মেঘনায় মাছ শিকারে নেমেছে অর্ধ-লক্ষাধিক জেলে
jugantor
মেঘনায় মাছ শিকারে নেমেছে অর্ধ-লক্ষাধিক জেলে

  লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  

০১ মে ২০২০, ১৪:৪৭:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি ও জাটকা রক্ষায় মার্চ-এপ্রিল দুই মাস নিষেধাজ্ঞা শেষে মেঘনা নদীতে লক্ষ্মীপুরের অর্ধ-লক্ষাধিক জেলে মাছ শিকারে নেমেছে।

বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে নদীতে মাছ শিকার শুরু করে জেলেরা।

জানা গেছে, লক্ষ্মীপুর সদর, রায়পুর, রামগতি ও কমলনগর উপজেলায় প্রায় ৬০ হাজার জেলে রয়েছেন। এর মধ্যে ৪৫ হাজার ৭৭১ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছেন। দুই মাস চাঁদপুরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুরের রামগতি পর্যন্ত ১০০ কিমি মেঘনা নদীর অভয়াশ্রমে সরকার সব প্রজাতির মাছ ধরা নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

নিষেধাজ্ঞা থাকায় এ সময়ে জেলেরা মেঘনায় মাছ ধরা থেকে বিরত থাকেন। অবসর সময়ে তারা নৌকা মেরামত, জাল বোনা ও ছেঁড়া জাল ঠিক করে নিয়েছেন।

জেলেদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দুই মাস মাছ ধরা থেকে বিরত থাকার পর বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে নদীতে মাছ শিকারে যাচ্ছেন তারা। বিকল্প কর্মসংস্থান না থাকায় গত দুই মাস ধার-দেনা করে সংসার চালিয়েছেন।

এখন নদীতে মাছ ধরা পড়লে সামনের দিনগুলো ভালো কাটবে বলে আশা তাদের। এদিকে কিছু অসাধু জেলে গত দুই মাস সুযোগ পেলেই নদীতে মাছ শিকার করেছেন বলে অভিযোগ তাদের।

লক্ষ্মীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন বলেন, নিষেধাজ্ঞা শেষ হলেও ৩০ জুন পর্যন্ত জাটকা শিকার করা যাবে না। জাটকা রক্ষায় অভিযান অব্যাহত থাকবে।

মেঘনায় মাছ শিকারে নেমেছে অর্ধ-লক্ষাধিক জেলে

 লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 
০১ মে ২০২০, ০২:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি ও জাটকা রক্ষায় মার্চ-এপ্রিল দুই মাস নিষেধাজ্ঞা শেষে মেঘনা নদীতে লক্ষ্মীপুরের অর্ধ-লক্ষাধিক জেলে মাছ শিকারে নেমেছে। 

বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে নদীতে মাছ শিকার শুরু করে জেলেরা।

জানা গেছে, লক্ষ্মীপুর সদর, রায়পুর, রামগতি ও কমলনগর উপজেলায় প্রায় ৬০ হাজার জেলে রয়েছেন। এর মধ্যে ৪৫ হাজার ৭৭১ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছেন। দুই মাস চাঁদপুরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুরের রামগতি পর্যন্ত ১০০ কিমি মেঘনা নদীর অভয়াশ্রমে সরকার সব প্রজাতির মাছ ধরা নিষেধাজ্ঞা জারি করে। 

নিষেধাজ্ঞা থাকায় এ সময়ে জেলেরা মেঘনায় মাছ ধরা থেকে বিরত থাকেন। অবসর সময়ে তারা নৌকা মেরামত, জাল বোনা ও ছেঁড়া জাল ঠিক করে নিয়েছেন।

জেলেদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দুই মাস মাছ ধরা থেকে বিরত থাকার পর বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে নদীতে মাছ শিকারে যাচ্ছেন তারা। বিকল্প কর্মসংস্থান না থাকায় গত দুই মাস ধার-দেনা করে সংসার চালিয়েছেন। 

এখন নদীতে মাছ ধরা পড়লে সামনের দিনগুলো ভালো কাটবে বলে আশা তাদের। এদিকে কিছু অসাধু জেলে গত দুই মাস সুযোগ পেলেই নদীতে মাছ শিকার করেছেন বলে অভিযোগ তাদের।

লক্ষ্মীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন বলেন, নিষেধাজ্ঞা শেষ হলেও ৩০ জুন পর্যন্ত জাটকা শিকার করা যাবে না। জাটকা রক্ষায় অভিযান অব্যাহত থাকবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন