বিতীয় দফায় আবুল বাসার বাদশা মিয়া ও তার লোকজনের ওপর হামলা চালায় বলে স্থানীয় লোকজন ও ব্যবসায়ীরা জানান। আত্মরক্ষার্থে আবুল বাসার বাদশা ও তার লোকজনও পাল্টা হামলা করে।

এতে দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ১০ জন আহত হন। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতাল ও প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। 

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আব্দুল মজিদ, আবুল বাসার বাদশা ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানা গেছে। 

আব্দুল মজিদ বলেন, ধানতারা বাজারের তেল ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হকের তেলের ডিপোর ক্যাশ থেকে সকালে ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা চুরি হলে বিষয়টি আমাদের তিনি জানান। আমরা সঙ্গে সঙ্গে চোরদের একজনকে আটক করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা উদ্ধার করি। 

বিষয়টি পরবর্তীকালে এক জায়গায় বসে সুরাহা করার কথা জানানো মাত্রই তেলে-বেগুনে জ্বলে উঠেন আবুল বাসার বাদশা মিয়া। সে উদ্ধারকৃত টাকা নিজের কাছে নিতে চাইলে এই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। আমি বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।

তেল ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হক বলেন, টাকা চুরি হলে সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয়দের জানাই। তারা দ্রুত তল্লাশি চালিয়ে এক চোরকে আটক ও চুরি যাওয়া টাকা উদ্ধার করে। পরে নেতাদের মধ্যে এ নিয়ে বিবাদ বাধে। নেতারা এ ব্যাপারে যা করবেন তার বিপক্ষে আমার কোনো অভিমত নেই।

ধামরাই থানার ওসি অপারেশন মো. মাসুদুর রহমান বলেন, যাদবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আব্দুল মজিদের একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্তসাপেক্ষে এ ব্যাপারে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন