নান্দাইলে মাদ্রাসার জমিতে দোকান তোলার অভিযোগে হামলা-ভাংচুর
jugantor
নান্দাইলে মাদ্রাসার জমিতে দোকান তোলার অভিযোগে হামলা-ভাংচুর

  নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০৩ মার্চ ২০২০, ২২:২৪:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের নান্দাইলে মাদ্রাসার জমিতে দোকান তোলার অভিযোগে হামলা-ভাংচুর চালিয়েছে শিক্ষার্থীরা।মঙ্গলবার (৩ মার্চ) মাদ্রাসা চলাকালীন সময়ে মাদ্রাসার জমি দাবি করে কালিগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী ও নান্দাইল প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহযোগী সদস্য বেলাল হোসেনের দোকানপাটে হামলা ও ভাংচুর করা হয় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, নান্দাইল উপজেলার কালিগঞ্জ বাবুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এনামুল হক লিমন ও সুপার আব্দুস সালাম ৩০/৩৫জন ছাত্রদের দিয়ে এ হামলা-ভাংচুর করান।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, কালিগঞ্জ বাজারের নিকট রাস্তা সংলগ্ন অত্র মাদ্রাসা ভবনের পশ্চিম পার্শ্বে বেলাল হোসেনের মা-মণি ডেকোরেটারের দোকানের টিনের চাল-বেড়া, ইট-সিমেন্টের পিলার ও ডেকোরেটারের বাঁশ ভাঙ্গাছোড়া অবস্থায় দোকানের পাশেই পড়ে রয়েছে।

এ বিষয়ে বেলাল হোসেনের পুত্র রমিজ উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, ‘আমি ও আমার বৃদ্ধ বাবা ভাংচুরে বাধা প্রদান করতে গেলে মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির লোকজন আমাদের প্রহার এবং দোকানের জেনারেটর মেশিন ভাংচুরসহ প্রায় লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করে।’

দোকানের মালিক বেলাল হোসেন জানান, ‘আমার পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত জায়গা মাদ্রাসার নাম ভাঙ্গিয়ে তারা জোরপূর্বক দখলে নিয়েছে।’

এদিকে মাদ্রাসার সুপার আব্দুস সালাম বলেন, মাদ্রাসার জায়গায় বেলাল হোসেন দোকানপাট তৈরি করেছেন, মাদ্রাসার স্বার্থে তা উচ্ছেদ করতে হয়েছে।’

মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এনামুল হক লিমন বলেন, ‘আমরা বারবার তাকে বলেছি দোকান তুলে নেওয়ার জন্য, তারপর বাধ্য হয়েছি।’

ছাত্রদের দিয়ে কেন ভাংচুর করিয়েছেন?-এমন প্রশ্নের জবাবে এনামুল হক লিমন বলেন, এটাই বেলাল হোসেনের উচিত ছিল। আপনরা যা পারেন তাই লিখে দেন’।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রোকন উদ্দিন ভূইয়া বলেন, ছাত্রদের দিয়ে এ ভাংচুর করানোর বিষয়টি ঠিক হয়নি। মাদ্রাসার কর্তৃপক্ষ আইনের আশ্রয় নিতে পারত।

নান্দাইলে মাদ্রাসার জমিতে দোকান তোলার অভিযোগে হামলা-ভাংচুর

 নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০৩ মার্চ ২০২০, ১০:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের নান্দাইলে মাদ্রাসার জমিতে দোকান তোলার অভিযোগে হামলা-ভাংচুর চালিয়েছে শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (৩ মার্চ) মাদ্রাসা চলাকালীন সময়ে মাদ্রাসার জমি দাবি করে কালিগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী ও নান্দাইল প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহযোগী সদস্য বেলাল হোসেনের দোকানপাটে হামলা ও ভাংচুর করা হয় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, নান্দাইল উপজেলার কালিগঞ্জ বাবুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এনামুল হক লিমন ও সুপার আব্দুস সালাম ৩০/৩৫জন ছাত্রদের দিয়ে এ হামলা-ভাংচুর করান।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, কালিগঞ্জ বাজারের নিকট রাস্তা সংলগ্ন অত্র মাদ্রাসা ভবনের পশ্চিম পার্শ্বে বেলাল হোসেনের মা-মণি ডেকোরেটারের দোকানের টিনের চাল-বেড়া, ইট-সিমেন্টের পিলার ও ডেকোরেটারের বাঁশ ভাঙ্গাছোড়া অবস্থায় দোকানের পাশেই পড়ে রয়েছে।

এ বিষয়ে বেলাল হোসেনের পুত্র রমিজ উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, ‘আমি ও আমার বৃদ্ধ বাবা ভাংচুরে বাধা প্রদান করতে গেলে মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির লোকজন আমাদের প্রহার এবং দোকানের জেনারেটর মেশিন ভাংচুরসহ প্রায় লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করে।’

দোকানের মালিক বেলাল হোসেন জানান, ‘আমার পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত জায়গা মাদ্রাসার নাম ভাঙ্গিয়ে তারা জোরপূর্বক দখলে নিয়েছে।’

এদিকে মাদ্রাসার সুপার আব্দুস সালাম বলেন, মাদ্রাসার জায়গায় বেলাল হোসেন দোকানপাট তৈরি করেছেন, মাদ্রাসার স্বার্থে তা উচ্ছেদ করতে হয়েছে।’

মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এনামুল হক লিমন বলেন, ‘আমরা বারবার তাকে বলেছি দোকান তুলে নেওয়ার জন্য, তারপর বাধ্য হয়েছি।’

ছাত্রদের দিয়ে কেন ভাংচুর করিয়েছেন?-এমন প্রশ্নের জবাবে এনামুল হক লিমন বলেন, এটাই বেলাল হোসেনের উচিত ছিল। আপনরা যা পারেন তাই লিখে দেন’।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রোকন উদ্দিন ভূইয়া বলেন, ছাত্রদের দিয়ে এ ভাংচুর করানোর বিষয়টি ঠিক হয়নি। মাদ্রাসার কর্তৃপক্ষ আইনের আশ্রয় নিতে পারত। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন