আমতলীতে পুলিশ পরিদর্শকের কক্ষে যুবকের ঝুলন্ত লাশ
jugantor
আমতলীতে পুলিশ পরিদর্শকের কক্ষে যুবকের ঝুলন্ত লাশ

  যুগান্তর রিপোর্ট ও আমতলী প্রতিনিধি  

২৬ মার্চ ২০২০, ১৫:৫৬:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

শানু হাওলাদারের (ইনসেটে) পরিবারের আহাজারি
শানু হাওলাদারের (ইনসেটে) পরিবারের আহাজারি

বরগুনার আমতলী থানার পুলিশ পরিদর্শকের (তদন্ত) কক্ষ থেকে এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। 

শানু হাওলাদার নামের ওই যুবককে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে আটক করা হয়েছিল। 

বৃহস্পতিবার সকালে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রির কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

শানু হাওলাদার আমতলী উপজেলার পশ্চিম কলাগাছিয়া গ্রামের হযরত আলীর ছেলে।

শানুর পরিবারের অভিযোগ, বুধবার রাতে হত্যার পর তার লাশ ওই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি ও ডিউটি অফিসার এএসআই মো. আরিফুর রহমান ঝুলিয়ে রাখেন। 

এ ঘটনায় বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন বৃহস্পতিবার সকালে অভিযুক্ত দুই পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন। একইসঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমেদকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হেড কোয়ার্টার মহররম ও সহকারী পুলিশ সুপার আমতলী তালতলী সার্কেল মো. রবিউল ইসলাম।

শানুর পরিবার জানায়, তাকে আমতলী থানার পুলিশ সোমবার রাতে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি হিসাবে আটক করে। তাকে আটকে রেখে দফায় দফায় নির্যাতন করে পুলিশ।

বুধবার রাতে পুলিশের নির্যাতনে শানু মারা গেলে ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা গলায় রশি লাগিয়ে পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রীর কক্ষে ঝুলিয়ে রাখে।

নিহত শানুর স্ত্রী ঝরনা বেগমের অভিযোগ, তার স্বামীকে সোমবার রাতে বাড়ি থেকে আটক করে আমতলী থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঝরনা থানায় স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে গেলে তার কাছে তিন লাখ টাকা দাবি করে পুলিশ। পরে ১০ হাজার টাকা দেন ঝরনা। 

ঝরনার অভিযোগ, বুধবার রাতে তার স্বামীকে নির্যাতন করে মেরে মনোরঞ্জন মিস্ত্রীর কক্ষে রশি দিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়। 

আমতলী থানার ওসি আবুল বাশার জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আমতলীতে পুলিশ পরিদর্শকের কক্ষে যুবকের ঝুলন্ত লাশ

 যুগান্তর রিপোর্ট ও আমতলী প্রতিনিধি 
২৬ মার্চ ২০২০, ০৩:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শানু হাওলাদারের (ইনসেটে) পরিবারের আহাজারি
শানু হাওলাদারের (ইনসেটে) পরিবারের আহাজারি

বরগুনার আমতলী থানার পুলিশ পরিদর্শকের (তদন্ত) কক্ষ থেকে এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

শানু হাওলাদার নামের ওই যুবককে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে আটক করা হয়েছিল।

বৃহস্পতিবার সকালে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রির কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

শানু হাওলাদার আমতলী উপজেলার পশ্চিম কলাগাছিয়া গ্রামের হযরত আলীর ছেলে।

শানুর পরিবারের অভিযোগ, বুধবার রাতে হত্যার পর তার লাশ ওই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি ও ডিউটি অফিসার এএসআই মো. আরিফুর রহমান ঝুলিয়ে রাখেন।

এ ঘটনায় বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন বৃহস্পতিবার সকালে অভিযুক্ত দুই পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন। একইসঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমেদকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হেড কোয়ার্টার মহররম ও সহকারী পুলিশ সুপার আমতলী তালতলী সার্কেল মো. রবিউল ইসলাম।

শানুর পরিবার জানায়, তাকে আমতলী থানার পুলিশ সোমবার রাতে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি হিসাবে আটক করে। তাকে আটকে রেখে দফায় দফায় নির্যাতন করে পুলিশ।

বুধবার রাতে পুলিশের নির্যাতনে শানু মারা গেলে ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা গলায় রশি লাগিয়ে পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রীর কক্ষে ঝুলিয়ে রাখে।

নিহত শানুর স্ত্রী ঝরনা বেগমের অভিযোগ, তার স্বামীকে সোমবার রাতে বাড়ি থেকে আটক করে আমতলী থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঝরনা থানায় স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে গেলে তার কাছে তিন লাখ টাকা দাবি করে পুলিশ। পরে ১০ হাজার টাকা দেন ঝরনা।

ঝরনার অভিযোগ, বুধবার রাতে তার স্বামীকে নির্যাতন করে মেরে মনোরঞ্জন মিস্ত্রীর কক্ষে রশি দিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়।

আমতলী থানার ওসি আবুল বাশার জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন