ক্ষুধার জ্বালায় মরতে চান না বিড়ি শ্রমিকরা
jugantor
ক্ষুধার জ্বালায় মরতে চান না বিড়ি শ্রমিকরা

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৩ মে ২০২০, ২১:২২:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

মানুষ যখন করোনাভাইরাসের কবল থেকে বাঁচতে ব্যস্ত, তখন অসহায় বিড়ি শ্রমিকরা মরতে বসেছে ক্ষুধার জ্বালায়। করোনা সংকটে প্রয়োজনে করোনায় মরতে হলেও ক্ষুধার জ্বালায় মরতে চান না তারা।

বুধবার কুষ্টিয়া প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে এ বক্তব্য দেন এক বিড়ি শ্রমিক নেতা।

কুষ্টিয়া বিড়ি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল বিশ্বাস নামে এ নেতা বলেন, করোনার কারণে কর্ম বন্ধ থাকলেও থেমে নেই আমাদের জীবন জীবিকার চাহিদা। বিড়ি শিল্পের সঙ্গে আমরা প্রত্যন্ত অঞ্চলের হতদরিদ্র, স্বামী পরিত্যক্তা নারী, বয়স্ক নারী-পুরুষ ও নদী ভাংগন এলাকার মানুষ জড়িত।

তিনি বলেন, স্বাভাবিক সময়ে যখন আমাদের অবস্থা নুন আনতে পান্তা ফুরায়, তখন বর্তমান সময়ে চরম অসহায়ত্বের মধ্যে দিন পার করছি আমরা। পেটের জ্বালা মেটাতে আমাদের দু‘মুঠো খাবার জোগানো সম্ভব হচ্ছে না। বিকল্প কাজও নেই। আমরা সরকারের কাছে কোনো প্রণোদনা চাই না; চাই শুধু কাজের সুযোগ।

ক্ষুধার জ্বালায় মরতে চান না বিড়ি শ্রমিকরা

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৩ মে ২০২০, ০৯:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মানুষ যখন করোনাভাইরাসের কবল থেকে বাঁচতে ব্যস্ত, তখন অসহায় বিড়ি শ্রমিকরা মরতে বসেছে ক্ষুধার জ্বালায়। করোনা সংকটে প্রয়োজনে করোনায় মরতে হলেও ক্ষুধার জ্বালায় মরতে চান না তারা।

বুধবার কুষ্টিয়া প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে এ বক্তব্য দেন এক বিড়ি শ্রমিক নেতা।

কুষ্টিয়া বিড়ি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল বিশ্বাস নামে এ নেতা বলেন, করোনার কারণে কর্ম বন্ধ থাকলেও থেমে নেই আমাদের জীবন জীবিকার চাহিদা। বিড়ি শিল্পের সঙ্গে আমরা প্রত্যন্ত অঞ্চলের হতদরিদ্র, স্বামী পরিত্যক্তা নারী, বয়স্ক নারী-পুরুষ ও নদী ভাংগন এলাকার মানুষ জড়িত।

তিনি বলেন, স্বাভাবিক সময়ে যখন আমাদের অবস্থা নুন আনতে পান্তা ফুরায়, তখন বর্তমান সময়ে চরম অসহায়ত্বের মধ্যে দিন পার করছি আমরা। পেটের জ্বালা মেটাতে আমাদের দু‘মুঠো খাবার জোগানো সম্ভব হচ্ছে না। বিকল্প কাজও নেই। আমরা সরকারের কাছে কোনো প্রণোদনা চাই না; চাই শুধু কাজের সুযোগ।