দুর্গাপুরে ইউএনওর হস্তক্ষেপে ঘুষের টাকা আদায়
jugantor
দুর্গাপুরে ইউএনওর হস্তক্ষেপে ঘুষের টাকা আদায়

  দুর্গাপুর (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি  

১৬ মার্চ ২০২০, ১৮:৩৯:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন দুর্যোগ সহনীয় ঘর দেয়ার কথা বলে কাকৈরগড়া ইউনিয়নে খনুয়া গ্রামের মফিজ উদ্দিনের কাছ থেকে ঘুষের টাকা আদায় করা হয়েছে।

সোমবার এলাকাবাসীর সামনে টাকা আদায় করেন ইউএনও ফারজানা খানম।

সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, ওই ইউনিয়নে বরাদ্দকৃত ৬টি ঘরের মধ্যে খনুয়া গ্রামের হতদরিদ্র মফিজ উদ্দিনের স্ত্রীর নামে ১টি ঘর বরাদ্দ হয়। এই সুবাদে ওই গ্রামের সিরাজ আলী মফিজ উদ্দিনের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহণ করেন। কোনো টাকা প্রদান ছাড়াই সরকারি ঘর প্রদান করা হয় মর্মে উৎকোচের টাকা নেয়ার বিষয়ে ইউএনও বরাবর আবেদন করলে সিরাজ আলীর কাছ থেকে স্থানীয় গণ্যমান্যদের উপস্থিতিতে মুচলেকাসহ ওই টাকা আদায় করেন ইউএনও ফারজানা খানম।

এ বিষয়ে ইউএনও বলেন, সরকারি কাজে কোনো প্রকার দুর্নীতি আমি প্রশ্রয় দেব না। অভিযোগ পাওয়ার পর সরেজমিন গিয়ে নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করে স্থানীয়দের উপস্থিতিতে ঘুষের টাকা আদায়সহ জীবনে এ ধরনের কোনো কাজ করবে না মর্মে মুচলেকার মাধ্যমে প্রাথমিক ক্ষমা করা হয়। সরকারি সব কাজ বাস্তবায়ন এবং এলাকা থেকে অনিয়ম ও দুর্নীতি রোধে সবাইকে এ গিয়ে আসার আহ্বান জানান।

দুর্গাপুরে ইউএনওর হস্তক্ষেপে ঘুষের টাকা আদায়

 দুর্গাপুর (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি 
১৬ মার্চ ২০২০, ০৬:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন দুর্যোগ সহনীয় ঘর দেয়ার কথা বলে কাকৈরগড়া ইউনিয়নে খনুয়া গ্রামের মফিজ উদ্দিনের কাছ থেকে ঘুষের টাকা আদায় করা হয়েছে।

সোমবার এলাকাবাসীর সামনে টাকা আদায় করেন ইউএনও ফারজানা খানম।

সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, ওই ইউনিয়নে বরাদ্দকৃত ৬টি ঘরের মধ্যে খনুয়া গ্রামের হতদরিদ্র মফিজ উদ্দিনের স্ত্রীর নামে ১টি ঘর বরাদ্দ হয়। এই সুবাদে ওই গ্রামের সিরাজ আলী মফিজ উদ্দিনের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহণ করেন। কোনো টাকা প্রদান ছাড়াই সরকারি ঘর প্রদান করা হয় মর্মে উৎকোচের টাকা নেয়ার বিষয়ে ইউএনও বরাবর আবেদন করলে সিরাজ আলীর কাছ থেকে স্থানীয় গণ্যমান্যদের উপস্থিতিতে মুচলেকাসহ ওই টাকা আদায় করেন ইউএনও ফারজানা খানম। 

এ বিষয়ে ইউএনও বলেন, সরকারি কাজে কোনো প্রকার দুর্নীতি আমি প্রশ্রয় দেব না। অভিযোগ পাওয়ার পর সরেজমিন গিয়ে নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করে স্থানীয়দের উপস্থিতিতে ঘুষের টাকা আদায়সহ জীবনে এ ধরনের কোনো কাজ করবে না মর্মে মুচলেকার মাধ্যমে প্রাথমিক ক্ষমা করা হয়। সরকারি সব কাজ বাস্তবায়ন এবং এলাকা থেকে অনিয়ম ও দুর্নীতি রোধে সবাইকে এ গিয়ে আসার আহ্বান জানান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন