ঠাকুরগাঁওয়ে ত্রাণের পচা চাল দেয়ার অভিযোগ, সংঘর্ষ
jugantor
ঠাকুরগাঁওয়ে ত্রাণের পচা চাল দেয়ার অভিযোগ, সংঘর্ষ

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি  

২৭ এপ্রিল ২০২০, ২০:২৩:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ঠাকুরগাঁওয়ের সদরে কর্মহীনদের মাঝে ত্রাণের পচা চাল দেয়ার প্রতিবাদে দু’গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহতের খবর মেলেনি।

সোমবার দুপুরে সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের বানিয়াপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ওই গ্রামের গণেশ দত্ত অভিযোগ করে বলেন, এলাকার কর্মহীন অনেক মানুষ এখনও সরকারি ত্রাণ সুবিধা পায়নি। ত্রাণ বঞ্চিত হতদরিদ্র মানুষকে খাদ্য সহায়তার জন্য মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য গোলাম রব্বানী তার ৫ ভাইসহ স্থানীয় বিত্তবানদের কাছ থেকে ৬৫ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করেন।

তবে সেই টাকা বাঁচিয়ে খাওয়ার অনুপযোগী চাল কিনেন রব্বানী। রোববার এসব চাল কিনে কয়েকটি গ্রামের কর্মহীন ৩৬২ জনকে ৫ কেজি করে দেয়া হয়। কিন্তু ওই চাল নিয়ে রাতে ভাত রান্না করলে দুর্গন্ধের কারণে কেউ খেতে পারেনি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

ওই গ্রামে আবুল কাশেম ও সুকুমার কর্মকার অভিযোগ করে বলেন, যে চাল তাদের দেয়া হয়েছে তা রান্না করে মুখে দেয়া যায় না।

সোমবার বানিয়াপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে দরিদ্র কর্মহীনরা ওই চাল ফেরত দিতে আসেন। তা জানতে পেরে ওই ইউপি সদস্যের সমর্থক ও কর্মীবাহিনী চাল ফেরত দিতে আসা মানুষের উপর চড়াও হয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য গোলাম রব্বানী বলেন, গণেশ দত্ত আমার বিরুদ্ধে ভোটে দাঁড়িয়েছিল। সে উদ্দেশ্যমূলক এ ঘটনা ঘটায়। তা ছাড়া চাল কেনার সময় দেখিনি।

ঠাকুরগাঁওয়ে ত্রাণের পচা চাল দেয়ার অভিযোগ, সংঘর্ষ

 ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি 
২৭ এপ্রিল ২০২০, ০৮:২৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঠাকুরগাঁওয়ের সদরে কর্মহীনদের মাঝে ত্রাণের পচা চাল দেয়ার প্রতিবাদে দু’গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহতের খবর মেলেনি।

সোমবার দুপুরে সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের বানিয়াপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

ওই গ্রামের গণেশ দত্ত অভিযোগ করে বলেন, এলাকার কর্মহীন অনেক মানুষ এখনও সরকারি ত্রাণ সুবিধা পায়নি। ত্রাণ বঞ্চিত হতদরিদ্র মানুষকে খাদ্য সহায়তার জন্য মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য গোলাম রব্বানী তার ৫ ভাইসহ স্থানীয় বিত্তবানদের কাছ থেকে ৬৫ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করেন। 

তবে সেই টাকা বাঁচিয়ে খাওয়ার অনুপযোগী চাল কিনেন রব্বানী। রোববার এসব চাল কিনে কয়েকটি গ্রামের কর্মহীন ৩৬২ জনকে ৫ কেজি করে দেয়া হয়। কিন্তু ওই চাল নিয়ে রাতে ভাত রান্না করলে দুর্গন্ধের কারণে কেউ খেতে পারেনি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। 

ওই গ্রামে আবুল কাশেম ও সুকুমার কর্মকার অভিযোগ করে বলেন, যে চাল তাদের দেয়া হয়েছে তা রান্না করে মুখে দেয়া যায় না।

সোমবার বানিয়াপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে দরিদ্র কর্মহীনরা ওই চাল ফেরত দিতে আসেন। তা জানতে পেরে ওই ইউপি সদস্যের সমর্থক ও কর্মীবাহিনী চাল ফেরত দিতে আসা মানুষের উপর চড়াও হয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য গোলাম রব্বানী বলেন, গণেশ দত্ত আমার বিরুদ্ধে ভোটে দাঁড়িয়েছিল। সে উদ্দেশ্যমূলক এ ঘটনা ঘটায়। তা ছাড়া চাল কেনার সময় দেখিনি।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন