নেত্রকোনায় বাবার পেতে রাখা ফাঁদে প্রাণ গেল ছেলের
jugantor
নেত্রকোনায় বাবার পেতে রাখা ফাঁদে প্রাণ গেল ছেলের

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

১৫ এপ্রিল ২০২০, ২২:৪১:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনায় বাবার পেতে রাখা ফাঁদে প্রাণ গেল ছেলের
প্রতীকী ছবি

লাউ চুরি ঠেকাতে বাবার পেতে রাখা বৈদ্যুতিক ফাঁদে প্রাণ গেল ছেলের। মঙ্গলবার মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার জারিয়ার তুতিরপাড়া গ্রামে।

নিহত সাগর মল্লিক (১৫) তুতিরপাড়া গ্রামের সাইফুল মল্লিকের ছেলে। সে ময়মনসিংহের রাঘবপুর লুৎফুর হাফিজিয়া মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র ছিল।

স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তুতিরপাড়া গ্রামের সাইফুল মল্লিক তার বাড়ির পাশে পুকুরপাড় ও সংলগ্ন খেতে লাউ চাষ করেন। লাউয়ের ফলনও এবার ভালো হয়েছে। এরই মধ্যে লাউ বিক্রি করে তিনি বেশ কিছু টাকা আয় করেন।

কিন্তু সম্প্রতি রাতের বেলায় তার পুকুরপাড় থেকে বেশ কিছু লাউ চুরি হয়ে যায়। তাই চুরি ঠেকাতে তিনি গত সোমবার রাতে লাউ গাছের পাশে বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে রাখেন। বিষয়টি তিনি পরিবারের সদস্যদের কাছেও গোপন রাখেন।

মঙ্গলবার সকালে তার ছেলে সাগর মল্লিক পুকুর পাড় থেকে লাউ তুলতে যায়। এ সময় বাবার পেতে রাখা ওই ফাঁদে ছেলে সাগর বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। বাড়ির লোকজন ও স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে সাইফুল মল্লিক জানান, লাউ চুরি ঠেকাতে আমি এই ফাঁদ পেতে ছিলাম। আমার ছেলেকেই তাতে প্রাণ হারাতে হল। আমি ভেবেছিলাম কেউ লাউ চুরি করতে এলে কারেন্টের শর্ট খেয়ে চলে যাবে। বড় ধরনের কোনো দুর্ঘটনা হবে না। আর সকাল বেলা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করে রাখা হবে। কিন্তু খেয়াল ছিল না। এই দুঃখ আমাকে সারা জীবন বয়ে বেড়াতে হবে।

পূর্বধলা থানার ওসি মোহাম্মদ তাওহীদুর রহমান বলেন, বিষয়টি শুনেছি। চোর ধরতে এভাবে মানুষ মারার বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে রাখা অন্যায়। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নেত্রকোনায় বাবার পেতে রাখা ফাঁদে প্রাণ গেল ছেলের

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
১৫ এপ্রিল ২০২০, ১০:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নেত্রকোনায় বাবার পেতে রাখা ফাঁদে প্রাণ গেল ছেলের
প্রতীকী ছবি

লাউ চুরি ঠেকাতে বাবার পেতে রাখা বৈদ্যুতিক ফাঁদে প্রাণ গেল ছেলের। মঙ্গলবার মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার জারিয়ার তুতিরপাড়া গ্রামে।

নিহত সাগর মল্লিক (১৫) তুতিরপাড়া গ্রামের সাইফুল মল্লিকের ছেলে। সে ময়মনসিংহের রাঘবপুর লুৎফুর হাফিজিয়া মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র ছিল।

স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তুতিরপাড়া গ্রামের সাইফুল মল্লিক তার বাড়ির পাশে পুকুরপাড় ও সংলগ্ন খেতে লাউ চাষ করেন। লাউয়ের ফলনও এবার ভালো হয়েছে। এরই মধ্যে লাউ বিক্রি করে তিনি বেশ কিছু টাকা আয় করেন।

কিন্তু সম্প্রতি রাতের বেলায় তার পুকুরপাড় থেকে বেশ কিছু লাউ চুরি হয়ে যায়। তাই চুরি ঠেকাতে তিনি গত সোমবার রাতে লাউ গাছের পাশে বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে রাখেন। বিষয়টি তিনি পরিবারের সদস্যদের কাছেও গোপন রাখেন।

মঙ্গলবার সকালে তার ছেলে সাগর মল্লিক পুকুর পাড় থেকে লাউ তুলতে যায়। এ সময় বাবার পেতে রাখা ওই ফাঁদে ছেলে সাগর বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। বাড়ির লোকজন ও স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে সাইফুল মল্লিক জানান, লাউ চুরি ঠেকাতে আমি এই ফাঁদ পেতে ছিলাম। আমার ছেলেকেই তাতে প্রাণ হারাতে হল। আমি ভেবেছিলাম কেউ লাউ চুরি করতে এলে কারেন্টের শর্ট খেয়ে চলে যাবে। বড় ধরনের কোনো দুর্ঘটনা হবে না। আর সকাল বেলা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করে রাখা হবে। কিন্তু খেয়াল ছিল না। এই দুঃখ আমাকে সারা জীবন বয়ে বেড়াতে হবে।

পূর্বধলা থানার ওসি মোহাম্মদ তাওহীদুর রহমান বলেন, বিষয়টি শুনেছি। চোর ধরতে এভাবে মানুষ মারার বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে রাখা অন্যায়। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।