হস্তান্তরের আগেই যমুনায় বিলীন হয়ে যাবে দেওয়ানগঞ্জ নৌ-থানা!
jugantor
হস্তান্তরের আগেই যমুনায় বিলীন হয়ে যাবে দেওয়ানগঞ্জ নৌ-থানা!

  দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি  

০৪ মে ২০২০, ২০:৪২:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত নৌ-থানা ভবনটি হস্তান্তরের আগেই বিলীন হয়ে যেতে পারে।

২০১৯ সালের ৬ এপ্রিল বাহাদুরাবাদ ঘাট নৌথানা নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন করেছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা নির্মিত ৩ তলা এই ভবনটির নির্মাণ কাজও শেষের পথে। ভবনটি যে সময় উদ্বোধন করা হয় সে সময় যমুনা নদী ছিল প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে। বর্তমানে থানা ভবন থেকে নদীর দূরুত্ব মাত্র ২০ থেকে ৩০ গজের মত।

বাহাদুরাবাদ ঘাট নৌ-থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান. ভাঙণ রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডকে কয়েকবার জানানো হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাইদ জানান, নদীর আশেপাশের এলাকায় কোনো সরকারি ভবন নির্মাণ করার আগে আমাদের কোনো মতামত নেয়া হয় না। ভাঙন রোধে খোলাবাড়ী থেকে ফুটানি বাজার পর্যন্ত ৮শ মিটার অস্থায়ী জিও ব্যাগ ফেলতে ৭ কোটি ৮৪ লাখ টাকার প্রকল্প অনুমোদনের জন্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন পাওয়া গেলে টেন্ডার দেয়া হবে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান সাবেক তথ্যমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ জানান, সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরকে ভাঙনের বিষয়ে অবহিত করে ডিও লেটার দেয়া হয়েছে। খোলাবাড়ী রক্ষায় সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হস্তান্তরের আগেই যমুনায় বিলীন হয়ে যাবে দেওয়ানগঞ্জ নৌ-থানা!

 দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি 
০৪ মে ২০২০, ০৮:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত নৌ-থানা ভবনটি হস্তান্তরের আগেই বিলীন হয়ে যেতে পারে।

২০১৯ সালের ৬ এপ্রিল বাহাদুরাবাদ ঘাট নৌথানা নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন করেছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা নির্মিত ৩ তলা এই ভবনটির নির্মাণ কাজও শেষের পথে। ভবনটি যে সময় উদ্বোধন করা হয় সে সময় যমুনা নদী ছিল প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে। বর্তমানে থানা ভবন থেকে নদীর দূরুত্ব মাত্র ২০ থেকে ৩০ গজের মত।

বাহাদুরাবাদ ঘাট নৌ-থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান. ভাঙণ রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডকে কয়েকবার জানানো হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাইদ জানান, নদীর আশেপাশের এলাকায় কোনো সরকারি ভবন নির্মাণ করার আগে আমাদের কোনো মতামত নেয়া হয় না। ভাঙন রোধে খোলাবাড়ী থেকে ফুটানি বাজার পর্যন্ত ৮শ মিটার অস্থায়ী জিও ব্যাগ ফেলতে ৭ কোটি ৮৪ লাখ টাকার প্রকল্প অনুমোদনের জন্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন পাওয়া গেলে টেন্ডার দেয়া হবে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান সাবেক তথ্যমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ জানান, সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরকে ভাঙনের বিষয়ে অবহিত করে ডিও লেটার দেয়া হয়েছে। খোলাবাড়ী রক্ষায় সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন