ককটেল তৈরি করতে গিয়ে বিস্ফোরণে ৩ স্কুলছাত্র আহত

  গজারিয়া (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি ৩০ এপ্রিল ২০২০, ১৪:৪৪:৩০ | অনলাইন সংস্করণ

ফাইল ছবি

ইউটিউব দেখে ককটেল তৈরি করতে গিয়ে বিস্ফোরণে তিন স্কুলছাত্র আহত হয়েছে।

বুধবার রাতে গজারিয়া উপজেলার বাউশিয়া ইউনিয়নের চরবাউশিয়া বড়কান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় রাতেই তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আহতরা গজারিয়া উপজেলার বাউশিয়ার এমএ আজহার উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ও একই এলাকার চা দোকানদার মহসিনের ছেলে শাকিবুল (১২), ভাতিজা রাব্বি (১২), তার বাবা নজরুল ও ভাগিনা হাসান (১২), তার বাবা সফিক।

জানা যায়, দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ। ইউটিউব দেখে দেখে ককটেল তৈরি করতে গিয়ে বিস্ফোরিত হয়ে তিন স্কুলছাত্র গুরুতর আহত হয়েছে। আহতদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় রাতেই ঢাকা মেডিকেলে স্থানন্তর করা হয় বলে জানান গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা তাসলিমা আনাম।

স্থানীয়রা জানান, গজারিয়া উপজেলার বড়কান্দি গ্রামের হান্নান মেম্বারের বাড়িসংলগ্ন চায়ের দোকানদার মহসিনের বাড়িতে রাতে ককটেল বিস্ফোরণের বিকট আওয়াজ হয়। এতে আশপাশের লোকজন বাড়ির সামনে গিয়ে দেখেন তিন শিক্ষার্থীই গুরুতর আহত হয়েছে।

গজারিয়া থানা পুলিশ সূত্র জানায়, বুধবার রাত ৮টার দিকে চা দোকানদার মহসিনের চৌচালা বসতঘরের দুটি কক্ষ। পূর্ব পাশের কক্ষে বসে ককটেল বা কোনো বিস্ফোরক তৈরি করছিল তার ছেলে, ভাগিনা ও ভাতিজা। এ সময় আগের তৈরি বিস্ফোরণ হয়।

এতে হাসানের দুটি পায়ের মাংস বিচ্ছিন্ন হয়ে মারাত্মক আহত হয় এবং হাতেও আঘাত লাগে। রাব্বির পেটে স্প্লিন্টারের আঘাত লাগে এবং সাকিবুলের ডান পা, পেট ও থুতনিতে আঘাত লাগে। আহত তিনজন গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে যায়।

অবস্থা গুরুতর হওয়ায় রাতেই তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় মেম্বার হান্নান জানান, বিস্ফোরণের পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি ইউটিউব দেখে ককটেল বানাতে গিয়ে বিকট শব্দে তা বিস্ফোরিত হয়। ২০টি ককটেল বানাচ্ছিল ওই তিন ছেলে। ২০টি মধ্যে ১৮টি তৈরি হয়ে গেছে। এরই মধ্যে দুটি ককটেল ফেটে যায়।

এ বিষয়ে গজারিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন জানান, অবৈধভাবে বিস্ফোরক বহন ও বিস্ফোরণ ঘটানোর কারণে তিন ছাত্রের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজু করার প্রস্তুতি চলছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত