খুলনায় চোর সন্দেহে নির্যাতন, যুবকের আত্মহত্যা

প্রকাশ : ২১ মার্চ ২০১৮, ২১:৫১ | অনলাইন সংস্করণ

  খুলনা ব্যুরো

খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলায় চুরির অপবাদে সালিশে নির্যাতনের ঘটনায় এক যুবক আত্মহত্যা করেছেন। 

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার বুনোরাবাদে এ ঘটনা ঘটেছে। আত্মহননকারী ওই যুবকের নাম হিরামন রায়। সালিশে চোর অপবাদ দিয়ে প্রকাশ্যে নির্যাতনের ঘটনা সইতে না পেরে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে পরিবারের লোকজন দাবি করেছেন। 

হিরামনের মামা শচীন রায় জানান, সপ্তাহখানেক আগে এলাকায় ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আর্থিক সাহায্য আদায় করতে হিরামনসহ একই এলাকার কয়েকজন যুবক বিভিন্ন বাড়িতে যায়। এ সময় স্থানীয় বিপ্রদাস মণ্ডলের বাড়ি থেকে সাহায্য নিয়ে ফেরার পর তার স্ত্রী মোবাইল ফোন খোয়া যাওয়ার অভিযোগ তোলেন। এরপর তারা সন্দেহের আঙুল তোলেন হিরামনের দিকে। এর এক সপ্তাহ পর স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহীন শেখের কাছে নালিশ করেন। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে স্থানীয় প্রাইমারি স্কুল চত্বরে লোকজন নিয়ে সালিশ ডাকেন ওই ইউপি সদস্য।  বৈঠকে হিরামনকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

এ সময় হিরামনের বাবা চিত্তরঞ্জন রায় রাগে-ক্ষোভে তাকে চড় মারেন। এছাড়াও ইউনিয়নের গ্রামপুলিশ ঠাকুর দাশ মণ্ডল স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহীন শেখের নির্দেশে হিরামনকে বেদম মারপিট করেন।  চুরির অপবাদ এবং মারপিটের ঘটনায় অপমানে সেখান থেকে বের হয়ে ওই রাতেই বিলের মধ্যে একটি গাছের সঙ্গে গলায় গামছা পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন হিরামন রায়। 

ইউপি মেম্বার শাহিন শেখ বলেন, তাকে মারধর করা হয়নি। হিরামনের বাবা তাকে কয়েকটি চড় মারেন। এরপর সে সেখান থেকে উঠে গিয়ে আত্মহত্যা করেছে। 

গ্রামপুলিশ ঠাকুর দাশ মণ্ডল বলেন, ‘সালিশে স্থানীয় দশজনের কথায় শাসন করতে তাকে ছোট করে চড় মেরেছি।  এর বাইরে আর কিছু হয়নি।’ 

বটিয়াঘাটা থানার ওসি মোজাম্মেল হক মামুন বলেন, বুনোরাবাদ এলাকায় একজন আত্মহত্যা করেছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে।  এ বিষয় নিয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করেননি।