কোম্পানীগঞ্জে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা
jugantor
কোম্পানীগঞ্জে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

১০ মে ২০২০, ০৮:২৩:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

কোম্পানীগঞ্জে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় তুলে নিয়ে এক ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহতের নাম মো. রাশেদ (৩২)।

শনিবার রাত সোয়া ১০টার দিকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়।

নিহত রাশেদ চরএলাহী ৮নং ওয়ার্ড গাঙচিল গ্রামের আবুল হাসেম প্রকাশ বাদী হাসেমের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রাশেদের মাটিকাটার মেশিন, ট্রাক্টর ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার ব্যবসা ছিল। শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কিল্লার বাজারের নিজ ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠানে বসে কাজ করছিলেন তিনি।

এ সময় কয়েকজন দুর্বৃত্ত এসে তাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাসেম বাজারের দিকে নিয়ে যায়।

এর পর ১৫-২০ জন মিলে রাশেদকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে জখম করে ফেলে যায়।

এলাকায় আধিপত্য নিয়ে রাশেদের ভাই দেলোয়ারের সঙ্গে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোজাম্মেল মেম্বারের বিরোধ রয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা।

নিহত রাশেদের বড় ভাই দেলোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, মোজাম্মেল মেম্বারের নেতৃত্বে স্থানীয় ইকবাল, মেহরাজ ও বেচু মাঝিসহ অন্তত ১৫-২০ জন কিল্লার বাজার থেকে রাশেদকে তুলে নিয়ে যায়।

পরে তারা হাসেম বাজারে নিয়ে প্রকাশ্যে রাশেদকে পিটিয়ে জখম করে ফেলে রেখে যায়। গুরুতর অবস্থায় রাশেদকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিলে তার মৃত্যু হয়।

কোম্পানীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইমরান হোসেন বলেন, ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চলছে। পরে বিস্তারিত বলা যাবে।

নিহতের মরদেহ বর্তমানে জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

কোম্পানীগঞ্জে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
১০ মে ২০২০, ০৮:২৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কোম্পানীগঞ্জে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা
ফাইল ছবি

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় তুলে নিয়ে এক ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহতের নাম মো. রাশেদ (৩২)।

শনিবার রাত সোয়া ১০টার দিকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়। 

নিহত রাশেদ চরএলাহী ৮নং ওয়ার্ড গাঙচিল গ্রামের আবুল হাসেম প্রকাশ বাদী হাসেমের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রাশেদের মাটিকাটার মেশিন, ট্রাক্টর ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার ব্যবসা ছিল। শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কিল্লার বাজারের নিজ ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠানে বসে কাজ করছিলেন তিনি। 

এ সময় কয়েকজন দুর্বৃত্ত এসে তাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাসেম বাজারের দিকে নিয়ে যায়। 

এর পর ১৫-২০ জন মিলে রাশেদকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে জখম করে ফেলে যায়। 

এলাকায় আধিপত্য নিয়ে রাশেদের ভাই দেলোয়ারের সঙ্গে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোজাম্মেল মেম্বারের বিরোধ রয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা।  

নিহত রাশেদের বড় ভাই দেলোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, মোজাম্মেল মেম্বারের নেতৃত্বে স্থানীয় ইকবাল, মেহরাজ ও বেচু মাঝিসহ অন্তত ১৫-২০ জন কিল্লার বাজার থেকে রাশেদকে তুলে নিয়ে যায়। 

পরে তারা হাসেম বাজারে নিয়ে প্রকাশ্যে রাশেদকে পিটিয়ে জখম করে ফেলে রেখে যায়। গুরুতর অবস্থায় রাশেদকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিলে তার মৃত্যু হয়। 

কোম্পানীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ইমরান হোসেন বলেন, ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চলছে। পরে বিস্তারিত বলা যাবে। 

নিহতের মরদেহ বর্তমানে জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন