নববধূ নিয়ে ঘুরে বেড়ানো সেই প্রবাসীকে খুঁজছে স্বাস্থ্য বিভাগ
jugantor
নববধূ নিয়ে ঘুরে বেড়ানো সেই প্রবাসীকে খুঁজছে স্বাস্থ্য বিভাগ

  এ টি এম নিজাম, কিশোরগঞ্জ ব্যুরো  

১৬ মার্চ ২০২০, ২৩:০৩:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

কিশোরগঞ্জে বিদেশ ফেরত সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনের পরিবর্তে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হচ্ছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের নির্দেশনার পর প্রবাসীসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহভাজনদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হচ্ছে।

এদিকে একজন সৌদি আরব ফেরত প্রবাসীকে স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন খুঁজে পাচ্ছে না।

জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার উত্তর নারান্দি গ্রামের আবুল কালামের ছেলে সৌদি প্রবাসী জীবন মিয়া ৫ মার্চ দেশে ফিরে এসে ১৩ মার্চ শুক্রবার কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ এলাকায় বিয়ে করে নববধূকে নিয়ে গোপনে ঘুরে বেড়াচ্ছেন অথবা আত্মগোপনে রয়েছেন। 

খবর পেয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন গিয়ে তার বাড়ি তালাবদ্ধ অবস্থায় পায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন তাকে খুঁজছিল বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে, সোমবার পর্যন্ত সারা জেলায় ১২৩ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে শুধুমাত্র ভৈরবেই রয়েছে ৫৮ জন। এ ছাড়া কিশোরগঞ্জ সদরে ৩১ জন, কুলিয়ারচরে ১০ জন ও অষ্টগ্রামে ৯ জন, মিঠামইনে ৮ জন, ইটনায় ৩ জন,কটিয়াদীতে ৩ জন, ও বাজিতপুরে ১ জন রয়েছে।

এ ছাড়া এর আগে ১২ জন ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর তাদের রিলিজ  দেয়া হয়েছে। যারা পর্যবেক্ষণে রয়েছেন, তাদের অধিকাংশই ইতালি থেকে দেশে ফিরেছেন।

কোয়ারেন্টাইনে এবং পর্যবেক্ষণে থাকা এসব লোকজনের বেশির ভাগই ইতালি, চীন, কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, সৌদি আরব, সিরিয়া ফেরত প্রবাসী বলে জানা গেছে।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি।

নববধূ নিয়ে ঘুরে বেড়ানো সেই প্রবাসীকে খুঁজছে স্বাস্থ্য বিভাগ

 এ টি এম নিজাম, কিশোরগঞ্জ ব্যুরো 
১৬ মার্চ ২০২০, ১১:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কিশোরগঞ্জে বিদেশ ফেরত সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনের পরিবর্তে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হচ্ছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের নির্দেশনার পর প্রবাসীসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহভাজনদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হচ্ছে।

এদিকে একজন সৌদি আরব ফেরত প্রবাসীকে স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন খুঁজে পাচ্ছে না।

জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার উত্তর নারান্দি গ্রামের আবুল কালামের ছেলে সৌদি প্রবাসী জীবন মিয়া ৫ মার্চ দেশে ফিরে এসে ১৩ মার্চ শুক্রবার কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ এলাকায় বিয়ে করে নববধূকে নিয়ে গোপনে ঘুরে বেড়াচ্ছেন অথবা আত্মগোপনে রয়েছেন।

খবর পেয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন গিয়ে তার বাড়ি তালাবদ্ধ অবস্থায় পায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন তাকে খুঁজছিল বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে, সোমবার পর্যন্ত সারা জেলায় ১২৩ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে শুধুমাত্র ভৈরবেই রয়েছে ৫৮ জন। এ ছাড়া কিশোরগঞ্জ সদরে ৩১ জন, কুলিয়ারচরে ১০ জন ও অষ্টগ্রামে ৯ জন, মিঠামইনে ৮ জন, ইটনায় ৩ জন,কটিয়াদীতে ৩ জন, ও বাজিতপুরে ১ জন রয়েছে।

এ ছাড়া এর আগে ১২ জন ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর তাদের রিলিজ দেয়া হয়েছে। যারা পর্যবেক্ষণে রয়েছেন, তাদের অধিকাংশই ইতালি থেকে দেশে ফিরেছেন।

কোয়ারেন্টাইনে এবং পর্যবেক্ষণে থাকা এসব লোকজনের বেশির ভাগই ইতালি, চীন, কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, সৌদি আরব, সিরিয়া ফেরত প্রবাসী বলে জানা গেছে।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি।