ময়মনসিংহে মুজিব কোট নিয়ে শিক্ষা অফিসারের বাণিজ্যের পাঁয়তারা
jugantor
ময়মনসিংহে মুজিব কোট নিয়ে শিক্ষা অফিসারের বাণিজ্যের পাঁয়তারা

  ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

১২ মার্চ ২০২০, ১৮:৩৭:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

মুজিব কোট

ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে মুজিব কোটের নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার পাঁয়তারার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে শিক্ষকগণের মাঝে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, তারাকান্দা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নিলুফার হাকিম মুজিব শতবর্ষ উদযাপনে সব বিদ্যালয়কে স্লিপ বরাদ্দের টাকায় তার কাছ থেকে ১২টি করে মুজিব কোট নেয়া বাধ্যতামূলক করেছেন। যার বাজার মূল্য অনধিক ৮ হাজার টাকা হলেও তিনি নিচ্ছেন ১৫ হাজার ৬০০ টাকা করে।

এতে উপজেলার ১৪১টি বিদ্যালয় থেকে প্রায় ১১ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকগণের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করলেও হয়রানীর ভয়ে কেউ মুখ খোলার সাহস পাচ্ছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিকশিক্ষক জানান, আশেপাশের অন্য কোনো উপজেলায় এ ধরনের নিয়ম না থাকলেও শিক্ষা অফিসার নিজে লাভবান হওয়ার জন্য অতি উৎসাহী হয়ে আমাদের মুজিব কোট নিতে বাধ্য করছেন।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নিলুফার হাকিম জানান, মুজিববর্ষ সুন্দরভাবে উদযাপন করতে ইউনিয়ন কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা ময়মনসিংহের বিভাগীয় উপ-পরিচালক মো. আনোয়ার হোসেন জানান, এ ধরনের কোনো নিয়ম নেই। এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ময়মনসিংহে মুজিব কোট নিয়ে শিক্ষা অফিসারের বাণিজ্যের পাঁয়তারা

 ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
১২ মার্চ ২০২০, ০৬:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মুজিব কোট
মুজিব কোট। ছবি: সংগৃহীত

ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে মুজিব কোটের নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার পাঁয়তারার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে শিক্ষকগণের মাঝে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, তারাকান্দা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নিলুফার হাকিম মুজিব শতবর্ষ উদযাপনে সব বিদ্যালয়কে স্লিপ বরাদ্দের টাকায় তার কাছ থেকে ১২টি করে মুজিব কোট নেয়া বাধ্যতামূলক করেছেন। যার বাজার মূল্য অনধিক ৮ হাজার টাকা হলেও তিনি নিচ্ছেন ১৫ হাজার ৬০০ টাকা করে। 

এতে উপজেলার ১৪১টি বিদ্যালয় থেকে প্রায় ১১ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকগণের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করলেও হয়রানীর ভয়ে কেউ মুখ খোলার সাহস পাচ্ছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক জানান, আশেপাশের অন্য কোনো উপজেলায় এ ধরনের নিয়ম না থাকলেও শিক্ষা অফিসার নিজে লাভবান হওয়ার জন্য অতি উৎসাহী হয়ে আমাদের মুজিব কোট নিতে বাধ্য করছেন। 

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নিলুফার হাকিম জানান, মুজিববর্ষ সুন্দরভাবে উদযাপন করতে ইউনিয়ন কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। 

প্রাথমিক শিক্ষা ময়মনসিংহের বিভাগীয় উপ-পরিচালক মো. আনোয়ার হোসেন জানান, এ ধরনের কোনো নিয়ম নেই। এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন