কৃষকের ২ একর জমির ধান কেটে দিলেন এমপি তৌফিক

  কিশোরগঞ্জ ব্যুরো ০৮ এপ্রিল ২০২০, ১৯:০৮:১৮ | অনলাইন সংস্করণ

ধান কাটছেন রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। ছবি: যুগান্তর

করোনাভাইরাস সংক্রমণ আতঙ্কে হাওরে ধান কাটার শ্রমিক না পেয়ে দিশেহারা হয়ে উঠছিলেন বোরো চাষীরা। এমন পরিস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে অসহায় কৃষকদের ধান কেটে দিচ্ছেন কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা, মিঠামইন,অষ্টগ্রাম) আসনের এমপি রাষ্ট্রপতিপুত্র রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক।

বুধবার সকালে এমপি তৌফিক ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে উপজেলার ঢাকী ইউনিয়নের পূর্বহাটির বড়বান্দ হাওরে যান। সেখানে মামুনুর রশীদ নামে এক কৃষকের পৌনে দুই একর জমির পাকা ধান কেটে দেন তিনি।

এমপি তৌফিকের নেতৃত্বে হাওরের বোরো চাষীদের পাকা ধান কেটে দেয়ার ঘটনা দিশেহারা ও অসহায় কৃষকদের মধ্যে আশার সঞ্চার করেছে।

কৃষক মামুনুর রশীদ বলেন, প্রতি বছর এ সময় হাওরে বোরো ধান কাটতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে হাজার হাজার ধান কাটার কৃষি শ্রমিক আসে। কিন্তু করোনা সংক্রমণ আতঙ্ক এবং যানবাহন বন্ধ থাকায় কোনো শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। এ সব ভেবে যখন তিনি দিশেহারা, তখন তাকে তাক লাগিয়ে দিয়ে এমপি তৌফিক হাজির হলেন তার ক্ষেতের পাকা ধান কেটে দিতে। এ ঘটনা স্বপ্নের মতো মনে হচ্ছিল।

এর আগে এমপি তৌফিক সোমবার রাতে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাসের মাধ্যমে ছাত্রলীগকে সঙ্গে নিয়ে ধান কাটার বিষয়ে বলেছিলেন। এমপি তৌফিকের এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে বুধবার সকালে মিঠামইন উপজেলা থেকে তার সঙ্গে ধান কেটে দেয়ার কাজ শুরু করল ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা।

রাষ্ট্রপতি পুত্র রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক এমপি জানান, এই ঘোর সংকট মোকাবেলায় তিনি অনন্যোপায় হয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের তার সঙ্গে ধান কাটার কাজে অংশ নেয়ার আহ্বান জানান।

আর এ আহ্বান অনেকটা জাদুমন্ত্রের মতো কাজ করে। তাৎক্ষণিকভাবে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা নিজ নিজ ফেসবুক ওয়ালে পোস্ট দিয়ে আনন্দের সঙ্গে সাড়া দেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত