শ্রমিক ছাঁটাই নিয়ে শেরপুরে স্পিনিং মিলে সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত ৩৫

  শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি ১৪ মে ২০২০, ২১:১১:২৯ | অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার শেরপুরের সোলাকুড়ি ফকিরতলা গ্রামে অবস্থিত রনক স্পিনিং মিলে কর্মী ছাঁটাই করাকে কেন্দ্র করে মালিক-শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৪ পুলিশ সদস্যসহ ৩৫ জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৬ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোঁড়ে।

বৃহস্পতিবার ভোরে এ ঘটনায় আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন শেরপুর থানার কনস্টেবল মহসিন আলী, ইসরাফিল, আবু তালেব ও আনজাম।

গুরুতর আহত ৭ শ্রমিক বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং কনস্টেবলরা শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জানা যায়, উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের সোলাকুড়ি ফকিরতলা গ্রামে অবস্থিত রনক স্পিনিং মিল বন্ধ হওয়ার কথা শুনে বুধবার রাতে শ্রমিকের পক্ষে জিএম মঞ্জুরুল মোর্শেদের কাছে বেতন চাইতে যান। কিন্তু জিএম তাদের বেতন দিতে অস্বীকৃতি জানান। তখন শ্রমিকদের সঙ্গে মালিক পক্ষের কথা কাটাকাটি হয়।

এরই একপর্যায়ে শ্রমিক শরিফুল ইসলাম ও আবদুল মালেককে কোম্পানি থেকে ছাঁটাই করা হয়। এ ঘটনায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে থাকে। বৃহস্পতিবার ভোরে ঘটনাস্থলে এসআই পুতুল মোহন্তসহ পুলিশ এসে শ্রমিকদের মারপিট করে। এতে শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৬ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোঁড়ে।

এ ব্যাপারে পুলিশের এসআই পুতুল মোহন্ত বলেন, শ্রমিকরা তাদের ভুল বুঝতে পেরে মালিকদের সঙ্গে আপোষ করেছে।

এ ব্যাপারে রনক স্পিনিং মিলের গ্রুপ জিএম আবুল কাশেম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মালিক-শ্রমিকদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি নিয়ে উত্তপ্ত পরিবেশের সৃষ্টি হলে পুলিশ এসে পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ব্যাপারে শেরপুর থানার ওসি মো. হুমায়ুন কবীর বলেন, শ্রমিকদের সঙ্গে কোম্পানির লোকজনদের সংঘর্ষের কথা শুনে ঘটনাস্থলের গিয়ে পরিবেশ শান্ত করতে ৬ রাউন্ড ফাঁকা রাবার বুলেট ছোঁড়া হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত